শ্রীমঙ্গলে ব্যবসায়ী অপহরণ ॥ ১৮ দিনেও মিলেনি খোঁজ নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছে পরিবার

July 18, 2016,

শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি॥ অপহরণের ১৮ দিন অতিবাহিত হয়ে গেলেও এখনো উদ্ধার করা করা সম্ভব হয়নি শ্রীমঙ্গলের লেবু বাগান মালিক বশির মিয়াকে। অপরদিকে অপহরনের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ এনে প্রভাবশালী ৯ জনকে আসামী করে মৌলভীবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজ্যিষ্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করেছেন অপহিৃত বশির মিয়ার পিতা হাফেজ মিয়া। এ ঘটনার পর থেকে পরিবার পরিজন নিয়ে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছেন বলে অভিযোগ করেছেন তার পরিবার।
জানা যায়, শুক্রবার ১ জুলাই জুম্মার নামাজের পর দুইটি লাইট্রেক্স গাড়ী এসে শ্রীমঙ্গল উপজেলার মহাজীরাবাদ মসজিদের সামনে গাড়ী থেকে ১০/১২ জন লোক নেমে বশির মিয়াকে ধরে টেনে হিছরে গাড়ীতে তুলে নেয়। এ সময় মসজিদ থেকে বের হওয়া মুসল্লীরা বশিরকে নিয়ে যেতে বাধা দিলে ওই লোক গুলো নিজেদের র‌্যাবের লোক পরিচয় দিয়ে বশিরকে নিয়ে যায়। মামলার অভিযোগে জানাযায়, ফল-ফুটের পাইকারী ব্যবসায়ী জিন্নূর রহমান ও জামরুল ইসলাম এর নিকট ছয় লক্ষ টাকা পাওনাকে কেন্দ্র করে লেবু ব্যবসায়ী বশির মিয়ার সাথে মনোমালিন্যের সৃষ্টি হয় এবং পরিকল্পিতভাবে অস্ত্র দেখিয়ে বশিরকে তুলে নিয়ে যায়। ঘটনার পরপরই বিষয়টি স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও পুলিশকে জানানো হলে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশ।
অপহরনের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ এনে জিন্নূর রহমান, জামরুল ইসলাম, মুজিবুর রহমানসহ ৯ জনকে আসামী করে ১০ জুলাই মৌলভীবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজ্যিষ্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করেছেন অপহিৃত বশির মিয়ার পিতা হাফেজ মিয়া। মামলা নং ১৫২/২০১৬। ঘটনার ১৮ দিন অতিবাহিত হওয়ার পরও ব্যবসায়ী বশির মিয়ার কোন খোঁজ না পাওয়ায় চরম উৎকণ্ঠায় দিন কাটাচ্ছে তার পরিবার। এদিকে প্রভাবশালীদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের পর থেকে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছেন বলে জানিয়েছেন মামলার বাদী মো হাফেজ মিয়া।
এ ব্যাপারে এ এসপি সার্কেল (শ্রীমঙ্গল-কমলগঞ্জ) মোল্লা মোহাম্মদ শাহীন বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে ব্যবসায়ী বশির মিয়াকে উঠিয়ে নেয়ার সত্যতা আমরা পেয়েছি।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •