মৌলভীবাজার ট্রেড ইউনিয়ন সংঘের মে দিবস পালন

May 2, 2016, এই সংবাদটি ৫২২ বার পঠিত

স্টাফ রিপোর্টার॥ শোষণহীন সমাজ প্রতিষ্ঠার সংগ্রামকে বেগবান করার দৃপ্ত শপথ আর অঙ্গীকারের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন সংঘ মৌলভীবাজার জেলা শাখা আন্তজাতিক শ্রমিক সংহতি দিবস মহান মে দিবস পালন করে। ১ মে  রোববার দিনব্যাপী গণসঙ্গীত, লালপতাকা র‌্যালী ও আলোচনা সভা মধ্যদিয়ে মহান মে দিবস পালিত হয়। দিনব্যাপী কর্মসূচির ১ম পর্বে মৌলভীবাজার পৌর মিলনায়তনে ট্রেড ইউনিয়ন সংঘের সহযোগী সংগঠন ধ্রবতারা সাংস্কৃতিক সংসদ মৌলভীবাজার জেলা কমিটির পরিবেশনায় গণসঙ্গীত ও স্বরচিত কবিতা আবৃতি পাঠ করা হয়।

DSC06738এরপর বেলা ১২ টার সময় বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন সংঘের নেতৃত্বে শত শত নারী পুরুষ লাল পতাকা, ব্যানার, ফেস্টুন নিয়ে বর্ণাঢ্য র‌্যালী পৌর মিলনায়তন হতে শুরু হয়ে চৌমুহনা, সেন্ট্রাল রোড, কুসুমবাগ পয়েন্ট, বেরীর পার, শাহমোস্তফা রোড, কোর্ট রোড প্রদক্ষিণ করে পৌন মিলনায়তনে শেষ হয়। র‌্যালীতে বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন সংঘের নেতৃত্বে  মৌলভীবাজার জেলা হোটেল শ্রমিক ইউনিয়ন, মৌলভীবাজার জেলা রিকশা শ্রমিক সংঘ, চা-শ্রমিক সংঘ, স’মিল শ্রমিক সংঘ, দর্জি শ্রমিক সংঘ, প্রেস শ্রমিক ইউনিয়নসহ বিভিন্ন বেসিক সংগঠনের নেতাকর্মীরা স্ব স্ব সংগঠনের ব্যানার নিয়ে অংশগ্রহণ করে। র‌্যালী শেষে পৌর মিলনায়তনে বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন সংঘ মৌলভীবাজার জেলা শাখার সভাপতি নুুরুল মোহাইমীনের সভাপতিত্বে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

May-Day-(1)আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় গণতান্ত্রিক ফ্রন্ট-এনডিএফ মৌলভীবাজার জেলা কমিটির সভাপতি কবি শহীদ সাগ্নিক। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কৃষক সংগ্রাম সমিতি মৌলভীবাজার জেলা কমিটির আহবায়ক ডা. অবনী শর্ম্মা, ধ্রবতারা সাংস্কৃতিক সংসদ মৌলভীবাজার জেলা কমিটির সম্পাদক অমলেশ শর্ম্মা  হবিগঞ্জ ইটভাটা শ্রমিক ইউনিয়ন রেজিঃ নং চট্টঃ২৩০৫-এর সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান মাসুম। আলোচনা সভার শুরুতে ট্রেড ইউনিয়ন সংঘ জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক রজত বিশ্বাস æমহান মে দিবসের ঐতিহাসিক তাৎপর্য ও শ্রমিক শ্রেণীর করণীয়” শীর্ষক লিখিত প্রবন্ধ পাঠ করেন। আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন মৌলভীবাজার জেলা হোটেল শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মোস্তফা কামাল, মৌলভীবাজার জেলা রিকশা শ্রমিক সংঘের সভাপতি সোহেল আহমেদ, চা-শ্রমিক সংঘের নেতা বিপ্লব মাদ্রাজী পাশী, স’মিল শ্রমিক সংঘের জেলা সভাপতি আরজান আলী, প্রেস শ্রমিক ইউনিয়নের সহ-সাধারণ সম্পাদক সেলিম আহমেদ, নারী শ্রমিকনেত্রী হাফিচুন নেসা ও আলেছা বেগম,  হোটেল শ্রমিক নেতা শাহিন মিয়া, স’মিল শ্রমিকনেতা শাহজাহান মিয়া ও মোস্তাক মিয়া, রিকশা শ্রমিকনেতা কিসমত মিয়া প্রমূখ। আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন ১৮৮৬ সালে রক্তঝরা সংগ্রামের মধ্য দিয়ে শ্রমিক শ্রেণী সামাজিক স্বীকৃতি এবং বিশ্বব্যাপী ৮ ঘন্টা শ্রম, ৮ ঘন্টা বিশ্রাম ও ৮ ঘন্টা বিনোদনের দাবি প্রতিষ্ঠিত হয়। ৮ ঘন্টা শ্রম দিবস এবং মহান মে দিবসে ছুটি কারো দান নয় বরং শ্রমিক শ্রেণীর রক্তস্নাত পথে অজিত অধিকার। বক্তারা আরো বলেন মে দিবসের সংগ্রাম শুধু মাত্র ৮ ঘন্টা শ্রম দিবসের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়, মে দিবসের সংগ্রাম শ্রমিক শ্রেণীর মজুরি দাসত্ব ব্যবস্থার উচ্ছেদের অবিচ্ছেদ্য সংগ্রমা। তাই আজকে প্রতিক্রিয়াশীল মহলসহ বিভিন্ন মহলের উদ্দেশ্যমূলক মে দিবস পালনের বিপরীতে শ্রমিকশ্রেণীকে মে দিবসের বিপ্লবী চেনতাকে ধারন করে শোষণমুক্ত সমাজ প্রতিষ্ঠার দৃপ্ত শপথ নিয়ে অগ্রসর হতে হবে।

 আলোচনা সভা থেকে বর্তমান বাজারদরের সাথে সংগতিপূর্ণভাবে শ্রমিক-কর্মচারীদের জন্য ন্যূনতম মূল মজুরি ১০ হাজার টাকা ঘোষণা, মহান মে দিবস উপলক্ষে ১ মে সর্বস্তরের শ্রমিকদের স্ববেতনে ছুটি কার্যকর, আইএলও কনভেনশন অনুযায়ী শ্রম আইন প্রণয়ন, ৮ ঘন্টা কাজ, পরিচয় পত্র, নিয়োগপত্র প্রদানসহ শ্রম আইন কার্যকর, গ্যাস-বিদ্যুতের মূল্য বৃদ্ধির পরিকল্পনা বাতিল, রেলের ভাড়া বৃদ্ধি ও বাসাবাড়ি গ্যাস সংযোগ বন্ধের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার, চা-শ্রমিক দৈনিক ৪০০ টাকা মজুরি প্রদান, সমকাজে সমমজুরি, স’মিলসহ বিভিন্ন সেক্টরে সরকার ঘোষিত নি¤œতম কার্যকর, হোটেল শ্রমিক রিয়াদ হত্যাকারী খুনী আরিফুল ইসলাম সোহেলকে অবিলম্বে গ্রেফতার দাবি জানানো  হয়।

 

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •