চা বাগানে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু : এম্ব্যুলেন্স না দেয়ায় চা শ্রমিকদের কর্মবিরতি

April 24, 2021, এই সংবাদটি ২৬৬ বার পঠিত

স্টাফ রিপোর্টার॥ মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলের কালীঘাট চা বাগানে করোনা রোগীকে হাসপাতালে নেয়ার জন্য এম্ব্যুলেন্স না দেয়া ও রোগীর মৃত্যুর ঘটনায় চা শ্রমিকরা কর্মবিরতি পালন করেছে।
শ্রীমঙ্গল কালীঘাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও চা শ্রমিক নেতা প্রাণেশ গোয়ালা জানান, কালীঘাট চা বাগানের বাসিন্দা পোষ্ট অফিসের অবসর প্রাপ্ত অফিস সহকারী মন্টু তাঁতী (৫৫) গত ২১ এপ্রিল তার শরিরে করোনা পজেটিভ সন্ক্ত হয়। বৃহস্পতিবার রাতে তার শ্বাস কষ্ট দেখা দিলে বাগান হাসপাতালে এম্ব্যুলেন্স চাওয়া হয়। কিন্তু হাসপাতাল থেকে এম্ব্যুলেন্স না দিলে এম্ব্যুলেন্স খোঁজাখুতিতে বিলম্ব হয়। এতে করে রোগীর অবস্থার অবনতি ঘটতে থাকে। পরে শ্রমিকরা শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে ফোন করে এম্ব্যুলেন্স চাইলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম শহর থেকে দ্রুত একটি এম্ব্যুলেন্স প্রেরণ করেন। রাতেই তাকে মৌলভীবাজার ২৫০ বিশিষ্ট সদর শয্যা হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসা শুরু হওয়ার কিচ্ছুক্ষনের মধ্যেই তিনি মারা যান। তার মৃত্যুর খবর চা বাগানে পৌছালে রাতেই শ্রমিকরা কালীঘাট চা বাগানের বালিশিরা হাসপাতালের ডাক্তারের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে পড়েন। রাতেই লাশ বাগানে নিয়ে আসলে শ্রমিকরা লাশ মাটি চাপার আগে ডাক্তারকে অপসারণের দাবী তুলেন।
পরে সকাল থেকেই শ্রমিকরা কাজে না গিয়ে ডাক্তারের অপসারণের দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল ও কর্মবিরতি পালন করে।
খবর পেয়ে শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম রাতেই ঘটনাস্থলে গিয়ে সাবাইকে বুঝান এবং লাশ মাটি চাপার অনুরোধ করে মাটি চাপার জন্য অর্থ সহায়তা করেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার আশ্বাসে তারা শুক্রবার ভোর বেলা লাশ দাফন করে।
এ ব্যাপারে শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম জানান, কালীঘাট চা বাগান থেকে এক শ্রমিক ফোন করে করোনা রোগীর জন্য এম্ব্যুলেন্স চাইলে তিনি শ্রীমঙ্গল সদর হাসাতালের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করে একটি বে-সরকারী এম্ব্যুলেন্স দিয়ে তাকে মৌলভীবাজার করোনা আইসোলেসন ইউনিটে পাঠান। কিন্তু সেখানে নেয়ার পর চিকিৎসাধিন অবস্থায় মারা গেলে তারা লাশ নিয়ে বাগানে গেলে শ্রমিকরা কিছুটা উত্তেজিত হয়ে পড়েন। তিনি ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদের বুঝিয়ে লাশ মাটি চাপার অনুরোধ করেন এবং নগদ পাঁচ হাজার টাকা দিয়ে আসেন।
এ ব্যাপারে কালীঘাট চা বাগানের বাগান পঞ্চাতের সভাপতি অবান তাঁতী জানান, তাদের বাগানের হাসপাতালের ডাঃ নাজিয়া খানম সব সময়ই তাদের অবহেলা করে। বাগানের এম্ব্যুলেন্সটা দিলে হয়তো আগেই রোগীকে মৌলভীবাজার নিয়ে যাওয়া যেত। হয়তো রোগী বাঁচতো। তিনি জানান, এই ডাক্তার তাদের আন্তরিকতার সহিত দেখেন না। তাই এই ডাক্তারকে সরিয়ে অন্য ডাক্তার দেয়ার দাবীতে কর্মবিরতি পালন করে শ্রমিকরা।
এ ব্যাপারে ফিনলেটি এর চীফ অপারেটিং অফিসার তাহসিন আহমদ চৌধুরী জানান, বাগানে একটিই এম্ব্যুলেন্স। এটি শ্রমিকদের চিকিৎসার্থেই ব্যবহার করা হয়। ওই রোগী করোনা পজেটিভ থাকায় চিকিৎসক এটি দিতে রাজী হননি। কারণ এম্ব্যুলেন্স দিয়ে অন্য রোগী বহন করতে হবে। তাদের একটি বিকল্প এম্ব্যুলেন্স ব্যবস্থা করার জন্য বলা হয় যার ভাড়া বাগান কর্তৃপক্ষ বহন করবে। তিনি জানান, বাগানের স্টাফরা তার জন্য এম্ব্যুলেন্সও খোঁজছিল। ততক্ষনে উপজেলা থেকে একটি এম্ব্যুলেন্স চলে আসলে তারা বিকল্প এম্ব্যুলেন্স খোঁজা বন্ধ করেন।
বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়রেন বালিশিরা ভ্যালি সভাপতি বিজয় হাজরা জানান, অপসারণের দাবিকৃত ডাক্তার নাজিয়া আগামী সোমবার পর্যন্ত কাজে যাবেন না। এর ভিতরে চা শ্রমিকরা বাগান কর্তৃপক্ষের কাছে তাদের অভিযোগ জানিয়ে একটি দরখাস্ত দিবে। দরখাস্তের বিষয়টি অনুসন্ধান করে সত্যতা নিরিখে ওই ডাক্তারকে অন্য বাগানে বদলি করা হবে এবং আগামীতে কোন শ্রমিক করোনা রোগে আক্রান্ত হলে তাকে হাসপাতালে পাঠানো সহ চিকিৎসার ব্যবস্থা বাগান কর্তৃপক্ষ সহায়তা করবে। বিকেলে বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়ন ও বাগান কর্তৃপক্ষের মধ্যস্থতায় বিষয়টি নিস্পত্তি হয়। এই শর্তে তারা অবরোধ তুলে নেয় এবং শনিবার সকাল থেকে যথারীতি কাজে যোগ দিবে।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •