শ্রীমঙ্গলে অবৈধ ও নকল সিগারেট বিক্রিয় কালে জনতার হাতে আটক বিক্রেতা : অবশেষে দৌড়ে পলায়ন

September 24, 2018, এই সংবাদটি ৬৬৭ বার পঠিত

শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি॥ নকল ট্যাক্স স্ট্যাম্প ব্যবহারকারী ভার্গো টোবাকো কোম্পানীর টার্গেট সিগারেট বিক্রয়ের সময় হাতে নাতে ধরা পড়ে কোম্পানীর এস আর।
ঘটনাটি ঘটে ২৪ সেপ্টেম্বর সোমবার দুপুরে শ্রীমঙ্গল উপজেলার কালাপুর বাজারে। কালাপুর বাজারে ভার্গো টোবাকো কোম্পানীর এস আর একটি হাত ব্যাগে করে পার্টনার সিগারেট বিক্রি করতে নিয়ে আসলে বাজারের দোকানদার তার কাছে জানতে চায় তার এসব সিগারেট বৈধ কিনা।
এস আর দোকানদার কেস ঠিক উত্তর বাড কুমেন্ট দেখাতে ব্যার্থ হলে দোকানদার ও উৎসুক জনতা তাকে আটক করে রাখে। খবর পেয়ে ঘটনা স্থলে গিয়ে জানা যায় এসব কথা। কালাপুর বাজারের এক দোকানদার জানান, আমরা আগে এসব সিগারেট বিক্রয় করতাম। কিছুদিন আগে আমি টিভিতে দেখেছি এসব সিগারেট অবৈধ এবং এরাসরকারকে রাজস্ব আদায় কওে না। এতে আমাদের দেশের অনেক ক্ষতি হচ্ছে। তাই আজ আমি টার্গেট সিগারেট বিক্রে তাকে তার সিগারেটের বৈধতা সম্পর্কে জানতে চাইলে সে তার বস শদিদুল ইসলাম জোনাল ইনচার্জ কে ফোন দেয়।
কিছুক্ষন পর জোনাল ইনচার্জ শহিদুল ইসলাম এসেও কোন প্রকার বৈধ কাগজ পত্র দেখাতে পারেনি। এবং পরিক্ষা করে দেখা যায় সিগারেটের গায়ে লাগানো বেন্ড রোল জাল এবং এতে এন বি আর এর কোন জল ছাপ নেই। জোনাল ইনচার্জ শহীদুল ইসলাম জানান, এই সিগারেটের স্থানীয় এজেন্ট শ্রীমঙ্গল শহরের নতুন বাজারে অবস্থিত সিরাজ মিয়া। তবে এ ব্যাপারে সিরাজ মিয়ার মোবাইল নাম্বারের ফোন দিলে তাকে পাওয়া যায়নি।
এ সময় প্রতিবেদক বিষয়টি সম্পর্কে জানার জন্য মৌলভীবাজার রাজস্ব বিভাগের অতিরিক্ত কমিশনার রাশিদুর হাসানের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করে বিষয়টি অবগত করলে তিনি জানান এসব বিষয়ে টাক্সফোর্সকে অবগত করেন তারাই ব্যবস্থা নিবেন। কিন্ত এই মুহুর্তে এই বিক্রে তার বিরুদ্ধে কি ব্যবস্থা নিবেন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন-’এই মুহুর্তে আমরা আছি বাইওে আছি আর এভাবেত যে কোন জায়গায় যাওয়া সম্ভব নয়’।
এ ব্যাপারে শ্রীমঙ্গল থানার অফিসার্স ইনচার্জ কে এমন জরুল ইসলামকে বিষয়টি জানালে তিনি জানান- অভিযোগ দিলে আমরা অবশ্যই এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নিব। কিন্তু কে দিবে অভিযোগ এবং কে নিবে অভিযোগ এসব বেড়া জালে প্রকৃত অপরাধীরা ও রাজস্ব ফাঁকি বাজরা পার পেয়ে যাচ্ছে। সরকার হারাচ্ছে রাজস্ব। অন্য দিকে সরকারের নির্দেশনানা থাকায় ও এসব ব্রান্ড পরিক্ষিত না হওয়ায় এসব সিগারেট কোম্পানীর ধূমপায়ীরা স্বাহ্যেও ঝুকিতে রয়েছেন অপরদিকে তামাক নিয়ন্ত্রন আইন না মেনে কম দামে সিগারেট বিক্রি করায় তামাক নিয়ন্ত্রন করা সম্ভব হচ্ছে না।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •