শূন্য ওয়ার্ডে উপ-নির্বাচান: চার প্রার্থীর বিরামহীন প্রচারণায় গ্রাম জুড়ে উত্তাপ!

October 16, 2020, এই সংবাদটি ১৭৫ বার পঠিত

স্টাফ রিপোর্টার॥ ২০ আক্টোবর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে মৌলভীবাজার সদর উপজেলার ১১নং মোস্তফাপুর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের উপনির্বাচন। একই দিনে অনুষ্ঠিত হবে মৌলভীবাজার জেলা পরিষদের উপনির্বাচনও। এরই মধ্যে সুষ্টু নির্বাচনের লক্ষে সকল প্রকার প্রস্তুতি শুরু করেছে নির্বাচন কমিশন। আর মাত্র চারদিন পর মঙ্গলবার সকাল ৯টা থেকে শুরু হবে শুন্য ওয়ার্ডের বহু প্রতিক্ষিত এই নির্বাচন। নির্বাচন ঘীরে মৌলভীবাজার সদর উপজেলার ১১নং মোস্তফাপুর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের জগন্নাথপুর গ্রামে এখন পুরোদমে বিরাজ করছে উৎসবের আমেজ। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত সদস্যপদে বিরামহীন প্রচারনায় ব্যস্থ ভোট যুদ্ধে অংশ নেয়া চার প্রার্থী। প্রায় সাড়ে ৩হাজার ভোটার অধ্যুসিত এই ওয়ার্ডের নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতায় অংশ নেয়া প্রার্থীরা হলেন, তালা প্রতীকে মো. শাহ হেলাল (শাহেল) ফুটবল প্রতীকে মো. সাইফুর রহমান, মোরগ প্রতীকে মো. বাবুল মিয়া ও সর্বকনিষ্ঠ প্রার্থী আপেল প্রতীকে মো. সুহেল আহমেদ।

সকাল থেকে রাত পর্যন্ত নির্বাচন ঘীরে পুরো গ্রামের প্রতিটি চায়ের দোকানের সর্বত্র এখন আলোচনা চলছে প্রতিদ্বন্দ্বীতাকারী প্রার্থীদের সমর্থক ও সাধারণ ভোটারদের মাঝে। তাদের প্রশ্ন কে হবেন আগামী ২০২১ সালে অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনের আগমুহুর্ত পর্যন্ত এই ওয়ার্ডের সাধারণ ভোটারদের ভোটে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি? তবে এ প্রশ্নের সঠিক জবাব পেতে আরো অপেক্ষা করতে চারদিন। নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতাকারী প্রার্থীরা অধিকাংশই বয়সে তরুণ হওয়ায় তাদের নিয়ে সাধারণ ভোটারদের মাঝে কৌতুহলও বেশি। তবে সাধারণ ভোটারদের সাথে কথা বলে জানা যায়,তাদের অধিকাংশের ধারণা, নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতাকারী চার প্রার্থীর মধ্যে মূলত তালা প্রতীকে মো. শাহ হেলাল (শাহেল) ও ফুটবল প্রতীকে মো. সাইফুর রহমান এই দুই তরুণ প্রার্থীর মধ্যেই হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের সম্ভাবনা বেশি রয়েছে। নির্বাচনের সময় যত ঘনিয়ে আসছে তত প্রার্থীরাও নানা উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ভোটারদের মন গলানোর পাশাপাশি গণসংযোগ ও প্রচার প্রচারণায় ব্যাস্থ সময় কাটিয়ে সময় পার করছেন।

নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতাকারী তরুণ প্রার্থী শাহ হেলাল শাহেল বলেন, আমি দীর্ঘদিন যাবত এলাকার উন্নয়নে সক্রিয়ভাবে কাজ করে যাচ্ছি,সুতরাং নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হলে তাতে আমি বিপুল ভোটে জয়ী হবো,তবে প্রশাসনকে শান্তিপূর্ণ নির্বাচন উপহার দিতে আরো শক্ত অবস্থান গ্রহণ করতে হবে বলে মনে করেন এই প্রার্থী। নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতাকারী চার প্রার্থীদের মধ্যে সবচেয়ে বয়স্ক প্রার্থী মো. বাবুল মিয়া, প্রতীক বরাদ্ধের পর থেকে বিরামহীন প্রচারনায় ব্যস্থ এ প্রার্থীর সাথে আলাপকালে তিনি বলেন, আমি চাই কোন ধরণের ঝামেলা ছাড়াই যেন শান্তিপূর্ণ পরিবেশে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়, আর জয়ের ব্যাপারে আমি শতভাগ আশাবাদি।

এদিকে জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, আগামী ১৮ অক্টোবর  রবিবার রাত ৮টা পর্যন্ত শেষ হবে মৌলভীবাজার সদর উপজেলার ১১নং মোস্তফাপুর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের এই উপনির্বাচনে অংশে নেয়া প্রার্থীদের সর্বশেষ প্রচার প্রচারণা। জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. আলমগীর হোসেনের সাথে মুঠোফোনে আলাপকালে তিনি জানান, অবাধ ও সুষ্টু নির্বাচনের লক্ষে আমরা সব ধরণের প্রস্তুতি গ্রহণ করেছি।

উল্লেখ্য: ২০১৬ সালের ৪ জুন অনুষ্ঠিত মৌলভীবাজার সদর উপজেলার মোস্তফাপুর ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে ৬নং ওয়ার্ডে তৎকালিন ইউপি সদস্য ইমরান আহমদকে টিউবওয়েল প্রতিকে পরাজিত করে আপেল মার্কা প্রতিকে নির্বাচনে অংশ নিয়ে প্রবীণ মুরব্বী ওয়াছির মিয়া বিজয়ী হন। চলতি বছরের ৬ মে মোঃ ওয়াছির মিয়া গুরুতর অসুস্থ হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেলে ওই ওয়ার্ড শূন্য হয়। এর পরই ওই ওয়ার্ডের সদস্য পদে উপ-নির্বাচনের জন্য চলতি মাসের আগামী ২০ অক্টোবর উপ-নির্বাচনের দিন নির্ধারণ করে নির্বাচন কমিশন। গত ১৪ সেপ্টেম্বর নির্বাচন কমিশন সচিবালয় থেকে এ সংক্রান্ত একটি আদেশ জারি করা হয়েছে। নির্বাচন পরিচালনা-২ উপসচিব মোঃ আতিয়ার রহমান স্বাক্ষরিত প্যাডে এ নির্দেশনা জারি করা হয়।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •