শ্রীমঙ্গল অকশনে এবার নতুন চা হারবাল হানি গ্রীণ টি

August 22, 2021, এই সংবাদটি ৮৪ বার পঠিত

বিকুল চক্রবতী॥ শ্রীমঙ্গলে দেশের ২য় চা নিলাম কেন্দ্রে প্রথমবারের মতো উঠেছে হারবাল হানি গ্রীণ টি। এ চা উৎপাদন করেছে বৃন্দাবনপুর চা বাগান। যার প্রতিকেজি বিক্রি হয়েছে ২১শত টাকা দরে। যা এই অকশনের সর্বোচ্চ দর। এর আগে গত জুন মাসে শাহবাজপুর চা বাগান দেশের বাজারে প্রথম বাজারজাত করে হানি গ্রীণ টি।
বাংলাদেশে নতুন আবিস্কৃত এ চা উৎপাদকারী বৃন্দাবনপুর চা বাগানের ব্যবস্থাপক মো: নাসির উদ্দিন খান জানান, সৌখিন চা পায়ীদের জন্য তারা বিশেষ এ চা তৈরী করেন। তিনি জানান, গ্রীণটির সাথে উন্নত জাতের যষ্টিমধুর ডাল সংগ্রহ করে ভালো করে ওয়াস করে তা কুচি কুচি করে মিশ্রণ করে দিয়েছেন। এটি পানের সময় চায়ের সাথে যষ্টিমধুর ফ্লেভার পাওয়া যায়। যারা চিনি দিয়ে পান করেন তাদের চিনি কিছুটা কম দিলে চলবে। এর আগে তিনি ইয়োলো টি ও হোয়াইট টি উৎপাদন করে বাজারের সর্বোচ্চ দরে বিক্রি করেন। তিনি জানান, এর উপকারিতা রয়েছে অনেক। এটি মুলত গাছের শেকড়। যা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসায় ব্যপক হারে ব্যবহৃত হয়।
শ্রীমঙ্গল সবুজবাগের বাসিন্দা শক্তি ঔষধালয়ের অবসর প্রাপ্ত আয়োর্বেদিক চিকিৎক রবীন্দ্র চক্রবর্তী অরফে রবীন্দ্র কবিরাজ জানান, যষ্টিমধুর অনেক উপকারীতা রয়েছে । এটি পাকস্থলীর এপিথেলিয়াল কোষসমূহ শক্তিশালী করে গ্যাস্ট্রিক আলসার, পেপটিক আলসার নিরাময় করে। যষ্টিমধু তরল আকারে কফ বের করে দেয় এবং কাশি ভালো করতে পারে। এছাড়া ব্রঙ্কাইটিস, টনসিলাইটিস ও কণ্ঠনালীর প্রদাহ দূর করতেও সাহায্য করে।
শ্রীমঙ্গল ব্রোকাস লিমিটেডের পরিচালক হেলাল চৌধুরী জানান, বুধবার শ্রীমঙ্গল খান টাওয়ারে অকশন হাউজে সকাল ৮টা থেকে শুরু হয় চলমান মৌসুমের ৮ম নিলাম। যেখানে বাহুবলের বিন্দাবন পুর চা বাগান থেকে একটি বিশেষ চা হারবাল হানি গ্রীণ টি অকশনে তুলে। যা শ্রীমঙ্গল ষ্টেশন রোডের ব্যবসায়ী পপুলার টির শহীদ আলম প্রতিকেজি ২১শত টাকা দরে কিনে নেন। তিনি জানান, এ অকশনে এটাই সর্বোচ্চ দর। এ ছাড়াও অকশনে সর্বন্নিম দর ছিল ব্ল্যাকটি ১৫৩ টাকা।
শ্রীমঙ্গল টি প্ল্যান্টার অ্যান্ড ট্রেডার্স এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের সাধারণ সম্পাদক শিক্ষক জহর তরপদার জানান, ২০২১- ২০২২ অর্থবছরের ৮ম নিলামে বুধবার মোট চা উঠেছে ২লাখ ১৯ হাজার কেজি। এর মধ্যে শ্রীমঙ্গল ব্রোকাস লিমিটেডের মাধ্যমে আসে ১ লক্ষ ১৪ হাজার কেজি, রুপসী বাংলা ব্রোকাস এর মাধ্যমে ৫৮ হাজার কেজি ও জালালাবাদ টি ব্রোকাস্ এর মাধ্যমে ৪৭ হাজার কেজি। যার প্রায় ৫০% চা বিক্রি হয়।
অন্যদিকে গত জুন মাসে মৌলভীবাজার শাহবাজপুর চা বাগান তৈরী করে হানি টি। এটি বিটিটু চায়ের একটি পাতা ও কুঁড়ির সাথে ন্যাচারাল মধু মিশিয়ে তৈরী করা হয়। যা পান করলে মধু ও চা দুটি ফ্লেভার পাওয়া যায়। যা বিক্রি হয়েছিলো ৩ হাজার ১শত টাকা কেজি দরে।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •