খাসিদের পান জুম দখল করে কুলাউড়ায় সামাজিক বনায়ন

August 28, 2021, এই সংবাদটি ১২৮ বার পঠিত

মাহফুজ শাকিল॥ কুলাউড়া উপজেলার কর্মধা ইউনিয়নের নোনছড়ায় সামাজিক বনায়নের নামে অন্তত ৩০টি ছোট-বড় জুম দখলে নিয়েছে স্থানীয় নলডরি বনবিভাগ। এমন অভিযোগ করেছেন নোনছড়া পানপুঞ্জির ২৫টি খাসিয়া পরিবারের লোক। গত প্রায় ২ মাস থেকে কথিত উপকারভোগীদের নিয়ে এইসব জুম দখল করা হয় বলে জানা গেছে। ভয়ে খাসিয়া পরিবারের কেউ কথা বলতে পারেননি। স্থানীয় অনেকেই জানান, জুমগুলোর পান ও অন্যান্য গাছ কেটে ফেলা হয়েছে। জুমের কোথাও আবার আগুন লাগিয়ে বাঁশ ও গাছ পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।
খাসিয়ারা অভিযোগ করে বলেন- কথিত উপকারভোগিরা নলডরি বনবিটের সাবেক বিট কর্মকর্তা জহিরুল ইসলামের সহযোগিতায় জুমের ভিতর ক্যাম্প ও সামাজিক বনায়নের নামে সাইনবোর্ড টাঙিয়ে রেখেছে। এইসব ঘটনা প্রশাসনকেও জানানো হয়েছে। নোনছড়া পুঞ্জির খাসিরা আরো জানান, তারা সামাজিক বনায়নের বিপক্ষে নন। তবে জুমের পান এবং প্রাকৃতিক গাছ কেটে তারা সামাজিক বনায়ন চান না। নোনছড়ার পানজুমে খাসিরা ভয়ে যেতে পারছেন না। তাছাড়া তারা প্রতিবাদ করতে গেলে বনবিভাগের লোকজন ও কথিত উপকারভোগিরা রাস্তাঘাটে তাদের যাতায়াতে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেন। খাসিয়ারা অভিযোগ করে আরো বলেন, এভাবে চললে একসময় পান জুমের কোন অস্তিত্ব থাকবে না। নলডরি বনবিটের সাবেক বিট কর্মকর্তা জহিরুল ইসলাম কথিত উপকারভোগিদের নিয়ে নোনছড়ায় সামাজিক বনায়ন ও নার্সারী করেন। এদিকে খাসিয়া সম্প্রদায়ের লোকজন আরো জানান, নলডরির বর্তমান বিট কর্মকর্তা ও কথিত উপকারভোগিরা পুঞ্জির লোকজনের কাছ থেকে কয়েক লক্ষ টাকা চাঁদা আদায় করে নিয়েছে। তাছাড়া বিজ্ঞ আদালত কর্তৃক নিষেধাজ্ঞা জারির পরও বনবিভাগ আইন অমান্য করে জোরপূর্বক নার্সারী ও সামাজিক বনায়ন করেছে। নোনছড়ার খাসিয়া জনগোষ্ঠী জুমের প্রাকৃতিক গাছ ও জুম রক্ষার জন্য প্রশাসনের সহযোগিতা চেয়েছেন।
আনিত অভিযোগ সম্পর্কে নলডরি বনবিটের সাবেক বিট কর্মকর্তা জহিরুল ইসলাম বলেন- আমরা সরকারীভাবে যে জায়গা বনায়নের জন্য নির্ধারণ করেছি, উপকারভোগিরা এর বাইরে গিয়ে জুম দখল করে গাছের চারা লাগিয়েছে।
বর্তমান বিট কর্মকর্তা শেখ আইয়ুব আলীর সাথে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তার মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •