শীতের তীব্রতা বৃদ্ধি : দেশের সর্বনিন্ম তাপমাত্রা মৌলভীবাজারে ৮.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস

January 6, 2014, এই সংবাদটি ১৪২ বার পঠিত

মৌলভীবাজারের ঘন কুয়াশার সাথে সাথে ঠান্ডা হালকা বাতাসের কারণে শীতের তীব্রতা বৃদ্ধি পেয়েছে। শীতের তীব্রতার কারনে জনজীবন স্তবির হয়ে পড়েছে। সোমবার সারা দেশের মধ্যে সর্বনিন্ম তাপমাত্রা ৮.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে মৌলভীবাজার জেলায়। ৬ জানুয়ারী সোমবার সকাল থেকে সূর্যের দেখা মেলেনি। শীতের তীব্রতার জন্য দিনের বেলায় ও অফিস-আদালত, হাট-বাজারে লোক সমাগম কম ছিল। বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাহির হতে দেখা যায়নি লোকজনকে। শ্রীমঙ্গল আবহাওয়া অফিসের উচ্চ পর্যবেক্ষক মোঃ হারুনুর রশীদ জানান, সকাল সাড়ে ৬ টায় দেশের মধ্যে সর্বনি¤œ তাপমাত্রা মৌলভীবাজার জেলায় রেকর্ড করা হয়েছে ৮.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তীব্র শীতের কারণে গ্রামাঞ্চলে অনেকেই খড়কুট জ্বালিয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা করছেন। জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা যায়, শীতের তীব্রতার কারনে ডায়রিয়া ও নিমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে বেশীর ভাগ শিশু হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। জেলায় অন্যান্ন উপজেলার সর্বত্র স্বর্দি, কাশি, জ্বর, শ্বাসকষ্ট রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। শীতবস্ত্রের অভাবে চা শ্রমিক সহ নি¤œ আয়ের মানুষের ভোগান্তি বাড়ছে।
মৌলভীবাজারের ঘন কুয়াশার সাথে সাথে ঠান্ডা হালকা বাতাসের কারণে শীতের তীব্রতা বৃদ্ধি পেয়েছে। শীতের তীব্রতার কারনে জনজীবন স্তবির হয়ে পড়েছে। সোমবার সারা দেশের মধ্যে সর্বনিন্ম তাপমাত্রা ৮.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে মৌলভীবাজার জেলায়। ৬ জানুয়ারী সোমবার সকাল থেকে সূর্যের দেখা মেলেনি। শীতের তীব্রতার জন্য দিনের বেলায় ও অফিস-আদালত, হাট-বাজারে লোক সমাগম কম ছিল। বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাহির হতে দেখা যায়নি লোকজনকে। শ্রীমঙ্গল আবহাওয়া অফিসের উচ্চ পর্যবেক্ষক মোঃ হারুনুর রশীদ জানান, সকাল সাড়ে ৬ টায় দেশের মধ্যে সর্বনি¤œ তাপমাত্রা মৌলভীবাজার জেলায় রেকর্ড করা হয়েছে ৮.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তীব্র শীতের কারণে গ্রামাঞ্চলে অনেকেই খড়কুট জ্বালিয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা করছেন। জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা যায়, শীতের তীব্রতার কারনে ডায়রিয়া ও নিমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে বেশীর ভাগ শিশু হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। জেলায় অন্যান্ন উপজেলার সর্বত্র স্বর্দি, কাশি, জ্বর, শ্বাসকষ্ট রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। শীতবস্ত্রের অভাবে চা শ্রমিক সহ নি¤œ আয়ের মানুষের ভোগান্তি বাড়ছে। à¦¸à§à¦Ÿà¦¾à¦« রিপোর্টার॥

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •