পরিশ্রম করে রাহাত যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছেন

October 2, 2021, এই সংবাদটি ১১৩ বার পঠিত

কুলাউড়া প্রতিনিধি॥ তালহাতুল হক চৌধুরী রাহাত হলেন একজন মেধাবী ও যোগ্যতাসম্পন্ন ব্যক্তি। ছোটবেলা থেকেই তিনি কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে জীবনের প্রতিটি পরীক্ষায় সফলতার সাথে উত্তীর্ণ হয়েছেন। কলেজ জীবনে পড়াকালীন সময় থেকে তাঁর একটা স্বপ্ন ছিল বড় একটি বেসরকারী কোম্পানিতে চাকুরী করার। সেই চিন্তা আজ বাস্তবে রুপ দিয়েছে তাঁর যোগ্যতা ও দক্ষতার কারণে। বর্তমানে সে ডমিনোজ পিজ্জা বাংলাদেশ এর হেড অফ অপারেশনস এন্ড ট্রেনিং পদে দায়িত্বে রয়েছেন।

২০১৮ সালে রাহাত এই কোম্পানিতে যোগদান করে। এরপর থেকে বিশ্বের ৫টি দেশে (আমেরিকা, থাইল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়া, শ্রীলংকা ও ভারত) ট্রেনিং এবং বিভিন্ন কনফারেন্সে যোগদান করেন। যার অক্লান্ত পরিশ্রম ও কর্মদক্ষতায় কোম্পানীটি অত্যন্ত সুনামের সাথে এই দেশে ব্যবসা পরিচালনা করে যাচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াকালীন অবস্থায় পার্টটাইম চাকরী দিয়ে শুরু করা রাহাত চাকুরি জীবন শুরু করেন পিজ্জা হাটে। চট্টগ্রাম থেকে ভার্সিটি ক্লাস এর পাশাপাশি কাজও করতে থাকেন। একপর্যায়ে ভালো কাজের ফলাফলে তাকে আউটলেট ম্যানেজার হিসেবে পদোন্নতি প্রদান করা হয়। এবং সিলেট পিজ্জা হাটে দায়িত্ব নেন। পিজ্জা হাটের ভালো ব্যবসার কারণে তাকে ঢাকায় বাংলাদেশ পিজ্জা হাট দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম বড় আউটলেট এর ব্যবস্থাপকের দায়িত্ব দেয়া হয়। সেখানে অত্যন্ত সুনামের সাথে কাজ করার কারণে তাকে বছরের সেরা পারফরর্মারের এ্যাওয়ার্ড দেয়া হয়। এরপর ডমিনোজ বাংলাদেশ ব্যবসা করতে আসলে রাহাত ডমিনোজের চাকুরীর অফার পেয়ে তাদের সাথে যোগদান করেন। রাহাত চট্টগ্রাম সাউর্দান বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ থেকে ব্যাচেলর অফ বিজনেস (মার্কেটিং) এডমিনিস্ট্রেশন ডিগ্রি অর্জন করেন। এর আগে রাহাত কুলাউড়া নবীন চন্দ্র সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি ও কুলাউড়া সরকারি কলেজ থেকে কৃতিত্বের সহিত এইচএসসি পাশ করেন।

রাহাতের গ্রামের বাড়ি কুলাউড়া উপজেলার সদর ইউনিয়নের গাজীপুর গ্রামে। তাঁর পিতা মৃত আনোয়ারুল হক চৌধুরী ও মাতা গৃহিনী রেহেনা আক্তার। রাহাতের ছোটভাই আরফাতুল হক রিফাত চৌধুরী চট্টগ্রাম কলেজ থেকে মাস্টার্স এবং চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমবিএ ইন এইচ এম আরে অধ্যয়নরত। ছোটবোন আনতারা সাবিহা চৌধুরী কুলাউড়া ইয়াকুব তাজুল মহিলা ডিগ্রি কলেজ থেকে এইচএসসি সম্পন্ন করেন।

রাহাতের ঘনিষ্ঠ বন্ধু গণমাধ্যমকর্মী মাহফুজ শাকিল বলেন, রাহাত শৈশব থেকেই অত্যন্ত বিনয়ী, পরিশ্রমী ও মেধাবী ছিল। যার কারণে আজকে সে ডমিনোজ পিজ্জা বাংলাদেশের মতো একটি বড় প্রতিষ্ঠানে নিজের সেরাটা নিংড়ে দিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। রাহাত আমাদের বন্ধুমহলের মাঝে এক গৌরবের প্রতীক। কলেজে পড়াকালীন সময়ের অনেক বন্ধু প্রবাসে পাড়ি জমালেও রাহাত কিন্তু তাঁর মেধা ও দক্ষতার জোরে দেশে অত্যন্ত সুনামের সাথে চাকুরী করছে।

তালহাতুল হক চৌধুরী রাহাত জানালেন, সফলতা অর্জনে শুধু মেধা নয়, প্রয়োজন ধৈর্য্য ও অধ্যবসায়। সেই বিষয়টি মাথায় রেখে আমি আমি কাজ করে যাচ্ছি। এছাড়া আমার এ সফলতায় আমার বাবা-মায়ের অনুপ্রেরণা বেশি কাজ করেছে। এছাড়া কর্মক্ষেত্রে এগিয়ে যাবার জন্য নিজের জীবনের গল্পের ওপর পূর্ণ আস্থা আর বিশ্বাস, আত্মপ্রতিফলন, নতুন সুযোগ ও অভিজ্ঞতার সন্ধান মানুষকে সাফল্যের পথে অনেক দূর এগিয়ে নিয়ে যায়।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •