ইউনিয়ন নির্বাচন (৫ম দফা) কমলগঞ্জে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে হামলা-পাল্টা হামলা ॥ আহত-২০

May 7, 2016, এই সংবাদটি ১৫৯ বার পঠিত

প্রনীত রঞ্জন দেবনাথ॥ কমলগঞ্জ উপজেলার সীমান্তবর্তী ৯নং ইসলামপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থী দুই সহোদরের সমর্থকদের মাঝে শুক্রবার ৬ মে শুত্রুবার রাত থেকে শনিবার সকালে দুই দফা ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও এক প্রার্থীর অফিস ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। আওয়ামীলীগ প্রার্থীর সমর্থকদের হামলায় সহোদর স্বতন্ত্র প্রার্থীর ২০ জন সমর্থক আহত হয়েছে। ইসলামপুর ইউনিয়নের কুরমা চা বাগানে এ ঘটনাটি ঘটে।
এলাকাবাসী জানান, ইসলামপুর ইউনিয়নের আওয়ামীলীগের প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান সোলেমান মিয়া নৌকা প্রতীকে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করছেন। তারই আপন বড় ভাই সাবেক চেয়ারম্যান, বিএনপি নেতা আব্দুল হান্নান স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে আনারস প্রতীকে নির্বাচন করছেন। শুক্রবার রাত ১০ টায় কুরমা চা বাগান বড় লাইন (শ্রমিক বস্তি) এলাকায় নৌকা সমর্থক চা শ্রমিক মেগু ও আনারস সমর্থক চা শ্রমিক মন্টু নেশাগ্রস্থ হিসাবে দুই প্রার্থীর সমর্থনে একা একা স্লোগান দিলে দ্ইু জনের মাঝে হাতাহাতি শুরু হয়। এর জের ধরে রাতেই নৌকার সমর্থকরা কুরমা চা বাগান বাজারে আনারস সমর্থক দোকানী নজরুল ইসলাম ও তার ছেলে শামিমুল ইসলামের উপর হামলা চালায়। এক পর্যায়ে আনারস প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্বাচনী অফিস ভাংচুর করা হয়। ঘটনার খবর পেয়ে রাতে কমলগঞ্জ থানার পুলিশ সদস্যরা গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। শনিবার ৭ মে সকাল ১১টায় আবার আওয়ামীলীগ প্রার্থী সোলেমান মিয়ার নৌকা প্রতীকের সমর্থকরা স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল হান্নানের আনারস প্রতীকের সমর্থকদের উপর অতর্কিতে ধাওয়া করে। এ ধাওয়ার সময় কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছেন। আহতরা হলেন, মন্টু (২০),নজরুল ইসলাম (৪৫), শামিমুল ইসলাম (২৫), শওকত (২০),বিক্রম (২২), মন্তাজ মিয়া (২০),ইসমাইল মিয়া (৩০), আব্দুর রউফ (২৫), সাইদ মিয়া (২৬), ইউছুফ মিয়া (৩০) সহ অজ্ঞাত আরও দশ জন। এদের মাঝে গুরুতরভাবে আহত ইসমাইল মিয়া ও মন্তাজ মিয়াকে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনার জের ধরে আবার আব্দুল হান্নানের সমর্থকরা সোলেমান মিয়ার সমর্থকদের ধাওয়া করার চেষ্টা করলে কমলগঞ্জ থানার সিনিয়র উপ-পরিদর্শক জাহিদুল হকের নেতৃত্বে পুলিশ সদস্যদের উপস্থিতিতে পরিস্থিতি শান্ত হয়। পরে আবার আব্দুল হান্নানের সমর্থকরা বাড়ি ফেরার পথে সোলেমান মিয়ার সমর্থকরা তাদের ধাওয়া করে। এ নিয়ে এখন কুরমা চা বাগান এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।
স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান বলেন, তিনি বিএনপির রাজনীতির সাথে যুক্ত। আর ছোট ভাই সোলেমান মিয়া আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে যুক্ত। আগে তিনি চেয়ারম্যান ছিলেন। এখন ছোট ভাই সোলেমান মিয়া চেয়ারম্যান। আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনেও তিনি (আব্দুল হান্নান) স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে আনারস প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন। আর সোলেমান মিয়া দলীয় প্রতীক নৌকা নিয়ে নির্বাচন করছেন। বিষয়টি তিনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও কমলগঞ্জ থানা কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছেন।
তবে বর্তমান চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী সোলেমান মিয়া বলেন, তার বড় ভাই স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল হান্নানের সমর্থকরাই আগে ধাওয়া করে তার সমর্থকদের উপর হামলা চেষ্টা করেছিল। এ অবস্থায় তার সমর্থকরা আত্মরক্ষার্থে হামলা প্রতিহত করতে পারে।
কমলগঞ্জ থানার সিনিয়র উপ-পরিদর্শক জাহিদুল হক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন ,এখন পরিস্থিতি শান্ত আছে। আর পুলিশ বিষয়টি নজরদারী করছে।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •