আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ৩ ঘন্টা অবরুদ্ধ কুলাউড়ায় হরতাল পালনে ১৮ দল মাঠে সক্রিয়

October 27, 2013, এই সংবাদটি ১৯৬ বার পঠিত

১৮ দলের ডাকা টানা ৬০ ঘন্টার হরতালে প্রথম দিনে শান্তিপূর্ণ ও সতস্ফূর্ত ভাবে কুলাউড়ায় হরতাল পালিত হয়েছে। সকাল ৬টা থেকে শহরের স্টেশন চৌমুনী, বাসস্ট্যান্ড, দক্ষিণবাজার, আউটার রেল গেইট, ও শহরের গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে ছাড়াও উপজেলার ব্রাহ্মণবাজার, ভাটেরা বাজার, বরমচালবাজার, রবিরবাজার, নয়াবাজারেও পিকেটিং করে ১৮ দলের কর্মীরা। এ সময় বিএনপি, জামায়াত, ছাত্রশিবির, ছাত্রদল সহ ১৮দলের শরিক দলের কর্মীরা রাস্তা অবরোধ করে শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে মিছিল ও সমাবেশ করে। হরতালের নেতৃত্ব দেন বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা এড. আবেদ রাজা, (একাংশের) উপজেলা সভাপতি পৌর মেয়র কামাল উদ্দিন আহমদ জুনেদ, উপজেলা জামায়াতের আমীর মাস্টার আব্দুল বারী, সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক আব্দুল মুন্তাজিম, (একাংশের) সাধারণ সম্পাদক এম এ মজিদ, পৌর বিএনপির (একাংশের) সভাপতি শামিম আহমেদ চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মুজিবুল আলম সুহেল, সহ সভাপতি আব্দুল কায়ুম চৌধরীসহ উপস্থিত ছিলেন ১৮ দল ও অংঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। অপর দিকে বিএনপির (অপরাংশ) ১৮ দলীয় জোটের পক্ষে সাবেক এমপি এমএম শাহীনের নেতৃত্বে সকাল ৬টা থেকে দক্ষিণবাজার, উপজেলা মোড়, জুড়ী বাসস্ট্যান্ড মৌলভীবাজার বাসস্ট্যান্ড, শহরের গুরুত্বপূর্ন স্থান গুলো তাদের দখলে ছিল। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, সিনিয়র সহ সভাপতি ও প্যানেল মেয়র জয়নাল আবেদিন বাচ্চু, (একাংশের) সাধারণ সম্পাদক রেদওয়ান খান, উপজেলা বিএনপির পৌর বিএনপির সভাপতি মুহিবুর রহমান মলাই, সাধারন সাম্পাদক আব্দুল গফ্ফার চৌধরী,উপজেলা সেচ্ছাসেবকদলের আহব্বায়ক সারওয়ার আলম বেলালসহ বিএনপি ও তার অঙ্গ ও সহযোগী সংঙ্গঠনের নেতৃবৃন্দ। বিএনপির দু’গ্রুপের হরতাল সমর্থনে মিছিল বের করলে বিরোধীদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়। এক পর্যায়ে বিএনপির দু গ্রুপ এক হয়ে আওয়ামীলীগ অফিসের সামনে এসে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক সহ প্রায় তিন ঘন্টা অফিসে নেতাকর্মীদের নিয়ে অবরুদ্ধ ছিলেন।

কুলাউড়ায় ১৮ দলীয় জোটের বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্টিত

হরতালের সমর্থনে কুলাউড়ায় ১৮ দলীয় জোটের বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্টিত হয়েছে। গতকাল ২৭ অক্টোবর রোববার বিকেলে এক বিশাল বিক্ষোভ মিছিল চৌমুহনী থেকে বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে চৌমুহনায় এসে পথসভার মাধ্যমে শেষ হয়। মিছিলে নেতৃত্ব দেন বিগত সংসদ নির্বাচনে জোট প্রার্থী কারা নির্যাতিত বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা এডভোকেট আবেদ রাজা, উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও পৌর মেয়র কামাল আহমদ জুনেদ, জামায়াত ইসলামের কুলাউড়া আমীর মাষ্টার আব্দুল বারী, পৌর বিএনপির সভাপতি কাউন্সিলর শামিম আহমদ চৌধুরী, জেলা বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি অধ্যাপক আব্দুল হান্নান, উপজেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক এম এ মজিদ, জামাতের উপজেলা সাধারন সম্পাদক আব্দুল মুন্তকিম ও ১৮ দলীয় জোটের অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ। মিছিল শেষে পথসভায় বক্তারা বলেন, বিএনপিনেতা হাজী আব্দুস সামাদকে আওয়ামীলীগের সন্ত্রাসীরা আহত করার তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানান এবং কুলাউড়ায় অশ্লীল ভাষায় মিছিল দেয়ায় তীব্র নিন্দা জানানো হয়।
১৮ দলের ডাকা টানা ৬০ ঘন্টার হরতালে প্রথম দিনে শান্তিপূর্ণ ও সতস্ফূর্ত ভাবে কুলাউড়ায় হরতাল পালিত হয়েছে। সকাল ৬টা থেকে শহরের স্টেশন চৌমুনী, বাসস্ট্যান্ড, দক্ষিণবাজার, আউটার রেল গেইট, ও শহরের গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে ছাড়াও উপজেলার ব্রাহ্মণবাজার, ভাটেরা বাজার, বরমচালবাজার, রবিরবাজার, নয়াবাজারেও পিকেটিং করে ১৮ দলের কর্মীরা। এ সময় বিএনপি, জামায়াত, ছাত্রশিবির, ছাত্রদল সহ ১৮দলের শরিক দলের কর্মীরা রাস্তা অবরোধ করে শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে মিছিল ও সমাবেশ করে। হরতালের নেতৃত্ব দেন বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা এড. আবেদ রাজা, (একাংশের) উপজেলা সভাপতি পৌর মেয়র কামাল উদ্দিন আহমদ জুনেদ, উপজেলা জামায়াতের আমীর মাস্টার আব্দুল বারী, সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক আব্দুল মুন্তাজিম, (একাংশের) সাধারণ সম্পাদক এম এ মজিদ, পৌর বিএনপির (একাংশের) সভাপতি শামিম আহমেদ চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মুজিবুল আলম সুহেল, সহ সভাপতি আব্দুল কায়ুম চৌধরীসহ উপস্থিত ছিলেন ১৮ দল ও অংঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। অপর দিকে বিএনপির (অপরাংশ) ১৮ দলীয় জোটের পক্ষে সাবেক এমপি এমএম শাহীনের নেতৃত্বে সকাল ৬টা থেকে দক্ষিণবাজার, উপজেলা মোড়, জুড়ী বাসস্ট্যান্ড মৌলভীবাজার বাসস্ট্যান্ড, শহরের গুরুত্বপূর্ন স্থান গুলো তাদের দখলে ছিল। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, সিনিয়র সহ সভাপতি ও প্যানেল মেয়র জয়নাল আবেদিন বাচ্চু, (একাংশের) সাধারণ সম্পাদক রেদওয়ান খান, উপজেলা বিএনপির পৌর বিএনপির সভাপতি মুহিবুর রহমান মলাই, সাধারন সাম্পাদক আব্দুল গফ্ফার চৌধরী,উপজেলা সেচ্ছাসেবকদলের আহব্বায়ক সারওয়ার আলম বেলালসহ বিএনপি ও তার অঙ্গ ও সহযোগী সংঙ্গঠনের নেতৃবৃন্দ। বিএনপির দু’গ্রুপের হরতাল সমর্থনে মিছিল বের করলে বিরোধীদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়। এক পর্যায়ে বিএনপির দু গ্রুপ এক হয়ে আওয়ামীলীগ অফিসের সামনে এসে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক সহ প্রায় তিন ঘন্টা অফিসে নেতাকর্মীদের নিয়ে অবরুদ্ধ ছিলেন।

কুলাউড়ায় ১৮ দলীয় জোটের বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্টিত

হরতালের সমর্থনে কুলাউড়ায় ১৮ দলীয় জোটের বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্টিত হয়েছে। গতকাল ২৭ অক্টোবর রোববার বিকেলে এক বিশাল বিক্ষোভ মিছিল চৌমুহনী থেকে বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে চৌমুহনায় এসে পথসভার মাধ্যমে শেষ হয়। মিছিলে নেতৃত্ব দেন বিগত সংসদ নির্বাচনে জোট প্রার্থী কারা নির্যাতিত বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা এডভোকেট আবেদ রাজা, উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও পৌর মেয়র কামাল আহমদ জুনেদ, জামায়াত ইসলামের কুলাউড়া আমীর মাষ্টার আব্দুল বারী, পৌর বিএনপির সভাপতি কাউন্সিলর শামিম আহমদ চৌধুরী, জেলা বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি অধ্যাপক আব্দুল হান্নান, উপজেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক এম এ মজিদ, জামাতের উপজেলা সাধারন সম্পাদক আব্দুল মুন্তকিম ও ১৮ দলীয় জোটের অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ। মিছিল শেষে পথসভায় বক্তারা বলেন, বিএনপিনেতা হাজী আব্দুস সামাদকে আওয়ামীলীগের সন্ত্রাসীরা আহত করার তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানান এবং কুলাউড়ায় অশ্লীল ভাষায় মিছিল দেয়ায় তীব্র নিন্দা জানানো হয়। কুলাউড়া অফিস :

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •