বড়লেখায় সেগুনকাঠ পাচারকালে কাঠ ব্যবসায়ী ও বনপ্রহরীর  হাতাহাতি : আহত ৩

October 27, 2020, এই সংবাদটি ১০৬ বার পঠিত

আব্দুর রব॥ বড়লেখায় অবৈধ সেগুনকাঠ পাচারকালে কাঠ ব্যবসায়ী ও বনপ্রহরীর মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। এতে একজন পথচারীসহ উভয়ই রক্তাক্ত আহত হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন। ঘটনাটি ঘটেছে ২৬ অক্টোবর সোমবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে পৌরশহরের পুরাতন রেঞ্জ অফিসের সামনের সওজ রাস্থায়। এ ঘটনায় আহত ব্যবসায়ী নাজিম উদ্দিনের ভাই ইউপি চেয়ারম্যান এনাম উদ্দিন ২৭ অক্টোবর মঙ্গলবার বনপ্রহরী তফাজ্জল হোসেনের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করেছেন।

বনবিভাগ, থানা পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার দক্ষিণভাগ উত্তর ইউপি চেয়ারম্যান এনাম উদ্দিনের ভাই কাঠ ব্যবসায়ী নাজিম উদ্দিন সোমবার রাতে পিকআপ যোগে অবৈধ সেগুন কাঠ পাচার করবেন স্থানীয় বনবিভাগের কাছে এমন তথ্য ছিল। এ তথ্যের ভিত্তিতে বড়লেখা রেঞ্জের বনপ্রহরী তফাজ্জল হোসেন পুরাতন রেঞ্জ অফিসের সামনে পূর্ব থেকে অপেক্ষা করছিলেন। রাত ৯টার দিকে কাঠ ব্যবসায়ী নাজিম উদ্দিন দক্ষিণ দিক থেকে উত্তর দিকে কাঠবাহী একটি পিকআপ নিয়ে যাচ্ছিলেন। বনপ্রহরী গাড়ী থামানোর সিগনাল দিলে তিনি তা অমান্য করে দ্রুত চলে যান। এর ২০-২৫ মিনিট পর ফিরে বনপ্রহরী তফাজ্জল হোসেনকে সিগনাল দেয়ার কারণ জানতে চান। উত্তপ্ত বাক্য বিনিময়ের একপর্যায়ে একজন আরেক জনের সাথে হাতাহাতিতে লিপ্ত হন। এতে দু’জনেরই রক্তাক্ত জখম হয়। তাদেরকে নিবৃত্ত করতে একজন পথচারীও আহত হন।

রেঞ্জ কর্মকর্তা শেখর রঞ্জন দাস জানান, অবৈধ সন্দেহ হলে বনবিভাগ কাঠবাহী যেকোন গাড়ীকে সিগনাল দিতে পারে। সেগুন কাঠ পাচারের তথ্যে বনপ্রহরী তফাজ্জল হোসেন পিকআপ ভ্যানে সিগনাল দেন। সিগনাল অমান্য করে চলে যাওয়ার পরে এসে কাঠ ব্যবসায়ী নাজিম উদ্দিন বনপ্রহরীর ওপর চড়াও হন। একপর্যায়ে তিনি চালক ও হেলপারকে নিয়ে তার ওপর হামলা চালান। আহত বনপ্রহরীকে সিলেটের একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বিষয়টি তিনি উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছেন।

ইউপি চেয়ারম্যান এনাম উদ্দিন জানান, তার ভাই সেগুন কিংবা অবৈধ কোন কাঠ পরিবহণ করেনি। বৈধ কাঠ নিয়ে যাচ্ছিল। একথা বলতে গিয়েই আমার ভাই নাজিম উদ্দিন বনপ্রহরী তফাজ্জল হোসেনের হামলার শিকার হয়েছে। সে তাকে চেয়ার দিয়ে মাথায় আঘাত করেছে। এতে আমার ভাইয়ের মাথায় ৯ ঘাই সেলাই লেগেছে। এ হামলার ঘটনায় আমি থাকায় অভিযোগ করেছি।

থানার ওসি মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন সরদার জানান, এঘটনায় আহত কাঠ ব্যবসায়ী নাজিম উদ্দিনের ভাই ইউপি চেয়ারম্যান এনাম উদ্দিন থানায় একটি অভিযোগ দিয়েছেন। অভিযোগটির তদন্ত চলছে।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •