পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর : বড়লেখা নারীশিক্ষা একাডেমির শ্রেণীকক্ষ নির্মাণ : কাজের মান বৃদ্ধি : নি¤œমানের মালামাল অপসারন

June 25, 2016,

আব্দুর রব॥ বড়লেখার নারীশিক্ষা একাডেমি ডিগ্রী কলেজের নব নির্মিতব্য হলরুম ও শ্রেণীকক্ষ নির্মাণ কাজের মান বৃদ্ধি করা হয়েছে। গত ১৭ জুন বিভিন্ন পত্রিকায় “বড়লেখা নারীশিক্ষা একাডেমির শ্রেণীকক্ষ নির্মাণে অনিয়ম’ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন ছাপা হলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের টনক নড়ে। নির্মাণ কাজের অর্থায়নকারী মৌলভীবাজার জেলা পরিষদের সহকারী প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম ও ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান তারিম এন্টারপ্রাইজের স্বত্তাধিকারী সাদির আহমদ বিশেষ তদারকি শুরু করেন। তারা সাইটে মজুত রাখা নিুমানের ইট, খোয়া ও বালু অপসারন করেন। এছাড়া তদারকিতে অবহেলার কারনে ঠিকাদার সাদির আহমদ ব্যক্তিগত সুপারভাইজারকে অব্যাহতি প্রদান করেন।

কলেজের অধ্যক্ষ হারুন-উর-রশীদ ও উপাধ্যক্ষ একেএম হেলাল উদ্দিন জানান, পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর কাজের কোয়ালিটি বেড়ে গেছে। ঠিকাদারের লোকজন সাইটে থাকা নিুমানের মালামাল সরিয়ে ফেলেছেন। সার্বক্ষনিক সাইট ইঞ্জিনিয়ার নির্মাণ কাজ দেখাশুনা করছেন। এখন মনে হচ্ছে সিডিউল মোতাবেকই কাজ হচ্ছে।

মৌলভীবাজার জেলা পরিষদের সহকারী প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম জানান, সংবাদ প্রকাশের পরই তিনি স্পটে যান এবং মালামাল পরীক্ষা-নীরিক্ষা করে দেখেন নিুমানের কোন মালামাল লাগেনি। নিুমানের কিছু ইট, খোয়া ও বালু হয়ত মজুত রাখা ছিল। কলেজের শিক্ষকরা বাঁধা দেয়ায় সেগুলো লাগানো হয়নি। আমি ও ঠিকাদার কাজের সাইট থেকে সেগুলো অপসারন করেছি।

 

 

 

 

 

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •