৫ম দফা ইউপি নির্বাচন কমলগঞ্জে প্রার্থী বাচাই নিয়ে আওয়ামীলীগে তোড়জোড়

April 18, 2016, এই সংবাদটি ১৩১ বার পঠিত

 

প্রনীত রঞ্জন দেবনাথ॥ নির্বাচন কমিশনের ঘোষণা অনুয়ায়ী ৫ম দফায় ২৮ মে কমলগঞ্জ উপজেলার ৯ ইউনিয়নের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এ নির্বাচনকে ঘিরে আওয়ামীলীগ প্রতিটি  ইউনিয়নের প্রার্থী বাছাই প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেছে। প্রার্থী বাচাই নিয়ে তৃণমুলে চলছে ব্যাপক তোড়জোড়। সম্ভাব্য প্রার্থীরা ইউনিয়ন, উপজেলা, জেলা ও কেন্দ্রীয় কমিটির কাছে লবিং করছেন নিজেদের নাম প্রার্থী তালিকায় চুড়ান্ত করতে। কমলগঞ্জের রহিমপুর ইউনিয়নকে ভিআইপি ইউনিয়ন বলা হয়ে থাকে । এই ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান হলেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ইফতেখার আহমদ বদরুল। তিনি মৌলভীবাজার জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাবেক চিফ হুইপ উপাধ্যক্ষ আব্দুস শহীদ এমপি ও কমলগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এম. মোসাদ্দেক আহমেদ মানিকের ছোট ভাই। তাই আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কমলগঞ্জ উপজেলার ১নং রহিমপুর ইউনিয়ন পরিষদে মর্যাদার লড়াইয়ের পাশাপাশি প্রেষ্টিজ ইস্যু মনে করছেন অনেকে। ইউপি নির্বাচনে এবারও তিনি প্রার্থী হচ্ছেন। তার সঙ্গে এখানে সম্ভাব্য প্রার্থী হলেন রহিমপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ও মুন্সীবাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি জুনেল আহমেদ তরফদার,  ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি অশোক বিজয় দেব কাজল, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি মরহুম সিরাজুল ইসলামের পুত্র সাজিম আহমদ তরফদার ও রহিমপুর ইউনিয়ন বিএনপির সাবেক সভাপতি সিপার আহমেদ তরফদার। নির্বাচনে দলীয় একাধিক প্রার্থী থাকায় নির্বাচনের আগেই নির্বাচনী মাঠ উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে। ১৩ই এপ্রিল বিকালে রহিমপুর ইউনিয়ন পরিষদে আওয়ামীলীগের দলীয় প্রার্থী নির্বাচনের বৈঠক বসে। প্রার্থী নির্বাচনী এ বৈঠকে উপজেলা আওয়ামীলীগ ও যুবলীগের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। অনেকেই মনে করেছিলেন অন্য কেউ দলীয় প্রার্থী হবেন না। কিন্তু ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি জুনেল আহমদ তরফদার প্রার্থী হওয়ায় বৈঠকে হট্টগোল দেখা দিলে বৈঠকটি মুলতবি করেন নেতৃবৃন্দ। এ বিষয়ে পরদিন ১৪ই এপ্রিল ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ বিষয়টি লিখিতভাবে উপজেলা, জেলা ও কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগকে অবহিত করেন। অপরদিকে দলীয় প্রার্থী বাছাইয়ে রহিমপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভায় হামলার প্রতিবাদে আওয়ামীলীগ সমর্থিত ৫টি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা ১৫ এপ্রিল  শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৪টা থেকে সাড়ে ৫টা পর্যন্ত কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সামনে ১ ঘণ্টা অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন। অবস্থান কর্মসূচিতে অংশ নেন ১নং রহিমপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ইফতেখার আহমেদ বদরুল, ৪নং শমসেরনগর ইউপি চেয়ারম্যান জুয়েল আহমেদ, ৬নং আলীনগর ইউপি চেয়ারম্যান ফজলুল হক বাদশা, ৭নং আদমপুর ইউপি চেয়ারম্যান সাব্বির আহমেদ ভুঁইয়া ও ৯নং ইউপি চেয়ারম্যান সোলেমান মিয়া। অবস্থান কর্মসূচিতে একাত্মতা ঘোষণা করে অংশ নেন উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি এম মোসাদ্দেক আহমেদ মানিক, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হারুন-অর রশীদ ভূঁইয়া, মুন্সিবাজার ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি ইকবাল আহমেদ চৌধুরী, ইসলামপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ফজলুল বক্ত প্রমুখ। এ সময় রহিমপুর ইউপি চেয়ারম্যান ইফতেখার আহমেদ বদরুল আওয়ামীলীগ নেতা জুনেলের নেতৃত্বে পরিষদ কার্যালয়ে হামলা চালিয়ে চেয়ার টেবিলসহ গুরুত্বপূর্ণ জিনিসপত্র তছনছ ও ভাঙচুর করার অভিযোগ করেন। তবে অভিযোগ অস্বীকার করে জুনেল তরফদার বলেন, দলীয় ফোরামে দলের প্রতীক ও প্রার্থিতা চাওয়ায় আমার বিরুদ্ধে নানা অপপ্রচার করা হচ্ছে। আমি দলীয় নেতৃবৃন্দের কাছে এ অপপ্রচারের বিচার চাই। স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতারা জানান, এ ইউনিয়নে দলীয় কোনো নেতা প্রার্থী হলে তার কপাল পুড়ে। করা হয় দল থেকে বহিষ্কার। নির্বাচনে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি অশোক বিজয় দেব কাজল প্রার্থী হলে তাকেও দল থেকে বহিষ্কার করা হয়। অনেক নেতা মনে করছেন, ১৩ এপ্রিলের ঘরোয়া বিষয়ের এ বিরোধ সড়কে নিয়ে দাঁড় করানো দলের জন্য বড় ক্ষতি হয়ে দেখা দেবে। যার প্রভাব পড়বে আগামী নির্বাচনে। তবে সর্বশেষ এ ইউনিয়নে প্রার্থিতায় চমক দেখাতে পারেন নেতৃমূল পর্যায়ে সমর্থন নিয়ে যে কেউ। এমন আভাস পাওয়া গেছে ভোটারদের সঙ্গে আলাপ করে। এছাড়া কমলগঞ্জ উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের তৃণমুলের প্রার্থী বাচাইয়ে আওয়ামীলীগের ইউনিয়ন পর্যায়ের তৃণমুলের সমর্থনে আলীনগর ইউনিয়নে ফজলুল হক বাদশা ও পতনবঊষার ইউনিয়নের ইঞ্জিনিয়ার তওফিক আহমদ বাবুকে একক প্রার্থী হিসেবে চুড়ান্ত করেছে দলটি। বাকী ৭টি ইউনিয়নে একাধিক প্রার্থী থাকায় বিষয়টি নিয়ে উপজেলা মনোনয়ন বোর্ডে আলোচনা করে কেন্দ্রীয় কমিটির কাছে পাঠানো হচ্ছে। কমলগঞ্জ উপজেলায় বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সঠিক প্রার্থী বাছাই না করলে বিদ্রোহী প্রার্থীর সংখ্যা যেমন বাড়বে তেমনি নির্বাচনের ফলাফলেও এর প্রভাব পড়বে বলে মনে করছেন দলীয় একটি সূত্র।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •