রাজনগরে আওয়ামীলীগের দুই পক্ষে সংঘর্ষের ঘটনায় বিএনপি নেতাসহ ৪ শতাধিক আসামী করে মামলা

February 14, 2021, এই সংবাদটি ৮২৪ বার পঠিত

স্টাফ রিপোর্টার রাজনগরে আওয়ামীলীগের দুই পক্ষের আলোচিত সংঘর্ষের ঘটনায় অবশেষে থানায় মামলা হয়েছে। মামলায় রাজনগরের উপজেলা চেয়ারম্যান ও ৫ ইউপি চেয়ারম্যান, আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, বিএনপিসহ চার শাতাধিক নেতাকর্মীকে আসামী করা হয়েছে। অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ১১ ফেব্রুয়ারী রাজনগর উপজেলা পরিষদের সামনে রাজনগর উপজেলা চেয়ারম্যান শাহজাহান খান ও উপজেলা আ’লীগ’র সম্পাদক মিলন বখত’র লোকজনের মধ্যে দিনভর সংঘর্ষ হয়। এতে পুলিশসহ উভয় পক্ষে অন্তত ৩০ জন আহত হন। এঘটনায় উভয় পক্ষে রাজনগর থানায় লিখিত অভিযোগ দিলে দুটি মামলাই নথিভূক্ত হয়। উপজেলা আওয়ামীলীগ সম্পাদক’র পক্ষে থানায় লিখিত অভিযোগ দেন উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ময়নুল ইসলাম খান। মামলায় (নং-৩, জিআর ১৬/২০২১) উপজেলা চেয়ারম্যান শাহজাহান খান, অলিলা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জিল্লুর রহমান, টেংরা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান টিপু খান, ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল সাম্মু, কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রিয়াজ খান, উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক চৌধুরী, বিএনপি নেতা আছকান মিয়াসহ ২১ জনের নাম উল্লেখ করে দেড় শতাধিক নেতাকর্মীকে আসামী করা হয়েছে। এই মামলায় উল্ল্যেখ করা হয়, ২০১৬ সালে উপজেলা পরিষদের সভায় রাজনগরের কামারচাক ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান কালাইকোনা গ্রামের আব্দুল মছব্বিরের নাম রাজাকারের তালিকায় অর্ন্তভূক্তির জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের বরাবর সুপারিশ করা হয়। এরপর থেকে তার (আব্দুল মছব্বিরের) ছেলে ২নং আসামী জিল্লুর রহমান অবৈধ টাকার জোরে স্বাধীনতার পক্ষের লোকজনকে হয়রানি করে আসছেন এবং অর্থের লোভে লোকজনকে স্বাধীনতা বিরুধী করে তুলছেন। এর প্রতিবাদে ১১ ফেব্রুয়ারী রাজনগর উপজেলা আওয়ামীলীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা প্রতিবাদী মিছিল করতে গেলে উপেজলা চেয়ারম্যান শাহাজাহন খান ও জিল্লুর রহমানের নির্দেশে তাদের ওপর হামলা করা হয়। এতে তাদের বিভিন্ন নেতাকর্মী আহত হন।

অপরদিকে উপজেলা চেয়ারম্যান শাহজাহান খানের পক্ষে উপজেলা যুবলীগের ক্রীড়া সম্পাদক তানিম খান বাদী হয়ে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মিলন বখত, কামারচাক ইউপি চেয়ারম্যান নজমুল হক সেলিম, মুন্সিবাজার ইউপি চেয়ারম্যান ছালেক আহমদ, ফতেহপুর ইউপি চেয়ারম্যান নকুল চন্দ্র দাস, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ময়নুল ইসলাম খান, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদির ফৌজি, ছাত্রলীগের সভাপতি রুবেল আহমদসহ যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ ২৫ জনের নাম উল্লেখ করে ২৫০ জনকে আসামী করা হয়েছে। মামলায় (নং-৪,জিআর ১৭/২০২১) বলা হয়েছে বাদীকে যুবলীগের সভাপতি ময়নুল ইসলাম খান, সহসভাপতি সিজু আহমদ সম্পাদক আব্দুল কাদির ফৌজিসহ কয়েকজন সন্ত্রাসী কর্মকান্ড করার প্রস্তাব করে। এতে তিনি রাজি না হয়ে ঘটনার দিন ১১ ফেব্রুয়ারী উপজেলা চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে বিষয়টি জানানোর সময় সাধারণ সম্পাদক মিলন বখতের নেতৃত্বে বন্দুক, পিস্তল ও দেশিয় অস্ত্রেসস্ত্রে সজ্জিত হয়ে হামলা চালায়। এতে তাদের বিভিন্ন নেতাকর্মী আহত হন।  রাজনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল হাসিম বলেন, উভয়পক্ষ মামলা করেছে। মামলা তদন্তাধীন রয়েছে। পুলিশ আসামীদের গ্রেফতারে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •