নাগা মরিচের বাম্পার ফলন হলেও বিছা পোকার আক্রমনে অতিষ্ট কৃষক

April 18, 2021, এই সংবাদটি ২৯৯ বার পঠিত

বিকুল চক্রবর্তী॥ শ্রীমঙ্গলে প্রায় ১০০ হেক্টর জমিতে চাষ হয় নাগা মরিচ। যার বেশিরভাগই বিদেশে রপ্তানী হয়। এ বছরও উৎপাদন ভালো হয়েছে তবে সম্প্রতি বিছা পোকার আক্রমনে অতিষ্ট কৃষক। কোন কোন জায়গায় গোড়াপচন ও পাতামুড়ানো রোগ রয়েছে।
এ ব্যাপারে শ্রীমঙ্গল রাধানগর এলাকার নাগা মিরিচ চাষী কাজী সামছুল হক জানান, তার ১০ হাজার নাগা মরিচের গাছ রয়েছে। তিনি ক্রীটনাশক ছাড়াই এটি উৎপাদন করে আসছিলেন। কিন্তু হঠাৎ করে তার বাগানের বেশ কিছু গাছে বিভিন্ন জাতের বিছা পোকা মরিচ খাওয়া শুরু করেছে। প্রাকৃতিক পদ্ধতিতে স্প্রে করেও কোন ফল হয়নি। বিষয়টি নিয়ে তিনি দুশ্চিন্তাগস্থ।
এ ব্যাপারে শ্রীমঙ্গল ভুনবীর নুতন বাগান এলাকার লেবু ও নাগামরিচ চাষী বিধান চক্রবর্তী জানান, তার বাগানে নাগামরিচে গোড়াপঁচন এবং পাতা মোড়ানো রোগ দেখা দিয়েছে। তিনি জানান, এর আগে শিলা বৃষ্টিতে তার লেবু বাগানের সব ফুল ঝড়ে পড়ে তিনি এমনিতেই ক্ষতিগস্থ হন এর মধ্যে নাগা মরিচের গাছেও মড়ক ধরেছে।
এ ব্যাপারে শ্রীমঙ্গল উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা নিলুফার ইয়াছমিন মোনালিসা সুইটি জানান, শ্রীমঙ্গল উপজেলায় প্রায় ৩ শত একর জমিতে নাগা মরিচের চাষ হয়। শ্রীমঙ্গলের নাগামরিচ খুবই আর্কশনীয়, এটি লাল টকটকে হয় এবং এর ঝাঁল তীব্র। তবে চলমান মৌসুমে তাপমাত্রার তারতম্যের কারনে বিশেষ করে দিনের প্রথমভাগে উচ্চ তাপমাত্রা ও সন্ধার পর নিন্ম তাপমাত্রার কারনে কিছু সমস্যা হচ্ছে।
তিনি জানান, দুএকটি জায়গা থেকে গোড়া পঁচা রোগ, পাতামোড়া রোগ ও বিছা পোকার আক্রমনের সংবাদ পেয়েছেন।
তবে বিছা পোকার আক্রমন রোধে সুমি আলফা ও বজ্র ক্রীটনাশক খুবই উপকারী। তিনি জানান, এর ব্যবহার প্রণালী হিসেবে ১লিটার পানিতে ১মিলিলিটার সুমি আলফা ৭দিন অন্তর দুইবার দিতে হবে। আর পাতামোড়ানো রোগের জন্য কুমুলাস ও ইনসাফ খুবই উপকারী। এর জন্য ১ লিটার পানিতে ১ গ্রাম কুমুলাস দিয়ে ৪দিন অন্তর দুইবার স্প্রে করতে হয়।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •