সালতামামি-২০১৬ বছর জুড়ে যেমন ছিল মৌলভীবাজার

January 1, 2017, এই সংবাদটি ৩৯২ বার পঠিত

ইমাদ উদ দীন॥ সমস্যা-সম্ভাবনা,প্রত্যাশা-প্রাপ্তি আর অপ্রাপ্তির মিল অমিলের দ্বন্ধে চলে গেল আরো একটি বছর। হিসাব নিকাশ কষে পেছন ফিরে অভিজ্ঞতা নিয়ে নতুন উদ্যমতায় সম্মুখ পাণে ছুটে চলা। কেমন ছিল কেমন গেল বিগত বছর। নতুন বছরের স্বপ্ন প্রত্যাশা আর কর্মপরিকল্পনা নিয়ে এখন চুলচেরা বিচার বিশ্লেষণ চলছে অনান্যদের মত এ জেলাবাসীরও। বছর জুড়ে ঘটে যাওয়া এমন নানা আলোচিত ঘটনা আর দূঘর্টনা তাদের স্মৃতিপটে আলোড়িত করে। পিছনের অপ্রাপ্তির বেদনা ভুলে নতুনের সন্ধানে প্রাপ্তির প্রত্যাশায়। আর বিগত বছরের প্রাপ্তির প্রেরণা চলার পথের সারথি হয়ে এগিয়ে যাওয়া। নয়নাভিরাম চা,রাবার,আগর বাগান,সবুজ পাহাড়ী টিলা নানা প্রজাতির প্রাণী আর হাওরের জন্য পর্যটন শিল্পে রয়েছে এ জেলার কদর। নানা কারণে প্রবাসী অধ্যুষিত এ জেলার সুনাম ও পরিচিতি সর্বমহলে। কেমন গেল বিগত বছর মানবজমিনের অনুসন্ধানে এ জেলার এমন আলোচিত ঘটনার পুনরাবৃত্তি।
শিশুদের রঙিন স্কুল: জেলার প্রথমিক বিদ্যালয় গুলোতে শিশুমনের আকর্ষণ ও উৎসাহ বাড়াতে গেল বছর থেকেই এমন অভিনব উদ্যোগের বাস্তবায়ন। এমন ব্যতিক্রমী আয়োজনে ব্যাপক সাড়া দিচ্ছে শিশু শিক্ষার্থীরাও। জেলার কুলাউড়া উপজেলার ১৯৩টি স্কুলসহ অনান্য উপজেলার অধিকাংশ প্রাথমিক বিদ্যালয়েরও এমন অবয়ব। পুরো স্কুলের দেওয়াল জুড়ে রং তুলির আচঁড়ে শৈল্পিক কারুকার্যময়তায় এনেছে বৈপ্লবিক পরির্বতন। স্কুলের ক্যাম্পাসেই নতুন করে তৈরী করা হয়েছে শহীদ মিনার আর ফুলবাগান। শিশু শ্রেণীর কক্ষটি সাজানো হয়েছে নানা ধরনের খেলনা আর শিক্ষা উপকরণে। পুতুলের গলে প্লে কার্ডের মত করে বড় অক্ষরে আমি বড় হয়ে ডাক্তার হব,আমি ইঞ্জিনিয়ার হব,শিক্ষক, সাংবাদিক, পাইলটসহ শিশুমনে জাগা নানা স্বপ্নের কথা লিখে তাতে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। তুমি বড় হয়ে কি হতে চাও এমন প্রশ্নে শিশুরা পুতুলের কাছে গিয়ে তার মনের কথা জানান দিচ্ছে।
লাউয়াছড়ার ২৫ হাজার গাছ কর্তন নিয়ে তুলকালাম: জাতীয় উদ্যান লাউয়াছড়ার ২৫ হাজার গাছ কাটা না কাটা নিয়ে রেল ও বন বিভাগের চিঠি চালাচালি আর আইনি হুমকি ধমকিতে উত্তপ্ত ছিল উভয় বিভাগ। উভয় পক্ষের অনড় অবস্থান আর গাছ না কাটার পক্ষে স্থানীয় বাসিন্ধা ও পরিবেশবাদীদের কঠোর আন্দোলনের হুমকির প্রেক্ষিতে অবশেষে টনক নড়ে সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কতৃপক্ষের। রেলওয়ে মন্ত্রণালয় এবং পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের যৌথ বৈঠকে উভয় বিভাগে গাছ নিয়ে সৃষ্ট বয়ে চলা দ্বন্ধের স্থায়ী সমাধান হয়। আর এতে স্বস্তি আসে বন বিভাগ,স্থানীয় বাসিন্ধা ও পরিবেশবাদীদের। রেলওয়ে মন্ত্রণালয় এবং পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের যৌথ বৈঠকে এ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনার পর জাতীয় উদ্যানের ভেতর রেল লাইনের দুই পাশের ২৫ হাজার গাছ কাটার পরিকল্পনা স্থগিত করা হয়।
“শ্রীহট্ট” ইপিজেডে লুটপাট: প্রশাসনের সহায়তায় জালিয়াতির মাধ্যমে জায়গার দলিল ও পরচা বানিয়ে ভূয়া মালিক সেজে কোটি কোটি টাকা আত্মসাতে নামে একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেট। এই সিন্ডিকেটে আছেন স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তি,রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের দূর্নীতিবাজ কিছু কর্মকর্তা ও কর্মচারী। মৌলভীবাজার সদর উপজেলার শেরপুরের ‘শ্রীহট্ট” অর্থনৈতিক জোনের অধিগ্রহণকৃত ভূমির মূল্য বাবদ টাকা উত্তোলনের এমন গুরুত্বর অভিযোগ উঠেছে। প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধন পরপরই অধিগ্রহণকৃত ভূমি মালিকদের ভূমির মূল্য পরিশোধ করার জন্য ২শ’ ৯২ কোটি ৫ লক্ষ ৬৫ হাজার ৩৭ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। কিন্তু বরাদ্ধকৃত টাকা আত্মসাতে গজিয়ে উঠে একটি প্রতারক চক্র।
মনু প্রকল্প নিয়ে কৃষকদের আন্দোলন: শত কোটি টাকার মনু নদী প্রকল্প। উদ্দেশ্য জলাবদ্ধতা ও খরায় ফসলী কৃষি জমি রক্ষা। আর প্রয়োজনীয় সেচ সুবিধার মাধ্যমে নিবিড়তা বাড়িয়ে ফসলের উৎপাদন বৃদ্ধির। কিন্তু নানা কারণে পুরো প্রকল্পের কার্যক্রমই এখন আর উপকারে আসছেনা কৃষকদের। বর্ষায় জলাবদ্ধতা আর শীতকালে খরা। কৃষকদের দু:খ নিবারণে গড়ে উঠা নদীশাসনের এই প্রকল্পটি এখন যেন ফসল হানির মরণ ফাঁদ। এমন অভিযোগে প্রকল্পের আওতাধীন মৌলভীবাজার ও রাজনগর এই দু’উপজেলার ১১টি ইউনিয়নের উপকার ভোগী কৃষকরা বার স্বপ্ন ভঙ্গের কারণে নানা আন্দোলন কর্মসূচী নিয়ে মাঠে ছিলেন সরব।
দুই জলকন্যার সন্ধান: জলপ্রপাত দু’টিই আপন সুর্ন্দযে একে অপরকে ছাড়িয়ে। এই দুই জল সুন্দরীর কাছে পৌঁছাতে দুর্গম পাহাড়ী পথে মিলে পাহাড়ী টিলার পাদদেশে বয়ে চলা ছড়ার স্বচ্ছ শীতল পানি, সবুজ প্রকৃতি, বনফুল, চাষনী লেবুর সুবাস, পাখি ও ঝিঁঝিঁ পোকার ডাক। গন্তব্য পথে নানা অনিন্দ্য সুন্দর প্রকৃতির হাতছানি। এমন অপরুপ প্রকৃতির রুপ বৈচিত্র্যের আধার বড়লেখার পাথারিয়ার ফুল ঢালনী ঝেরঝেরী ও ইটাহরী ফুলবাগিচা জলপ্রপাত। গেল বছরই মিডিয়ার মাধ্যমে চাউর হয় এই দুই জলকন্যার পরিচিতি।
সড়ক দূর্ঘটনা: বছর জুড়ে ৭টি উপজেলায় প্রায় অর্ধশতাধিক সড়ক র্দূঘটনায় হতাহতের ঘটনায় শোকাতুর ছিলেন স্বজনরা। মৌলভীবাজারের মোকাম বাজার এলাকায় ২জন, কুলাউড়ার কলেজ শিক্ষক,রাজনগরের কলেজছাত্রী। চাটুরা এলাকায় ১জন, মহলাল এলাকায় আপন দুই ভাই সহ ৩ জন। রাজনগর ও মৌলভীবাজার পৃথক ২ স্থানে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হন প্রায় ৫০ জন। গোবিন্ধবাটি এলাকায় নিহত হন এক মাদ্রাসা শিক্ষক। আলোচিত এই দূর্ঘটনা ছাড়াও একাধীক দূর্ঘটনা জানান দেয় এ জেলার সড়কপথের বেহাল দশা আর সড়কপথের অব্যবস্থাপনা।
জঙ্গী বিরুধী সমাবেশ: হলি আর্টিসানের ঘটনার পর সারাদেশের মত সোচ্ছার ছিল মৌলভীবাজার। বিভিন্ন স্কুল,কলেজ,মাদ্রাসা আর ক্রীড়া সংগটন,সামাজিক,সাংস্কৃতিক,রাজনৈতিক ও পেশাজীবী সংগঠন জঙ্গী বিরুধী সমাবেশের মাধ্যে প্রতিবাদ জানায় ন্যাক্কারজনক কর্মকান্ডের। তাছাড়া মিয়ানমারের মুসলিম হত্যা,ধর্ষণ ও তাদের দেশ থেকে বিতাড়িত করে সম্পদলুট এমন বর্বর ও লোমহর্ষক ঘটনারও শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদের মাধ্যমে ধিক্কার জানায় সর্বস্তরের স্থানীয় জনগণ।
নির্বাচনে দেশের মধ্যে অন্যরকম দৃষ্টান্ত: জেলার ৬৬ টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর দ্বায়িত্বশীল ভূমিকায় দু’একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া কোন বড়ধরনের অপ্রীতিকর বা হতাহতের ঘটনা ঘটেনি যা ছিল দেশের মধ্যে ব্যতিক্রম।
রাবার আর আগর বাগানের দূর্দিন: সাদা সোনা রাবার আর আগর উৎপাদনের অন্যতম অঞ্চল হিসেবে খ্যাতি পাওয়া সুনামটি এখন আর ধরে রাখতে পারছেন বাগান মালিকরা। ক্রমাগত দরপতনসহ নানা সমস্যায় সাদা সোনা হিসেবে খ্যাতি পাওয়া রাবার শিল্পের যাচ্ছে দূর্দিন। আর পর্যাপ্ত গ্যাস ও বিদ্যুৎ সংকটে ব্যাহত হচ্ছে আগর উৎপাদন। গেল বছর থেকে আয় ব্যয়ের বিস্তর ফারাকে এখন অনেক বাগান মালিক কেটে ফেলতে বাধ্য হচ্ছেন রাবার গাছ আর বিমুখ হচ্ছেন নতুন আগর বাগান সৃজনে।
বৃটেনের বেক্রিটের প্রভাব এখানেও: বেক্রিটের আচঁড় লাগে মৌলভীবাজারেও। বেক্রিটের পর থেকে অনেকটা থমকে যায় স্থানীয় ব্যবসা, বাণিজ্য। পাউন্ড লেনদেনে প্রভাবও পড়ে স্থানীয় ব্যাংক ও র্কাব মার্কেটেও। গেল বছর মৌলভীবাজারের অধিকাংশ ইংল্যান্ড প্রবাসী ঈদ উপলক্ষে আসেননী দেশে। আর পাউন্ডের দরপতনে হঠাৎ করে রেমিটেন্স আসা কমে যায়। ইইউতে বৃটেনিদের থাকা না থাকা গণভোটের ফলাফলের পর ক্রমাগত পাউন্ডের দরপতনের প্রভাব পড়ে এখানেও।
ভারত বাংলাদেশ মৈত্রী সম্মেলন:দি মৌলভীবাজার চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্টিজের উদ্যোগে মৌলভীবাজার সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে জেলা পর্যায়ে দেশের মধ্যে এই প্রথম তিন দিনব্যাপী চলে বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রী উৎসব ও ব্যবসায়ী সম্মেলন। এতে অংশ নেন দু’দেশের এমপি, মন্ত্রী, ব্যবসায়ী,সাংবাদিক,কবি সাহিত্যিক শিল্পীসহ নানা অঙ্গনের স্বনামধন্য ব্যক্তিবর্গ। তিন দিনই ছিল আলোচনা আর দু’দেশের শিল্পিদের অংশগ্রহনে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।
খেলাধূলা: মৌলভীবাজার সদর পৌর সভার উদ্যোগে মেয়র কাপ ফুটবল টুর্ণামেন্ট মৌলভীবাজার সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় খেলার মাঠে বেশ উপভোগ্য ছিল দর্শকদের। আর কুলাউড়া সিপিএ এর উদ্যোগে ৮৬ দলের অংশগ্রহণে ক্রিকেট টুর্ণামেন্ট অনুপ্রাণিত করে ক্রিকেটারদের।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •