শ্রীমঙ্গলে সুজনের কমিটি নিয়ে মতপার্থক্য ॥ সমাধানে ৭ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন

September 12, 2016,

শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি॥ সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) এর শ্রীমঙ্গল উপজেলা কমিটি গঠন নিয়ে সংগঠনের সদস্যদের মধ্যে মতপার্থক্য দেখা দিয়েছে।
১১ সেপ্টেম্বর রোববার সকালে স্থানীয় চন্দ্রনাথ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শ্রীমঙ্গল শাখা সংগঠনের পুর্ণগঠনের লক্ষ্যে এক আলোচনা সভায় বক্তাদের বক্তব্যে স্থানীয় কমিটি নিয়ে নানামুখী মতপার্থক্য দেখা যায়। এ সমস্যা সমাধানের জন্য ৭ সদস্য বিশিষ্ট  একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি নোমান আহমদ সিদ্দীকির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আলোচনায় অংশ নেন উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হেলেনা চৌধুরী, সনাক সভাপতি সৈয়দ নেসার আহমদ, সাবেক উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান জয়শ্রী চৌধুরী শিখা, দ্বারিকাপাল মহিলা ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক জলি পাল, উপজেলা সরকারি প্রাথমিক প্রধান শিক্ষক সমিতির মিডিয়া ও প্রচার সম্পাদক মো. একরামুর কবীর, শিক্ষক মাহবুবুল আলম স্বপন, সাংবাদিক আনোয়ার হোসেন জসিম, সুজন সদস্য এস এ হামিদ, ধীরেন সিং, পরিতোষ দেব নির” ও অনুজ কান্তি দাশ।
সুজন সদস্য সৈয়দ ছায়েদ আহমদের উদ্যোগে আয়োজিত সভায় সংগঠনের সার্বিক পরিস্থিতি ও সাংগঠনিক কর্মকান্ড বিষয়ে স্বাগত বক্তব্য রাখেন তিনি। পরে অধিকাংশ মতামতের ভিত্তিতে সংগঠনের পুণঃগঠনকল্পে স্থানীয় সনাক আহ্বায়ক সৈয়দ নেসার আহমদকে আহ্বায়ক করে ৭ সদস্য বিশিষ্ট একটি সমন্বয় কমিটি গঠন করা হয়। এই কমিটি জেলা, বিভাগ ও কেন্দ্রের সাথে যোগাযোগ করে সাংগঠনিক দক্ষতা ও কার্যক্রমকে এগিয়ে নেওয়ার লক্ষ্যে নতুন কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।
সমন্বয় কমিটির সদস্যরা হলেন হেলেনা চৌধুরী, নোমান আহমদ সিদ্দীকি, জলি পাল, হাজী এলেমান কবীর, তাহেরা খানম ও  একরামুর কবীর।
সভায় উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন ও পৌর এলাকার ছাত্র, শিক্ষক, সমাজসেবক, ব্যবসায়ি, জনপ্রতিনিধি, উজ্জীবক, নারী নেত্রী, ইয়ুথ, এনজিওকর্মী, শিক্ষা-সংস্কৃতি ও ক্রীড়া সংগঠন সহ বিভিন্ন  সংগঠনের প্রায় অর্ধ শতাধিক সুজন সদস্য উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, সুজন সদস্য কাওছার ইকবালের আয়োজনে ২২ আগস্ট বিকাল ৫ টায় একই স্থানে গোপনে একটি সভা আহ্বান করা হয়। উক্ত সভায় জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক জহর লাল দত্তের নেতৃত্বে মাত্র কয়েকজনের উপস্থিতিতে শিক্ষক দ্বীপেন্দ্র ভট্টাচার্যকে সভাপতি ও কাওছার ইকবালকে সাধারণ সম্পাদক করে ২৭ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটির অনুমোদন করা হয়। যা সংগঠনের সংবিধান পরিপন্থি।
এদিকে সুজন শ্রীমঙ্গল শাখা কমিটির সদস্যদের মধ্যে কমিটি নিয়ে অসন্তোষের কারণ জেনে সুজন কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ড. বদিউল আলম ও হাঙ্গার প্রজেক্টের পরিচালক নাসিমা আক্তার জলি এস এ হামিদের মুঠোফোনে বলেন- বিষয়টি ঈদের পরপরই সকলের অংশগ্রহণের মাধ্যমে সুষ্ঠু সমাধানকল্পে কমিটি পুণঃগঠন করা হবে।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •