কমলগঞ্জে স্যাটেলমেন্ট অফিসের দালাল আটক ॥ থানায় মামলা

June 4, 2016, এই সংবাদটি ১৭৩ বার পঠিত

কমলগঞ্জ প্রতিনিধি॥ কমলগঞ্জে জাল-জালিয়াতির মাধ্যমে জায়গা জমি সংক্রান্ত মাঠ পর্চা, দলিল, খারিজ পর্চা তৈরী করে মানুষের সাথে প্রতারণার অভিযোগে কমলগঞ্জ থানা পুলিশ এক দালালকে আটক করেছে। এ ব্যাপারে কমলগঞ্জ থানায় একটি মামলা হয়েছে।
কমলগঞ্জ থানায় দায়েরকৃত মামলা সূত্রে জানা যায়, কমলগঞ্জ উপজেলার শমশেরনগর ইউনিয়নের শিংরাউলী গ্রামের মৃত বারিক মিয়ার পুত্র আব্দুর রহিম (৪৫) দীর্ঘদিন যাবত কমলগঞ্জ স্যাটেলমেন্ট অফিসে জমি সংক্রান্ত দালালি করে থাকে। সে এলাকার বিভিন্ন লোকদের জায়গা জমি সংক্রান্ত মাঠ পর্চা, দলিল, খারিজা পর্চা তৈরীর কথা বলে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে জালিয়াতির মাধ্যমে টাকা পয়সা গ্রহন করে থাকে। সে সুবাদে কমলগঞ্জ পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডের ভানুগাছ বাজারের মুনছিব আলীর পুত্র মো. সোহেল আহমদের ভূমির মাঠ পর্চা ঠিক করার কথা বলে চলতি বছরের মার্চ মাস থেকে মে মাস পর্যন্ত বিভিন্ন তারিখে ৮২ হাজার ২৮০ টাকা গ্রহণ করে। এছাড়া ভানুগাছ বাজারের মৃত ডা: রুহুল কুদ্দুছের পুত্র জহিরুল আলম (আজমল মিয়া) এর নামীয় ভূমির মাঠ পর্চা ঠিক করার কথা বলে ৮ হাজার ৫০০ টাকা গ্রহণ করে। ভানুগাছ বাজারের ভূক্তভোগী সোহেল আহমদ জানান, সম্প্রতি তার পিতা, মাতা ও স্ত্রী’র নামীয় বিভিন্ন দাগে স্যাটেলমেন্ট অফিসের সিলেট জোনের আপত্তি অফিসার আব্দুল মালেক এর সীল সম্বলিত স্বাক্ষর করা মোট ৯টি মাঠপর্চা স্যাটেলমেন্ট অফিসের দালাল আব্দুর রহিম আমাকে প্রদান করে। পর্চাগুলো নিয়ে সোহেল আহমদ সংশ্লিষ্ট স্যাটেলমেন্ট অফিসে যাচাই করে দেখেন মাঠ পর্চা ও ভলিয়ম বইয়ের সাথে কোন মিল নেই। যা সম্পূর্ণ ভূয়া। আব্দুর রহিমকে এ ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে জানায়, উক্ত কাগজপত্রগুলো কুলাউড়া উপজেলার রামপাশা গ্রামের আব্দুল মতিন (৩৫) নামের আরেক দালালের মাধ্যমে সংগ্রহ করেছে।
এ ঘটনায় ২ জুন বৃহষ্পতিবার ভূক্তভোগী সোহেল আহমদ বাদী হয়ে আব্দুর রহিম ও আব্দুল মতিনকে আসামী করে কমলগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। কমলগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক আল-আমীনের নেতৃত্বে একদল পুলিশ বৃহষ্পতিবার রাতে শিংরাউলী গ্রামে অভিযান চালিয়ে আব্দুর রহিমকে গ্রেফতার করে।
কমলগঞ্জ থানার ওসি বদরুল হাসান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এই মামলাটি হবিগঞ্জে দুর্নীতি দমন কমিশনে প্রেরণ করা হয়েছে। দুদক মামলাটি তদন্ত করবে। গ্রেফতারকৃত আসামীকে মৌলভীবাজার আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃত আসামী আব্দুর রহিমের বিরুদ্ধে জাল জালিয়াতির মাধ্যমে ভূয়া কাগজপত্র তৈরী করে অনেক মানুষকে হয়রানী করেছে বলে অভিযোগ করছেন ভূক্তভোগী লোকজন।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •