রাজনগরে বিএনপি’র ৩২ নেতাকর্মীর পদত্যাগ

November 2, 2020, এই সংবাদটি ৭২০ বার পঠিত

আউয়াল কালাম বেগ॥ মৌলভীবাজারের রাজনগরে উপজেলা বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের ৩২ জন নেতাকর্মী পদত্যাগ করেছেন। জেলা বিএনপি’র সভাপতির গঠণতন্ত্র বিরোধী একক নির্দেশ প্রদানের অভিযোগ এনে তারা এই পদত্যাগ করেন। রবিবার ১ নভেম্বর জেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমানের কাছে তারা এই পদত্যাগ পত্র জমা দিয়েছেন।

পদত্যাগী নেতাদের মধ্যে রয়েছেন- উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এম এ হাকিম বকস, উপদেষ্টা ওয়াহিদ মুরাদ, যুগ্ম সম্পাদক জুবায়ের আহমদ চৌধুরী, আতাউর রহমান, প্রচার সম্পাদক জগলু তালুকদার, সহ-সম্পাদক মাসুক মিয়া, হিরাসেন অধিকারী, ছুরুক মিয়া, সৈয়দ ইকরাম হোসেন, আতাউর রহমান, দপ্তর সম্পদক মোস্তাফিজুর রহমান, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, সমাজসেবা সম্পাদক সৈয়দ ছানু আলী, সদস্য আছকর উদ্দিন, উপজেলা কৃষক দলের সভাপতি মনির হোসেন খালেদ, সম্পাদক আব্দুল আতিক, শ্রমিক দলের উপজেলা সভাপতি হোসেন আহমদ রাজা, টেংরা ইউপি বিএনপির সভাপতি আব্দুল মোত্তাকিন, সদর ইউপি সাধারণ সম্পাদক সাহিদ খান সহ ৩২ জন।

পদত্যাগপত্র থেকে জানা যায়, সম্প্রতি উপজেলা বিএনপি’র ১ম যুগ্ম সম্পাদক মোনায়েম খান গেদনের মৃত্যুতে শূন্য হওয়া পদে সহ-সাগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক চৌধুরীকে ওই পদে দায়িত্ব দিতে গত ২৫ আগষ্ট উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি/সাধারণ সম্পাদককে নির্দেশ দেন জেলা বিএনপি’র সভাপতি এম নাসের রহামান। এ ব্যাপারে এনামুল হক চৌধুরীকে চিঠি দিয়েও নিশ্চিত করেন উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক।

পরে ২২ সেপ্টেম্বর ওই পদ থেকে সরিয়ে এনামুল হক চৌধুরীকে সাংগঠনিক সম্পাদকের পদ দিতে আবারো নির্দেশ দেন জেলা বিএনপি’র সভাপতি। এই নির্দেশনা অনুযায়ী তাকে সাংগঠনিক সম্পাদক পদ দেয়া হয়েছে জানিয়ে আবারো পত্র দেয়া হয়। ১৩ অক্টোবর উপজেলা সভাপতি-সাধারণ সম্পাদককে নব পদায়ন করা এনামুল হক চৌধুরীর বিরোদ্ধে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের কারণ দেখিয়ে সাংগঠনিক পদ থেকে অব্যাহতি দেয়ার নির্দেশ দেন জেলা বিএনপি’র সভাপতি। এর ৮ দিন পরে গত ২১ অক্টোবর আবারো এনামুল হক চৌধুরীকে সাংগঠনিক সম্পাদক পদে বহাল করতে নির্দেশ দেন। এভাবে বারবার একই ব্যাক্তিকে বহাল আর অব্যাহতি দেয়ার নির্দেশের কারণে দলের নেতাকর্মীদের মনে অসন্তোষের সৃষ্টি হয়েছে এবং দলের ক্ষতি হচ্ছে উল্ল্যেখ করেন ওই পদত্যাগ পত্রে।

এ ব্যাপারে এমএ হাকিম বকস বলেন, গঠনতন্ত্র অমান্য করে অগণতান্ত্রিকভাবে একই ব্যাক্তিকে একবার পদ দেওয়া, পরে পদ পরিবর্তন করা, আবার অব্যাহতি দেয়ার নির্দেশ দিয়েও পরে পদ ফিরিয়ে দেয়ার নির্দেশ দিচ্ছেন জেলা সভাপতি। বর্ধিত সভা না করে যখন তখন পদ দেয়া ও অব্যাহতি দেয়ার কারণে দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। আমরা এসব বিষয়ে অনেক সময় লজ্জা পেতে হয়। ফলে দলের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয়েছে। তাই সবাই একমত হয়ে পদত্যাগ করেছি। পদত্যাগপত্র জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদকের কাছে পৌঁছে দেয়া হয়েছে।

জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান বলেন, রাজনগর উপজেলা বিএনপির কয়েকজন নেতাকর্মী পদত্যাগপত্র আমার কাছে জমা দিয়েছেন। জেলা সভাপতির সাথে এব্যাপারে এখনো কথা হয়নি।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •