কুলাউড়ায় নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনের দায়ে ১৩ প্রার্থীকে ৫৭ হাজার টাকা জরিমানা

November 22, 2021, এই সংবাদটি ৪৪ বার পঠিত

কুলাউড়া প্রতিনিধি॥ মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনী আচরণ বিধি প্রতিপালনে কঠোর অবস্থানে রয়েছে উপজেলা প্রশাসন।
২১ নভেম্বর রোববার রাত ৮টার পর উপজেলায় রাউৎগাঁও, পৃথিমপাশা ও কর্মধা ইউনিয়নে নির্বাচন আচরণবিধি তদারকিতে মোবাইল কোর্ট পরিচালিত হয়।
এসময় আচরণবিধি লঙ্ঘনের দায়ে ১৩ প্রার্থীকে প্রার্থীকে ৫৭ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। অভিযান পরিচালনা করেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সজল মোল্লা ও জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রফিকুল ইসলাম। এসময় কুলাউড়া থানা পুলিশের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।
নির্বাচন আচরণবিধি (দেয়ালে লিফলেট ও পোস্টার লাগানো, ডাবল মাইক ব্যবহার, নির্বাচনী কার্যালয়ে গেইট তৈরি ) লঙ্ঘনের দায়ে রাউৎগাঁও ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুল জলিল জামাল কে ৫ হাজার টাকা, নৌকার প্রার্থী আকবর আলী সোহাগকে ৫ হাজার টাকা, স্বতন্ত্র প্রার্থী সৈয়দ ইকবাল ছালামকে ৫ হাজার টাকা, একজন ইউপি সদস্য ১ হাজার টাকা, পৃথিমপাশা ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থী আব্দুল মন্নাফ কে ৫ হাজার টাকা,স্বতন্ত্র প্রার্থী জিমিউর রহমান ফুলকে ৫ হাজার টাকা, একজন ইউপি সদস্য ১ হাজার টাকা, কর্মধা ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান এম এ রহমান আতিককে ৫ হাজার টাকা, আ’লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী মুহিবুল ইসলাম আজাদকে ৫ হাজার টাকা, স্বতন্ত্র প্রার্থী মো: আব্দুস সালামকে ৫ হাজার টাকা, একজন ইউপি সদস্য ১ হাজার টাকা জরিমানা করে আদায় করা হয়।
এ বিষয়ে সহকারী কমিশনার (ভূমি) সজল মোল্লা বলেন, জেলা প্রশাসক স্যার ও ইউএনও স্যারের নির্দেশে নির্বাচনী আচরণ বিধি প্রতিপালনে নিয়মিত মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। এছাড়া আচরণবিধি মানতে প্রার্থীদের কঠোরভাবে সতর্ক করা হচ্ছে। যারা বিধি ভঙ্গ করছেন তাদের বিরুদ্ধে জরিমানা করা হচ্ছে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এটিএম ফরহাদ চৌধুরী বলেন, নির্বাচনী আচরণবিধি মানতে প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দের সময় নির্দেশনা দেয়া হয়েছিল। কিন্ত অনেক প্রার্থী সেই নির্দেশনা না মেনে আচরনবিধি লঙ্ঘন করছেন। নির্বাচনের আগ মুহুর্ত পর্যন্ত কঠোর ভাবে বিধি প্রতিপালনে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •