বড়লেখায় ঘূর্ণিঝড় আর ভারী শিলাবৃষ্টিতে ৫ হাজার পরিবারের ক্ষয়ক্ষতি : বুরো ধান ও চায়ের ব্যাপক ক্ষতি

April 9, 2016, এই সংবাদটি ১৮৬ বার পঠিত

বড়লেখা প্রতিনিধি: বড়লেখায় শুক্রবার মধ্যরাতের ঘূর্ণিঝড় আর ভারী শিলাবৃষ্টিতে উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চলের সহস্রাধিক ঘরবাড়ির ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ঘরের চালা উড়ে এবং অসংখ্য ছিদ্রের সৃষ্টি হয়ে প্রায় পাচ হাজার পরিবারের লোকজন মারাত্মক দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন। চা গাছ লন্ডভন্ড হয়ে চয়নযোগ্য কচি চা পাতা ছিন্নবিচ্ছিন্ন হয়ে অন্তত কোটি টাকার ক্ষতি সাধিত হয়েছে। এছাড়া নিুাঞ্চল ও উজানের আধা পাকা বুরো ফসল মাটির সাথে মিশে কৃষকের কয়েক কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। শনিবার উপজেলা চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলামসহ স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানরা ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা পরিদর্শন করেছেন।  জানা গেছে, শুক্রবার মধ্যরাতে কালবৈশাখী ঝড়ের সাথে ভারী শিলাবৃষ্টি শুরু হয়। প্রায় পৌনে একঘন্টার ঝড় আর শিলার তান্ডবে উপজেলার ১০ ইউনিয়নের প্রায় প্রতিটি এলাকা আক্রান্ত হয়। সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে কেরামনগর, লক্ষীছড়া, কুমারশাইল, নিউসমনবাগ, পাথারিয়া, মোকাম, রশিদাবাদ, পাল্লাথল চা বাগানের দরিদ্র শ্রমিকরা। ঝড়ে তাদের কাচা ঘরবাড়ি উপড়ে পড়ে ও ভারী শিলায় চালায় ছিদ্র হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। শনিবার সকালে সরেজমিনে উপজেলার দক্ষিণভাগের গজভাগ, জ্যোতিরবন্দ, দোহালিয়া, পুর্ব দক্ষিণভাগ, কাঠালতলীর চুকারপুঞ্জি, খলাগাও, বিওসি, কাটাজঙ্গল, শাহবাজপুরের বড়াইল, করমপুর, সায়পুর, নান্দুয়া, পুর্বদৌলতপুর, সুজানগরের পাটনা, বাঘমারা, ভোলাকান্দি, উত্তর সুজানগর, গুচ্ছগ্রামসহ বর্নি, নিজবাহাদুর, তালিমপুর, দাসেরবাজার ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রাম ঘুরে ঝড়ে ও শিলাবৃষ্টিতে ঘরবাড়ী ও গাছপালা উপড়ে পড়তে এবং হাজারো বসত ঘরের চালা ঝাজরা হওয়ার দৃশ্য দেখা গেছে। ক্ষতিগ্রস্থ চা শ্রমিক রাজেন্দ্র ভৌমিক, মাখন সিংহ, রিতা বোনার্জি, মিলন সিংহ, যমুনা বাউরী প্রমূখ জানান, রাতে ঘরের চালা উড়ে গেলে না ঘুমিয়ে বৃষ্টিতে ভিজে কোনমতে রাত পার করেছেন। কিভাবে মাথা গোজার ব্যবস্থা করবেন তা মাথায় আসছে না। কেরামত নগর চা বাগানের ব্যবস্থাপক মারুফ আহমদ জানান, তার বাগানের তিনশ শ্রমিক ঘর বিধস্ত হয়ে অন্তত বিশ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। এছাড়া চা পাতা ছিন্নবিচ্ছিন্ন হয়ে প্রায় অর্ধকোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আজাদের রহমান যুগান্তরকে জানান, তিনি নিজে বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন করেছেন। উপজেলার সকল ইউপি চেয়ারম্যানদের ক্ষতিগ্রস্থদের তালিকা তৈরী করতে অনুরোধ জানিয়েছেন।

 

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •