চুয়াডাঙ্গায় পুলিশ গুলিতে শিবির কর্মী হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল

October 13, 2013, এই সংবাদটি ৫৭৫ বার পঠিত

বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি মো. দেলাওয়ার হোসেনসহ গ্রেফতারকৃত ছাত্রশিবিরের সকল নেতাকর্মীর নি:শর্ত মুক্তির দাবিতে কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর অংশ হিসাবে গত ১০ অক্টোবর চুয়াডাঙ্গায় মিছিল পুলিশ গুলি করে রফিকুল ইসলামকে নিহত করে। পুলিশ অন্যায় ভাবে গুলি করে হত্যার প্রতিবাদে ১২ অক্টোবর দুপুরে দেশব্যাপী বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশের অংশ হিসাবে ছাত্রশিবির মৌলভীবাজার শহর বিক্ষোভ মিছিল করে। মিছিলটি পশ্চিম বাজার মাছের আরতং থেকে শুরু হয়ে শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে কুসুম বাগ শপিং সিটির সামনে সমাবেশের মাধ্যমে মিলিত হয়। সমাবেশে প্রধান অথিতি হিসাবে উপস্তিত ছিলেন বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের মৌলভীবাজার শহর সেক্রেটারী ফকরুর ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক মুর্শেদ আহমদ চৌধুরী, শহর অর্থ সম্পাদক আবু নোমান মুয়িন, স্কুল কার্যক্রম সম্পাদক ইকবাল আহমদ চৌধুরী, জেলা সাংস্কৃতিক সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন, আশিক আল রশিদ চৌধরী, আব্দুল মুমিত, আব্দুল করিম, হাজেফ নুরুল আলম খান প্রমুখ। সমাবেশে বক্তারা বলেন, পুলিশ অন্যায় ভাবে গুলি করে ইসলামী আন্দোলনকে বন্ধ করতে পারবে না। আওয়ামী বাকশাল সরকার ক্ষমতাকে দীর্ঘ স্থায়ী করার জন্য আদালতের ঘাড়ে বন্দুক রেখে দেশের সাধারণ মানুষকে হত্যা করেছে। আজ দেশের সর্বস্ত্রে অস্তিরতা বিরাজ করছে। আগামী ২৫ অক্টোবর নির্দলীয় সরকারের হতে ক্ষমতা হস্তান্তর করে দেশকে অরাজকতা থেকে রক্ষা করুন। অনতায় দেশের সাধারণ মানুষ আন্দোলনের মাধ্যমে ক্ষমতা থেকে টেনে হিছরে ক্ষমতা থেকে নামাবে বাধ্য করবে।
বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি মো. দেলাওয়ার হোসেনসহ গ্রেফতারকৃত ছাত্রশিবিরের সকল নেতাকর্মীর নি:শর্ত মুক্তির দাবিতে কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর অংশ হিসাবে গত ১০ অক্টোবর চুয়াডাঙ্গায় মিছিল পুলিশ গুলি করে রফিকুল ইসলামকে নিহত করে। পুলিশ অন্যায় ভাবে গুলি করে হত্যার প্রতিবাদে ১২ অক্টোবর দুপুরে দেশব্যাপী বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশের অংশ হিসাবে ছাত্রশিবির মৌলভীবাজার শহর বিক্ষোভ মিছিল করে। মিছিলটি পশ্চিম বাজার মাছের আরতং থেকে শুরু হয়ে শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে কুসুম বাগ শপিং সিটির সামনে সমাবেশের মাধ্যমে মিলিত হয়। সমাবেশে প্রধান অথিতি হিসাবে উপস্তিত ছিলেন বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের মৌলভীবাজার শহর সেক্রেটারী ফকরুর ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক মুর্শেদ আহমদ চৌধুরী, শহর অর্থ সম্পাদক আবু নোমান মুয়িন, স্কুল কার্যক্রম সম্পাদক ইকবাল আহমদ চৌধুরী, জেলা সাংস্কৃতিক সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন, আশিক আল রশিদ চৌধরী, আব্দুল মুমিত, আব্দুল করিম, হাজেফ নুরুল আলম খান প্রমুখ। সমাবেশে বক্তারা বলেন, পুলিশ অন্যায় ভাবে গুলি করে ইসলামী আন্দোলনকে বন্ধ করতে পারবে না। আওয়ামী বাকশাল সরকার ক্ষমতাকে দীর্ঘ স্থায়ী করার জন্য আদালতের ঘাড়ে বন্দুক রেখে দেশের সাধারণ মানুষকে হত্যা করেছে। আজ দেশের সর্বস্ত্রে অস্তিরতা বিরাজ করছে। আগামী ২৫ অক্টোবর নির্দলীয় সরকারের হতে ক্ষমতা হস্তান্তর করে দেশকে অরাজকতা থেকে রক্ষা করুন। অনতায় দেশের সাধারণ মানুষ আন্দোলনের মাধ্যমে ক্ষমতা থেকে টেনে হিছরে ক্ষমতা থেকে নামাবে বাধ্য করবে। স্টাফ রিপোর্টার॥

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •