বড়লেখায় ঝড়ে গাছ উপড়ে ৩ ঘন্টা যান চলাচল বন্ধ বিভিন্নস্থানে লাইন ছিড়ে ২০ ঘন্টা বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ

May 25, 2021, এই সংবাদটি ১৪৩ বার পঠিত

আব্দুর রব॥ বড়লেখায় ঝড়ে কুলাাউড়া-চান্দগ্রাম আঞ্চলিক মহাসড়কে বটগাছ উপড়ে পড়ায় সোমবার রাতে প্রায় ৩ ঘন্টা যানবাহন চলাচল বন্ধ ছিল। এতে সড়কের উভয়পাশে ৫ শতাধিক যানবাহন আটকা পড়ে। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েন চালক ও যাত্রীরা। খবর পেয়ে দমকল বাহিনীর লোকজন ঘটনাস্থলে পৌঁছে স্থানীয়দের সহায়তা গাছটি সরিয়ে নেওয়ার পর যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়। এছাড়া ঝড়ের কারণে উপজেলার বিভিন্নস্থানে বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন ছিঁড়ে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে পড়ে। এতে গ্রাহকরা চরম দুর্ভোগে পড়েন। মঙ্গলবার বিকেলে উপজেলায় বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হয়েছে বলে পল্লী বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।
জানা গেছে, ২৪ মে সোমবার বিকেলে সাড়ে পাঁচটার দিকে বড়লেখার বিভিন্ন স্থানে প্রবল ঝড় বইতে শুরু করে। সেই সঙ্গে হালকা বৃষ্টিও শুরু হয়। ঝড়ে কুলাউড়া-চান্দগ্রাম আঞ্চলিক মহাসড়েকের বড়লেখা পৌরসভার বারইগ্রাম এলাকায় একটি বড় আকারের বট গাছ সড়কে উপড়ে পড়ে। এতে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে পড়ে। সড়কের উভয়পাশে ৩ শতাধিক যানবাহন আটকা পড়ে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। খবর পেয়ে পৌরসভার মেয়র আবুল ইমাম মো. কামরনান চৌধুরী, স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবুল হাসিম স্বপন ঘটনাস্থলে গিয়ে বিষয়টি দমকল বাহিনীর লোকজনকে জানান। খবর পেয়ে দমকলবাহিনীর লোকজন ঘটনাস্থলে পৌঁছে স্থানীয়দের সহায়তায় রাত ৮টার দিকে সড়ক থেকে গাছটি সরিয়ে নেন। পরে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়। এদিকে ঝড়ে বিভিন্নস্থানে গাছ উপড়ে পড়ে বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইনের তার ছিঁড়ে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়। রাতে পৌরসভার কয়েকটি এলাকায় বিদ্যুৎ এলেও প্রায় ২০ ঘন্টা পর উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হয়।
পৌর কাউন্সিলর আবুল হাসিম স্বপন জানান, সওজ সড়কের উভয়পাশে বেশ কয়েকটি পুরাতন বড়গাছ ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। এগুলো যেকোনো সময় উপড়ে পড়ে বড়ধরণের দুর্ঘটনার আশংকা রয়েছে।
পল্লী বিদ্যুতের ডিজিএম এমাজ উদ্দিন সরদার জানান, ঝড়ে বেশ কয়েকটিস্থানে গাছ পড়ে বিদ্যুতের লাইন ছিঁড়ে গিয়েছিল। এই কারণে রাতে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ ছিল। পল্লীবিদুত্যের লোকজন ছিড়া লাইনগুলো মেরামত করেছেন। পুরো উপজেলায় এখন বিদ্যুৎ সরবারহ স্বাভাবিক হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •