ইসলামি চিন্তাবিদ-প্রবীন আইনজীবী মির্জা সিরাজ উদ্দিন বেগ-এর-“আল কোরআন, ইসলাম ও মুসলমান” এক খানি অনবদ্য প্রাসঙ্গিঁক-নান্দনিক-সময় উপযোগী প্রকাশনা

March 4, 2021, এই সংবাদটি ১২১ বার পঠিত

মুজিবুর রহমান মুজিব॥ শান্তির ধর্ম-মহা পবিত্র ইসলাম একটি পূর্নাঙ্গঁ জীবন বিধান। পবিত্র ইসলাম ধর্মের প্রচারক আখেরী নবী, আদর্শ মানব-মহামানব-রাসুলে খোদা-হাবিবে আল্লাহ-সাইয়্যেদুল মুরছালীন মোহাম্মদুর রাসুলুল্লাহ (দঃ)। ইসলামী আইনের প্রথম ও প্রধান উৎস আসমানী কিতাব আল কোরআন। আল্লাহর বানী আল-কোরআন ফেরেশতা জিবরাইল (আঃসঃ) মারফত খাতিমুন্নবিয়্যিন হযরত মোহাম্মদ মোস্তফা (দ:) এর কাছে নাযিল হয়। কালামুল্লাহ আল কোরআন বিস্ময়কর-বিজ্ঞানময় মহাগ্রহ্ণ মানব জাতির মুক্তি সনদ। মহাপবিত্র আল কোরআনের ভাষা আরবি। ইসলাম ধর্মের প্রচারক-রাসুলে খোদা হাবিবে আল্লাহ মোহাম্মদুর রাসুল উল্লা এবং আরব জাহানের মাতৃভাষা আরবি বিধায় ন্যায় বিচারক এবং পরম দয়ালু আল্লাহ তায়ালা-মহানবী মোহাম্মদ মোস্তফা এবং আরব বাসির সুবিধার জন্য আরবীতে আল কোরআন নাযিল করেছেন। হেরা পর্বতে মহান মালিকের আরাধনায় ধ্যান মগ্ন মহামানব মোহাম্মদ (দ:) এর প্রতি ফেরেশতা জিবরাইল (আ: স:) মারফত আল্লাহ পাক প্রথমে মহা মূল্যবান বানী প্রেরণ করেন-আরবিতে তা ছিল-ইকরা-পাঠকর। আল্লাহ আরবীতে ঘোষনা করেন “ইকরা বিসমি রাব্বুকাল লাজি খালাক্ক-খালাকাল ইনছানা-মিন আলাক”।

বাংলাদেশের সংখ্যা গরিষ্ট মানুষের মাতৃভাষা বাংলা। আল কোরআন আরবী থেকে বিভিন্ন ভাষায় অনুদিত-পঠিত। ইসলামী ফাউন্ডেশন এবং বিভিন্ন প্রকাশনা বিশেষতঃ ইসলামী প্রকাশনা সংস্থা সমূহ বাংলা বাষায় আল কোরআন বিষয়ক গ্রহ্ণ প্রকাশ করেছেন-করছেন।

বাংলাদেশের প্রকাশনা শিল্প একুশের বই মেলা কেন্দ্রীক। একাডেমী প্রাঙ্গঁনে ফি-বছর অনুষ্ঠিত বই মেলায় সাকুল্যে হাজার চারেক বই বেরুলেও মান সম্মত পুস্তকের সংখ্যা হাজার খানেক ও নয়। মুক্তিযুদ্ধ, ধর্ম, গবেষনা, অনুবাদ, কম্পিউটার, বিজ্ঞান বিষয়ক বই এর সংখ্যা বিষয় ভিত্তিক শতের কোঠায়। বাংলাদেশে সংখ্যা গরিষ্ট মুসলমান-জনগোষ্টির বাস। এ দেশে শতকরা নব্বই ভাগ মুনুষ মুসলমান হলেও বই মেলায় প্রকাশিত ধর্ম বিষয়ক বইর সংখ্যা ও শ-এর কোঠায়। আশা ও আনন্দের কথা জ্ঞান ভিত্তিক সমাজ বিনির্মান ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠনের লক্ষ্যে হাল আমলে মুক্ত বুদ্ধির চর্চাও পাঠাগার আন্দোলন বেগবান। এই আন্দোলন রাজধানী থেকে এখন মফস্বল পর্য্যায়ে ও ছড়িয়ে পড়েছে-পড়ছে। বুক রিভিউ পাঠাগার আন্দোলনে সম্পৃক্ত তার কারনে নতুন বই বেরুলে উপহার পাই। আমিও দেই। ইতিপূর্বে প্রকাশিত সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সংঘটক ধর্ম প্রাণ মুসলমান আকবর হোসেন রচিত “ইসলাম যুগ থেকে যুগান্তরে” গ্রহ্ণ খানি উপহার পেয়ে আমার সামান্য জ্ঞান বুদ্ধি মতে রিভিউ করি- প্রশংসিত হই। গ্রহ্ণ খানিও বহুল পঠিত। প্রশংসিত।

 সম্প্রতি সিলেট থেকে বিশেষ বাহক মারফত রাহমাতুল্লিল আল আমিন এবং ইসলামের প্রাথমিক শিক্ষা ও মাসনুন দোয়া- দুখানি ইসলামি গ্রহ্ণ উপহার পাঠিয়েছেন সিলেট মদন মোহন কলেজের প্রাক্তন প্রিন্সিপাল, সিলেটের বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও ইসলামি চিন্তাবিদ লেঃ কর্নেল আতাউর রহমান পীর। ইয়েমেনী বীর পীরনে পীর শাহ জালালের সিলেট এখন সর্ব বিষয়েই এগিয়ে। সিলেটের পরিচ্ছন প্রকাশনা সংস্থা এবং পরিচ্ছন্ন পূরুষ পান্ডুলিপি প্রকাশন ও বায়জিদ মাহমুদ ফয়সল-প্রকাশনা শিল্পকে প্রাণময় বাঙময় করে তুলছেন। সৌরভ-সৌষ্টব-সৌকর্য্য ও সৌন্দর্য্য বৃদ্ধি করছেন।

প্রকাশনা শিল্পের এমতাবস্থা ও ধর্ম পুস্তকের এই স্বল্পতার মাঝে একটি কঠিন, জটিল ও ঈমানী দায়িত্ব পালন করেছেন প্রবীন আইনজীবী-বর্ষীয়ান বুদ্ধিজীবী ও ইসলামী চিন্তাবিদ মির্জা সিরাজ উদ্দিন বেগ- এডভোকেট।

ষাটের দশক থেকে লিখছি। বই পুস্তক সংবাদপত্র সাময়িকী প্রকাশ করেছি- অনেক। গ্রহ্ণকার মির্জা সিরাজ উদ্দিন বেগ সাহেব এর সঙ্গেঁ আমার পারিবারিক সম্পর্ক-সখ্যতা থাকলেও তাঁকে কোন পত্র পত্রিকায় দু”কলম কলাম লিখতে দেখিনি। একটি শিক্ষিত-সম্ভান্ত-ঐতিহ্যবাহী পরিবারের কৃতি সন্তান হিসাবে একটি নিজস্ব পরিমন্ডলে চলাফেরা করেছেন। বিলেতে ও বাংলাদেশে অধ্যয়ন শেষে আইন পেশায় যোগ দিয়ে একজন পেশাদার আইনজীবী হিসাবে দায়িত্ব পালন করা কালে দুই হাজার পাঁচ সালে পাঠক ও পরিচিত জনকে চমকিয়েছেন মির্জা সিরাজ উদ্দিন বেগ তাঁর আত্ব জৈ বনিক মহাকাব্য “যে দিনগুলো মনে পড়ে” প্রকাশ করে। মফস্বলে মান সম্মত পুস্তকের পাঠক না থাকলেও মির্জা সাহেবের এই গদ্য গ্রহ্ণ দারুন পাঠক প্রিয়তা পায়, নয় সাল পর্যন্ত তৃতীয় সংস্করন প্রকাশিত হয়। গ্রহ্ণকারের পরবর্তী প্রকাশনা আদালতের আঙ্গিঁনায়-“প্রকাশিত হয় আঠারো সালে।

পাঠক প্রিয় সফল গ্রহ্ণকার মির্জা সিরাজ উদ্দিন বেগ এর ইসলাম ধর্ম বিষয়ক মূল্যবান গ্রহ্ণ” আল কোরআন ইসলাম ও মুসলমান-বেরিয়েছে এবারের একুশের বই মেলায়। আল কোরআন: ইসলাম ও মুসলমান” গ্রহ্ণের লেখক মির্জা সিরাজ উদ্দিন বেগ গ্রহ্ণের শুরুতেই এই বই খানি লেখার পটভূমি শিরোনামে- মুখ বন্ধেই দুর্মূখ পাঠক-সমালোচক-বিশ্লেসকদের মুখবন্ধ করে দিয়েছেন। গ্রহ্ণকার পরিস্কার ভাবে যথার্যই বলেছেন “ইসলামের জটিল বিষয়াদি নিয়ে আলোচনা করার মত উচ্চ প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা আমার নাই। আপনারা এবং আমরা যারা ইসলামের মোটামুটি প্রাথমিক ধারনা নিয়ে ইসলামি জীবন যাপন করে যাচ্ছি আমি তাদের সঙ্গেঁও ইসলামের মৌলিক কিছু ভিত্তি নিয়ে আলোচনা বা শেয়ার করার উদ্দেশ্যেই এই ক্ষুদ্র বই খানি লিখেছি। আমি কাউকে জ্ঞান বিতরন করার উদ্দেশ্য নিয়ে লিখিনি।” এই গ্রহ্ণে, গ্রহ্ণকার একজন সাচ্চা ঈমানদার-ফরেজগার-ধর্ম প্রাণ মুসলমান হিসাবে একটি বার্তা দিয়ে গেছেন- তা হলো- “ইসলামের স্বর্ণ যুগে মুসলমান পন্ডিতেরা গবেষনার সুত্র পেয়েছেন। মুসলমানরা শৌর্য্য বির্যই প্রদর্শন করেন নি জ্ঞান বিজ্ঞানে ও উৎকর্ষ সাধন করে গেছেন।” গ্রহ্ণ খানি প্রকাশ করেছেন কোরাস, মৌলভী   বাজার, গ্রহ্ণ স্বত্ব লেখকের মূল্য আড়াইশ টাকা খুব বেশি নয়। প্রচ্ছদ রুদ্র ভাস্কর। মসজিদে নববীর গম্বুজের রং গাঢ় সবুজের আদলে প্রচ্ছদ রুচী সম্মত। মানান সই। অঙ্গঁ সজ্জায় প্রকাশনা কর্তৃপক্ষ আরো একটু যত্নবান ও আন্তরিক হতে পারতেন। প্রচ্ছদ শিল্পীর নাম দুই পাতায় দুই বার থাকলেও মুদ্রাকর এর নাম মুদ্রনের স্থান নেই। পৃন্টিং এন্ড পাবলিকেশন এ্যাক্ট এর বিধান ছাড়াও একখানি গ্রহ্ণ সংবাদ পত্রের মুদ্রাকর এর নাম থাকা রেওয়াজ রীতি-বিধি বিধান। নিষিদ্ধ সংঘটনের গোপন দলিলে মুদ্রা করের নাম স্থান দেয়া হয় না, গোপনীয় তার কারনে। এমন একটি ধর্মীয় ও ঐতিহাসিক গ্রহ্ণে এমন অসম্পূর্ণতা কারো কাম্য নয়।

কলামুল্লা আল কোরআন এবং আশরাফুল মকলুখাত ইনসান বিষয়ক এই গ্রহ্ণের বিষয়-বিস্তৃতি-ব্যাপক-কটিন জটিলতর হলেও গ্রহ্ণ খানি সুখপাঠ্য। গ্রহ্ণকার সহজ সরল ভাষায় কঠিন- জটিল বিষয়কে উপস্থাপন-বয়ান-বর্ণনা করেছেন।

মির্জা সিরাজ উদ্দিন বেগ-পেশাদার আইনজীবী হয়েও কোরআন ও ইনছান বিষয়ক এমন মূল্যবান গ্রহ্ণ রচনা করে বলে গেলেন-আল্লাহর রহমত হলে আমরা ও পারি। গ্রহ্ণকার মির্জা সিরাজ উদ্দিন বেগ যেমন সত্যবাদি-স্পষ্ট বাদি-সহজ সরল সাদা মনের মানুষ আল কোরআন ইসলাম ও মুসলমান গ্রহ্ণ খানি ও সুখ পাঠ্য সহজ সরল ভাষায় লিপিবদ্ধ। গ্রহ্ণকার মির্জা সিরাজ উদ্দিন বেগ আল্লাহর কালাম আল কোরআন বিষয়ক এই মহা মূল্যবান গ্রহ্ণ- “আল কোরআনঃ ইসলাম ও মুসলমান” লিখে ঈমানি দায়িত্ব পালন করেছেন ইনশাল্লা দু’জাহানেই অশেষ ছওয়াব হাসিল করবেন। মহান মালিক তাঁর মেহনত কবুল করুন এই মোনাজাত করছি। এই মূল্যবান গ্রহ্ণের বহুল প্রচার এবং গ্রহ্ণকারের সু-স্ব্যাস্থ- দীর্ঘায়ূ ও সার্বিক কল্যান কামনা করি।

[ষাটের দশকের সাংবাদিক। মুক্তিযোদ্ধা। সাবেক সভাপতি মৌলভীবাজার প্রেসক্লাব। সেক্রেটারি, মৌলভীবাজার জেলা জামে মসজিদ]

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •