বকেয়া বিলের দায়ে কমলগঞ্জের আদমপুর ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন ॥ ভোগান্তি

June 27, 2016,

কমলগঞ্জ প্রতিনিধি॥ ২৪ হাজার টাকা বকেয়া বিলের কারণে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার ৭নং আদমপুর ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করেছে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি। বিদ্যুৎ বিহিন ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে তথ্য সেবা কেন্দ্রের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকায় ৫ দিন ধরে আদমপুর ইউনিয়নে জনদুর্ভোগের শিকার হন ইউনিয়নবাসী। অনাদায়ী বিদ্যুৎ বিলের কারণে ২৩ জুন বৃহস্পতিবার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি আদমপুর ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে।
মৌলভীবাজার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির (পবিস) কমলগঞ্জ জোনাল কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, ২০১৫ সনের কয়েক মাসের ২৪ হাজার টাকার বিল পরিশোধ করা হয়নি আদমপুর ইউনিয়ন পরিষদ থেকে। বার বার তাগাদার পরও আদমপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এ বিল পরিশোধ করেননি। অবশেষে ২৩ জুন বৃহস্পতিবার বকেয়া বিলের টাকা আদায় অভিযানকালে এ ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ের সংযোগ বিচ্ছন্ন করা হয়।
পবিস কমলগঞ্জ জোনাল ম্যানেজার প্রকৌশলী এস এম হাসনাত হাসান বলেন, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের প্রতি সম্মান প্রদর্শণ করে এতদিন অপেক্ষা করেও বকেয়া বিল আদায় করা যায়নি। অবশেষ বাধ্য হয়ে এ ইউনিয়ন পরিষদের কার্যালয়ের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়। বকেয়া বিল পরিশোধ করলে দ্রুত সময়ে আবারও বিচ্ছন্ন করা লাইন সংযুক্ত করে দেওয়া হবে।
আদমপুর ইউনিয়নের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক মো: হাজির বক্সসহ এলাকাবাসী বলেন, এ ইউনিয়ন পরিষদের সাথেই রয়েছে একটি তথ্য সেবা কেন্দ্র। ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ায় ৫ দিন ধরে ইউনিয়নবাসী দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন। ইউনিয়নবাসী ইচ্ছে করলেও একটি জন্ম নিবন্ধনসহ কোন প্রকার প্রিন্টেড সনদ নিতে পারছেন না তথ্য সেবা কেন্দ্র থেকে।
আদমপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাব্বির আহমদ ভূঁইয়া বলেন, এসব বিষয় তদারকি করেন পরিষদের সচিব। বিদ্যুৎ বিল কেন পরিশোধ করা হয়নি এ সম্পর্কে সচিবই বলতে পারবেন। আদমপুর ইউনিয়ন পরিষদের সচিব আব্দুস শহীদ বলেন, তিনি সম্প্রতি আদমপুর ইউনিয়নে যোগদান করেছেন। এ বিলটি ছিল আগের সচিবের আমলের। তিনি যোগদানের পর থেকে সকল বিল পরিশোধ করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, চেয়ারম্যান সাহেব সচিবের উপর দায় চাপালে কি হবে। তিনি সঠিকভাবে কর আদায় করেননি বলেইতো ব্যয় বেড়ে গেছে। এর দায় চেয়ারম্যানের উপর পড়ে।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •