কুলাউড়ায় যুবলীগ সম্পাদকের ওপর হামলা প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন

January 18, 2021, এই সংবাদটি ১৮৪ বার পঠিত

এইচ ডি রুকেল॥ কুলাউড়ায় উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ও শহরের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী প্রভাষক মঈনুল ইসলাম সবুজের ওপর দলীয় কোন্দলের জেরে হামলার ঘটনায় সোমবার ১৮ জানুয়ারি বিক্ষোভ মিছিল, প্রতিবাদ ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। প্রতিবাদে সকাল সাড়ে ১১টায় কুলাউড়া ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির আয়োজনে মানববন্ধন কর্মসূচীতে ব্যবসায়ী নেতা আব্দুল্লাহ আল মনির পরিচালনায় বক্তব্য দেন ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সাবেক সভাপতি হাজী চেরাগ আলী, বর্তমান সভাপতি বদরুজ্জামান সজল, সাধারণ সম্পাদক আতিকুর রহমান আখই, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মঈনুল ইসলাম শামীম, দপ্তর সম্পাদক ডা: আব্দুল কুদ্দুস, প্রচার সম্পাদক এইচ ডি রুবেল, ব্যবসায়ী নেতা গউছ মিয়া, আব্দুল মতলিব, শেখ সুমন, ব্যবসায়ী আমিনুল ইসলাম, হেলাল আহমদ, আবুল কালাম আজাদ, সিরাজুল ইসলাম রাজু প্রমুখ।
মানববন্ধনে নৃশংস এ হামলার প্রতিবাদে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে ব্যবসায়ী নেতারা বলেন, আগামী ৭২ ঘন্টার মধ্যে হামলাকারীদের গ্রেফতার করা না হলে কঠোর কর্মসূচির হুশিয়ারি দেন তারা।
এদিকে দুপুর দেড়টায় উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের আয়োজনে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। শহরের শহীদ মিনার প্রাঙ্গন থেকে মিছিলটি প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে প্রতিবাদ সভায় মিলিত হয়। সভায় উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আব্দুস শহীদের সভাপতিত্বে ও যুগ্ম সাধারন সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমের পরিচালনায় বক্তব্য দেন জেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি এ্যাড. জাহাঙ্গীর আলম, উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি বদরুল ইসলাম বদর, উপজেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি তৈমুল ইসলাম, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক নাহিদ হোসেন প্রমুখ। এসময় যুবলীগের বিভিন্ন ইউনিয়নের সভাপতি/সম্পাদকসহ নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। সভায় যুবলীগের নেতারা দ্রুত হামলাকারীদের গ্রেফতারে ২৪ ঘন্টার আলটিমেটাম দেন। এছাড়া মঈনুল ইসলাম সবুজের নিজ এলাকা ভূকশিমইল ইউনিয়নের জনসাধারণের ব্যানারে একটি বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এসময় শহরে প্রায় আধা ঘন্টা গাড়ি চলাচল বন্ধ থাকে।
যুবলীগ নেতা সবুজের ওপর হামলার ঘটনায় তাঁর বড়ভাই আমিনুল ইসলাম বাদী হয়ে যুবলীগ নেতা কামরুল বক্সকে প্রধান আসামী করে ৬ জনের নামোল্লেখ করে একটি মামলা কুলাউড়া থানায় (নং- ১১) দায়ের করেন।
মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, বিগত ২০১৮ সালে উপজেলা যুবলীগের কাউন্সিলে সাধারণ সম্পাদক পদে মঈনুল ইসলাম সবুজ ও কামরুল হাসান বক্স প্রার্থী হন। ওই কাউন্সিলে মঈনুল ইসলাম সবুজ সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত হন। কাউন্সিলে কামরুল বক্স সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত না হওয়ার জের থেকেই রবিবার সকাল ১১টায় পূর্ব শত্রুতার জের ধরেই সবুজের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান শহরের উছলাপাড়াস্থ আমিনুল ট্রেডার্সে প্রবেশ করে সবুজের ওপর অতর্কিত হামলা চালায় এবং প্রাণে হত্যার চেষ্টা করে। হামলাকারীরা দোকানে ভাংচুর করে নগদ ১৫ লক্ষ টাকা লুট করে নিয়ে যায়। এসময় হামলাকারীরা সবুজের মাথায় রামদা দিয়ে এলোপাতাড়িভাবে কুপালে গুরুতর আহত হন সবুজ। সবুজের চিৎকারে স্থানীয় ব্যবসায়ীসহ লোকজন এগিয়ে এলে হামলাকারীরা তাদের ব্যবহৃত মোটর সাইকেল ফেলে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। তাৎক্ষণিক ব্যবসায়ীরা সবুজকে উদ্ধার করে কুলাউড়া হাসপাতালে নিলে তাঁর অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে সিলেট ওসমানী হাসপাতালে প্রেরণ করেন। কিছুক্ষণ পর কুলাউড়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে হামলাকারীদের ব্যবহৃত দুটি মোটরসাইকেল উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।
এদিকে যুবলীগের সম্পাদক মঈনুল ইসলাম সবুজের ওপর অতর্কিত হামলা করে নির্মমভাবে গুরুতর আহত করায় সংগঠনের শৃঙ্খলা লঙ্ঘিত ও ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করায় বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস্ পরশ এবং সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মোঃ মাঈনুল হোসেন খান নিখিল এর নির্দেশে উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কামরুল হাসান বক্সকে সংগঠন থেকে অব্যাহতি দিয়েছে জেলা যুবলীগ। ১৭ জানুয়ারি মৌলভীবাজার জেলা যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বিকাশ ভৌমিক ও সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ রেজাউর রহমান সুমন স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে কামরুল হাসান বক্সের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় তাঁর বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।
এ বিষয়ে কুলাউড়া থানার অফিসার্স ইনচার্জ বিনয় ভূষণ রায় জানান, দলীয় কোন্দলে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এই ঘটনায় ৬ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করা হয়েছে। আসামীদের গ্রেফতারে পুলিশী অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •