কুলাউড়ায় প্রিসাইডিং অফিসার রেজালসিট জমা না দিয়ে বাড়ীতে নিয়ে চলে যান

January 7, 2014, এই সংবাদটি ২১৯ বার পঠিত

কুলাউড়ায় এক প্রিসাইডিং অফিসার রেজালসিট উপজেলা কন্ট্রোলরুমে জমা না দিয়ে তার নিজ বাড়ীতে নিয়ে যান। জানা যায়, ব্রাহ্মনবাজার ইউনিয়নের শ্রীপুর উচ্চ বিদ্যালয় সেন্টারের প্রিসাইডিং অফিসার ও বরমচাল ফুলেরতল বাজার শাখার কৃষি ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার সমরেন্দ্র বর্ধণ ভোটের রেজাল্টসিট উপজেলা কন্ট্রোলরুমে জমা না দিয়ে তার নিজ ভাটেরা ইউনিয়নের ইটখলাগ্রামের বাড়ীতে চলে যান। ৯৩ টি সেন্টারের মধ্যে ৯২ সেন্টারের ফলাফল ঘোষনা শেষ হয়। তখন শ্রীপুর উচ্চ বিদ্যালয় সেন্টারের রেজাল্টসিট নিয়ে আসতে দেরি হলে কন্টোলরুম থেকে সেই প্রিসাইডিং অফিসারের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন আমিত রেজাল্টসিট জমা দিয়ে এসেছি। তখন রেজাল্টসিট খুজাখুজি শুরু হয় না পেয়ে সহকারী রিটানিং অফিসার ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সামছুল ইসলাম প্রিসাইডিং অফিসার সমরেন্দ্র বর্ধণকে তার মুঠোফোনে ফোন দিয়ে জানতে চান তিনি কোথায় আছেন তার সেন্টারের রেজাল্টসিট কি করেছেন। তিনি উত্তরে বলেন স্যার আপনার সাথে আসল কথা আছে আগামীকাল (সোমবার) এসে কথা বলব। আমি তো রেজাল্টসিট বাড়ীতে নিয়ে এসেছি। এখন খাওয়া দাওয়া করে ঘুমিয়ে পড়েছি। আগামীকাল (সোমবার) অফিসে আসব। এসময় একজন ম্যাজিস্টেটসহ পুলিশপোর্স পাঠিয়ে প্রিসাইডিং অফিসার সমরেন্দ্র বর্ধণকে তার গ্রামের উপজেলার ভাটেরা ইউনিয়নের ইটখলাগ্রামের বাড়ী থেকে নিয়ে আসা হয়।
কুলাউড়ায় এক প্রিসাইডিং অফিসার রেজালসিট উপজেলা কন্ট্রোলরুমে জমা না দিয়ে তার নিজ বাড়ীতে নিয়ে যান। জানা যায়, ব্রাহ্মনবাজার ইউনিয়নের শ্রীপুর উচ্চ বিদ্যালয় সেন্টারের প্রিসাইডিং অফিসার ও বরমচাল ফুলেরতল বাজার শাখার কৃষি ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার সমরেন্দ্র বর্ধণ ভোটের রেজাল্টসিট উপজেলা কন্ট্রোলরুমে জমা না দিয়ে তার নিজ ভাটেরা ইউনিয়নের ইটখলাগ্রামের বাড়ীতে চলে যান। ৯৩ টি সেন্টারের মধ্যে ৯২ সেন্টারের ফলাফল ঘোষনা শেষ হয়। তখন শ্রীপুর উচ্চ বিদ্যালয় সেন্টারের রেজাল্টসিট নিয়ে আসতে দেরি হলে কন্টোলরুম থেকে সেই প্রিসাইডিং অফিসারের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন আমিত রেজাল্টসিট জমা দিয়ে এসেছি। তখন রেজাল্টসিট খুজাখুজি শুরু হয় না পেয়ে সহকারী রিটানিং অফিসার ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সামছুল ইসলাম প্রিসাইডিং অফিসার সমরেন্দ্র বর্ধণকে তার মুঠোফোনে ফোন দিয়ে জানতে চান তিনি কোথায় আছেন তার সেন্টারের রেজাল্টসিট কি করেছেন। তিনি উত্তরে বলেন স্যার আপনার সাথে আসল কথা আছে আগামীকাল (সোমবার) এসে কথা বলব। আমি তো রেজাল্টসিট বাড়ীতে নিয়ে এসেছি। এখন খাওয়া দাওয়া করে ঘুমিয়ে পড়েছি। আগামীকাল (সোমবার) অফিসে আসব। এসময় একজন ম্যাজিস্টেটসহ পুলিশপোর্স পাঠিয়ে প্রিসাইডিং অফিসার সমরেন্দ্র বর্ধণকে তার গ্রামের উপজেলার ভাটেরা ইউনিয়নের ইটখলাগ্রামের বাড়ী থেকে নিয়ে আসা হয়। à¦•à§à¦²à¦¾à¦‰à§œà¦¾ অফিস॥

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •