বাগান থেকে বাজারে লেবু বিক্রিতে বাঁধা ও লুট পাটের অভিযোগ

May 9, 2021, এই সংবাদটি ২৩৫ বার পঠিত

স্টাফ রিপোর্টার॥ কমলগঞ্জের ধলই চা বাগানের পাশে নো-ম্যানল্যান্ড ভাতীয় সীমান্ত এলাকার একটি লেবু বাগান থেকে লেবু সংগ্রহ করে শ্রীমঙ্গলে বাজারজাত করতে বাঁধা। একটি প্রভাবশালী চক্রের ছত্রছায়ায় বাগান মালিকের কাছে ২০ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী। চাঁদা পরিশোধ না করায় মৌসুমের শুরু থেকে বিভিন্ন সময়ে বাগান ও রাস্তা থেকে লেবু লুট করে আসছে ওই প্রভাবশালী চক্র। এ বিষয়ে বাগান মালিক আইনশৃংখলা বাহিনী সহ সকারের বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করে কোন সহযোগীতা পাননি।
বাগান মালিক শ্রীমঙ্গল উপজেলার হোসেনাবাদ, ৬ নং পানপুঞ্জি মৃত খেও পাতাম এর পুত্র ওয়েল সুরং জানান, তিনি একজন খাসিয়া সম্প্রদায়ের লোক। কমলগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর ইউনিয়নে ধলই চা বাগানের পাশে নো-ম্যানল্যান্ড ভাতীয় সীমান্ত এলকায় ১১৫ একর লেবু বাগান রহিয়াছে। ওই ১১৫ একর জমিতে প্রায় ২০ বছর থেকে লেবু চাষ করে আসছেন। উক্ত বাগান বিভিন্ন ব্যক্তির নিকট একর প্রতি লিজ দিয়া এবং কিছু অংশ তিনি নিজে লেবু চাষ করছেন।
এর মধ্যে শ্রীমঙ্গলের বিষামনি এলাকার সাহেব আলীর পুত্র শাহ আলমকে ২০ একর এবং শাহজাদাকে ১০ একর ভূমি ২০১৪ সালে স্ট্যাম্পে লিখিত চুক্তিতে লিজ প্রদান করেন। তাদের পাশাপাশি শ্রীমঙ্গলের বিষামনি এলাকার শরীফ মিয়া পুত্র সোহাগ মিয়াকে ২০ একর লিজ প্রদান করেন।
ওয়েল সুরং আরও জানান, লিজের চুক্তিপত্র অনুযায়ী ২০১৮ সাল পর্যন্ত বাৎসরিক লিজমানি পরিশোধ করার পর বিভিন্ন উছিলায় ২০১৯ এবং ২০২০ সালে শাহ আলম, শাহ জাহান ও শাহজাদা ২ লক্ষ টাকা পরিশোধ না করিয়া সময় পাড় করে অজ্ঞাতনামা শ্রীমঙ্গলের কিছু কুচক্রী প্রভাবশালীর সহযোগিতায় তার লিজ দেয়া সোহাগ মিয়ার বাগানসহ তার কিছু অংশে চাষ করা বাগানে প্রবেশ করে জোরপূর্বক লেবু লুট করিয়া বিক্রয় শুরু করে।
গত ২২ এপ্রিল তার দখলীয় লেবু বাগানে ১০ থেকে ১২জন লোক প্রবেশ করিয়া জোরপূর্বক লেবু লুট করে নিয়ে যায়। এর আগে ২১ এপ্রিল বাগান হইতে শ্রীমঙ্গল নতুনবাজারস্থ জসীমউদ্দিনের আড়তে লেবু পাঠানো হলে শ্রীমঙ্গল উপজেলার লামুয়া (কালাপুর) এলাকার মৃত শেখ আব্দুল বারিকের পুত্র বাদশা মিয়া কাজল সহ আরও ৪ থেকে ৫ জন লেবু জোরপূর্বক লুট করে নিয়ে যায়। ঘটনার খবর পেয়ে ওয়েল সুরং ও সোহাগ মিয়া ঘটনাস্থলে বাধা প্রদান করলে লেবু লুটকারীরা মারমুখী আচরণ করে এবং লেবু বাগানে গেলে খুন করার হুমকি প্রদান করে।
এ সময় লুটেরা আরও জানায়, বাগানের লেবু নিবে লিজমানি দিবে না, শান্তিতে বাগান পরিচালনা করতে দিবে না এবং এককভাবে বাগান চালাতে চাহিলে ২০ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করে। এ বিষয়ে শ্রীমঙ্গল থানায় মৌখিক জানানো হয়।
ইতোপূর্বে কমলগঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। এ বিষয়ে কমলগঞ্জ থানা কোন ব্যবস্থা না নেয়ায় পুলিশ সুপার বরাবরে ওয়েল সুরং গত ১ মে ২০২১ তারিখ সুবিচার চেয়ে লিখিত অভিযোগ করেন।
এ বিষয়ে মাধবপুর ইউনিয়নের ৯ ওয়ার্ড এর সদস্য শিব নারায়ন শীল ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, খাসিয়া ওয়েল সুরং দির্ঘ দিন থেকে বাগান পরিচালনা করে আসছেন। তার কিছু সরলতা ও ভুলের কাণে সমস্যায় পড়েছেন।
বাগান মালিক ওয়েল সুরং জানান, এ ঘটার পর থেকে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন ও মারাতামক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন। পাশাপাশি সুবিচার না পেয়ে পরিবার পরিজন নিয়ে মানসিক ভাবে বিপর্যস্থ হয়ে পরেছেন।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •