কমলগঞ্জে আমনের বীজতলা তৈরি করছেন কৃষক

June 19, 2022,

প্রনীত রঞ্জন দেবনাথ॥ কমলগঞ্জের কৃষকেরা এখন আউশ ধানের চারা রোপন করছেন। এর পাশাপাশি আমন ধানের বীজতলা তৈরিতেও তাঁরা ব্যস্ত সময় পার করছেন। কয়েকদিনের টানা বৃষ্টিতে আমনের বীজতলা তৈরির জন্য এ উপজেলার জমি উপযোগী হয়েছে।
কৃষকরা জানান, বোরোধানের দাম কম থাকায় আউশধান কম চাষ করা হয়েছে। তবে আমনধান ব্যাপক আকারে চাষ করার জন্য তাঁরা প্রস্তুতি নিচ্ছেন। আউশধান রোপন প্রায় শেষ পর্যায় চলে আসছে, এ জন্য আমন ধানের বীজতলা তৈরি করছেন তারা। কয়েকদিনের টানা বৃষ্টিতে বীজতলা তৈরি করার সঠিক সময় এখন বলে তারা জানান।
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সুত্রে জানা যায়, এখন পর্যন্ত আমনের লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করা হয়নি। কয়েকদিনের মধ্যে লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করা হবে এবং ১ হাজার কৃষককে সরকারিভাবে আমনধানের ৫ কেজি বীজ ও ২০ কেজি করে সার দেওয়া হবে।
১৯ জুন রোববার সরেজমিনে উপজেলার পতনঊষার, শমশেরনগর, রহিমপুর ও মুন্সীবাজার ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় দেখা যায়, আউশধানের বীজতলা তৈরি করছেন চাষিরা। কয়েকদিনের বৃষ্টিতে বীজতলার জন্য জমিন উপযোগী হয়েছে। বেশীরভাগ কৃষক উফশী ও হাইবিৃড ধানের বীজতলা তৈরি করছেন।
উপজেলার শমশেরনগর ইউনিয়নের কৃষক সালাম মিয়া বলেন, আমি ১ একর জমির আউশধান রোপন করে আমন ধানের বীজতলা তৈরি করছি। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে এবার ৪ থেকে ৫ একর জমিতে আমন ধান চাষ করবো। বীজতলা তৈরি হতে প্রায় ৪৫ থেকে ৫০ দিন সময় লাগবে। এই সময়ের মধ্যে চাষের জমি তৈরি করবো।
রহিমপুর ইউনিয়নের কৃষক মখলিছ মিয়া বলেন, আমি ৩ একর জমিতে আমনধান চাষ করার জন্য উফশী ধানের বীজতলা তৈরি করছি। আমার আউশ ধান রোপন করা প্রায় শেষ।
কমলগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. জনি খান বলেন, আউশধান রোপনের পাশাপাশি কৃষকেরা আমনধানের বীজতলা তৈরি করছেন। কিছু দিনের মধ্যে আমনের লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করা হবে। এ উপজেলায় গত মৌসুমে আউশ, আমন ও বোরো ধানের ভালো চাষ হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •