কুলাউড়ায় যা ঘটলো, ২ মেয়েকে নিয়ে লাপাত্তা গৃহবধু

January 21, 2021, এই সংবাদটি ৩৫৬ বার পঠিত

কুলাউড়া প্রতিনিধ্কুলাউড়ায় ২ মেয়েকে নিয়ে লাপাত্তা এক গৃহবধু। অসহায় স্বামী এঘটনায় কুলাউড়া থানায় সাধারণ ডায়রি করেছেন। ইতিপূর্বেও একবার একইভাবে নিরুদ্দেশ হয়েছিলেন ওই গৃহবধু। তার স্বামী কুলাউড়া থানায় স্ত্রীর বিরুদ্ধে ৩টি সাধারণ ডায়রি করেছেন। থানায় দায়েরকৃত সাধারণ ডায়রি থেকে জানা যায়, উপজেলার ভুকশিমইল ইউনিয়নের ইসমাইল হোসেন সবুজের স্ত্রী শাহিনা আক্তার (৩৪) গত ১৯ জানুয়ারি মঙ্গলবার সকালে ডাক্তার দেখানোর কথা বলে কুলাউড়া শহরে আসেন। পরে আর বাড়িতে ফিরে যাননি । তার ব্যবহৃত মোবাইল সীমটিও বন্ধ রয়েছে। সাথে দুই মেয়ে জাহানারা আক্তার মীম (১২), ফাতেমা আক্তার মৌ (৯) ছিলো। শাহিনা আক্তারের স্বামী ইসমাইল হোসেন সবুজ এ ঘটনায় কুলাউড়া থানায় জিডি (নং ৮০৯ তাং ২০/০১/২১) করেন।

সাধারণ ডায়েরিতে স্বামী ইসমাইল হোসেন সবুজ আরও অভিযোগ করেন, গত বছরের ২ মার্চ একইভাবে এক মেয়েকে নিয়ে লাপাত্তা হয়েছিলেন। ৩ মাস পর নিজে নিজে বাড়ীতে ফিরে আসেন। লাপাত্তা হওয়ার ৩ মাস পর ফিরে এসে আমার স্ত্রী পূনরায় ঝগড়া বিবাদ ও পারিবারিক অশান্তির সৃষ্টি করে। তিনি পরিবারের কারও কথাবার্তা শুনেন না। নিজের খেয়াল খুশিমতো চলেন। নিখোঁজ হওয়ার পর কুলাউড়া থানা জিডি (নং ২০১ তাং ০৪/০৩/২০) করি।

এছাড়া গত ১০ জানুয়ারি শাহিনা আক্তার ৯৯৯ এ কল করে থানায় স্বামীর বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন। পুলিশ সাথে সাথে বাড়িতে গিয়ে অভিযোগের কোন সত্যতা পায়নি। ফলে বাধ্য হয়ে স্বামী সবুজ স্ত্রীর শাহিনার বিরুদ্ধে জিডি (নং ৪৩৬ তাং ১১/০১/২১) দায়ের করেন। ইসমাইল হোসেন সবুজ জানান, তিনি স্ত্রীর অমানষিক নির্যাতনে অতিষ্ট। কেবল সন্তানের মায়ায় স্ত্রীর সাথে সম্পর্ক রাখতে হচ্ছে। এ ব্যাপারে কুলাউড়া থানার অফিসার্স ইনচার্জ বিনয় ভূষণ রায় জানান, প্রায় সময় এভাবে মহিলা চলে যায়। তারপরও বিষয়টা নিয়ে তদন্ত চলছে।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •