মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে সবুজ ঘেরা পাহাড়ের উঁচু নিচু টিলায় পাঁচ তারকা হোটেলের প্রাথমিক যাত্রা

October 26, 2013, এই সংবাদটি ২৭৬ বার পঠিত

মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গলে চালু হয়েছে একটি আন্তর্জাতিক মানের পাঁচ তারকা হোটেল এ্যান্ড রিসোর্ট। এতে পর্যটনশিল্পের বিকাশে এ রিসোর্ট উল্লেখযোগ্য অবদান রাখবে। সবুজ ঘেরা পাহাড়ের উঁচু নিচু টিলায় নির্মিত এ রিসোর্টটি দেশে-বিদেশে জেলার পরিচিতি গড়ে তোলবে ।
মৌলভীবাজার জেলা শহর থেকে প্রায় ২২ কিলোমিটার দূরে শ্রীমঙ্গল-ভানুগাছ সড়কের পাশে রাধানগর পাহাড়ে চা-বাগান ও বনাঞ্চলের মনোমুগ্ধকর এক প্রাকৃতিক পরিবেশে আন্তর্জাতিক মানের বিলাসবহুল এ হোটেলের নাম গ্রান্ড সুলতান টি রিসোর্ট এ্যান্ড গলফ । ২শ ৩০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হচ্ছে এ রিসোট। এ এ রিসোর্টের বিনিয়োগ দেশের পর্যটনশিল্পের বিকাশে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখবে বলে জানান প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান।
২৫ অক্টোবর শুক্রবার বিকেল বিলাসবহুল ও রুচিশীল রিসোর্টের ‘নওমী মঞ্জিল’-এ আয়োজিত প্রাথমিক উদ্বোধন উপলক্ষে অয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান খাজা টিপু সুলতান জানান, আধুনিক সকল সুবিধাসহ ২,০০,০০০ বর্গফুট জায়গার ওপর গড়ে তোলা হয়েছে। প্রায় ১৪ একর জমির উপর এটি নির্মিত হয়েছে। নয় তলাবিশিষ্ট এ হোটেলে ২০টি প্রেসিডেন্সিয়াল স্যুটসহ ১৪৫টি অত্যাধুনিক কক্ষ রয়েছে। এর মাঝে ৪৫টি কিং সাইজ আর ৪৩ টি কুইন সাইজ বিছানাসমৃদ্ধ রুম রয়েছে। এতে রয়েছে একটি অসাধারণ নাইন হোল গলফ কোর্স। অন্যান্য খেলাধুলার মধ্যে রয়েছে লন টেনিস ও ব্যাডমিন্টন খেলার সুবিধা। ইনডোর গেম্সের মধ্যে রয়েছে বিলিয়ার্ড ও টেবিল টেনিসের সুযোগ। শিশুদের জন্য আলাদা খেলার জোনও রয়েছে রিসোর্টে। রিসোর্টে অ্যামিবা আকৃতির বিশাল সুইমিংপুলসহ সুনিয়ন্ত্রিত তাপমাত্রার সর্বমোট ৩টি সুইমিংপুল। দেশের প্রথম অতিথি আবাস হিসেবে রিসোর্টটিেিত থ্রি-ডি থিয়েটার রয়েছে উল্লেখ করে প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান জানান, ৪৪ জন একসঙ্গে বসে এই থিয়েটারে সিনেমা উপভোগ করতে পারবে। দেশের কোন আনন্দ নিবাসে প্রথম বারের মত সুবিশাল পাঠাগার সংযোজিত হয়েছে। রিসোর্টে রয়েছে, ১২০০ জনের সংকুলান সমৃদ্ধ ‘রোশনি মহল’ ও ৭৫০ জনের স্থান সংকুলান সুবিধা সমৃদ্ধ ‘নওমি মঞ্জিল’ নামের ব্যাংকোয়েট হল। রিসোর্টে রয়েছে ফোয়ারা ডাইন, শাহী ডাইন ও অরণ্য বিলাস নামের ৩৩০ আসন বিশিষ্ট ৫ তারকা মানের রেস্টুরেন্ট। রিসোর্টে আরো রয়েছে, গলফ পাহারিকা, পুল ডেক ও ক্যাফে মঙ্গল নামে তিনটি দুর্দান্ত ক্যাফে। কর্পোরেট অতিথিদের জন্য ভিন্ন মাত্রার সুবিধা রয়েছে বলে জানান রিসোর্টেও চেয়ারম্যান। তিনি জানান এতে রয়েছে তিনটি বিশালাকৃতির দৃষ্টিনন্দন রুচিশীল মিটিং কক্ষ। অত্যাধুনিক সুসজ্জিত জিমনেসিয়ামসহ রিসোর্টে রয়েছে স্পা, সনা, জ্যাকুজি ও মাসাজ পার্লারের ব্যবস্থা থাকবে। রিসোর্টের আয়ের একটি বড় অংশ আর্থ-মানবতার সেবায় দান করা হবে। সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন ম্যানেজিং ডিরেক্টর সোহেল হোসেন ইবনে বতুতা, টেকনিক্যাল ডিরেক্টর বি কে এস ইনান ও জেনারেল ম্যানেজার টনি খান। আগামী ডিসেম্বরে আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু করবে রিসোর্টটি।
পাঁচ তারকা এ হোটেলটি পর্যটন খাতে এ জেলায় বেসরকারি উদ্যোগে সবচেয়ে বড় বিনিয়োগ। এতে করে জেলায় পর্যটকদের আনাগুনা যেমন বৃদ্ধি পাবে তেমনি সরকারের বিপুল পরিমান রজস্ব আদায় হবে।
মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গলে চালু হয়েছে একটি আন্তর্জাতিক মানের পাঁচ তারকা হোটেল এ্যান্ড রিসোর্ট। এতে পর্যটনশিল্পের বিকাশে এ রিসোর্ট উল্লেখযোগ্য অবদান রাখবে। সবুজ ঘেরা পাহাড়ের উঁচু নিচু টিলায় নির্মিত এ রিসোর্টটি দেশে-বিদেশে জেলার পরিচিতি গড়ে তোলবে ।
মৌলভীবাজার জেলা শহর থেকে প্রায় ২২ কিলোমিটার দূরে শ্রীমঙ্গল-ভানুগাছ সড়কের পাশে রাধানগর পাহাড়ে চা-বাগান ও বনাঞ্চলের মনোমুগ্ধকর এক প্রাকৃতিক পরিবেশে আন্তর্জাতিক মানের বিলাসবহুল এ হোটেলের নাম গ্রান্ড সুলতান টি রিসোর্ট এ্যান্ড গলফ । ২শ ৩০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হচ্ছে এ রিসোট। এ এ রিসোর্টের বিনিয়োগ দেশের পর্যটনশিল্পের বিকাশে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখবে বলে জানান প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান।
২৫ অক্টোবর শুক্রবার বিকেল বিলাসবহুল ও রুচিশীল রিসোর্টের ‘নওমী মঞ্জিল’-এ আয়োজিত প্রাথমিক উদ্বোধন উপলক্ষে অয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান খাজা টিপু সুলতান জানান, আধুনিক সকল সুবিধাসহ ২,০০,০০০ বর্গফুট জায়গার ওপর গড়ে তোলা হয়েছে। প্রায় ১৪ একর জমির উপর এটি নির্মিত হয়েছে। নয় তলাবিশিষ্ট এ হোটেলে ২০টি প্রেসিডেন্সিয়াল স্যুটসহ ১৪৫টি অত্যাধুনিক কক্ষ রয়েছে। এর মাঝে ৪৫টি কিং সাইজ আর ৪৩ টি কুইন সাইজ বিছানাসমৃদ্ধ রুম রয়েছে। এতে রয়েছে একটি অসাধারণ নাইন হোল গলফ কোর্স। অন্যান্য খেলাধুলার মধ্যে রয়েছে লন টেনিস ও ব্যাডমিন্টন খেলার সুবিধা। ইনডোর গেম্সের মধ্যে রয়েছে বিলিয়ার্ড ও টেবিল টেনিসের সুযোগ। শিশুদের জন্য আলাদা খেলার জোনও রয়েছে রিসোর্টে। রিসোর্টে অ্যামিবা আকৃতির বিশাল সুইমিংপুলসহ সুনিয়ন্ত্রিত তাপমাত্রার সর্বমোট ৩টি সুইমিংপুল। দেশের প্রথম অতিথি আবাস হিসেবে রিসোর্টটিেিত থ্রি-ডি থিয়েটার রয়েছে উল্লেখ করে প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান জানান, ৪৪ জন একসঙ্গে বসে এই থিয়েটারে সিনেমা উপভোগ করতে পারবে। দেশের কোন আনন্দ নিবাসে প্রথম বারের মত সুবিশাল পাঠাগার সংযোজিত হয়েছে। রিসোর্টে রয়েছে, ১২০০ জনের সংকুলান সমৃদ্ধ ‘রোশনি মহল’ ও ৭৫০ জনের স্থান সংকুলান সুবিধা সমৃদ্ধ ‘নওমি মঞ্জিল’ নামের ব্যাংকোয়েট হল। রিসোর্টে রয়েছে ফোয়ারা ডাইন, শাহী ডাইন ও অরণ্য বিলাস নামের ৩৩০ আসন বিশিষ্ট ৫ তারকা মানের রেস্টুরেন্ট। রিসোর্টে আরো রয়েছে, গলফ পাহারিকা, পুল ডেক ও ক্যাফে মঙ্গল নামে তিনটি দুর্দান্ত ক্যাফে। কর্পোরেট অতিথিদের জন্য ভিন্ন মাত্রার সুবিধা রয়েছে বলে জানান রিসোর্টেও চেয়ারম্যান। তিনি জানান এতে রয়েছে তিনটি বিশালাকৃতির দৃষ্টিনন্দন রুচিশীল মিটিং কক্ষ। অত্যাধুনিক সুসজ্জিত জিমনেসিয়ামসহ রিসোর্টে রয়েছে স্পা, সনা, জ্যাকুজি ও মাসাজ পার্লারের ব্যবস্থা থাকবে। রিসোর্টের আয়ের একটি বড় অংশ আর্থ-মানবতার সেবায় দান করা হবে। সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন ম্যানেজিং ডিরেক্টর সোহেল হোসেন ইবনে বতুতা, টেকনিক্যাল ডিরেক্টর বি কে এস ইনান ও জেনারেল ম্যানেজার টনি খান। আগামী ডিসেম্বরে আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু করবে রিসোর্টটি।
পাঁচ তারকা এ হোটেলটি পর্যটন খাতে এ জেলায় বেসরকারি উদ্যোগে সবচেয়ে বড় বিনিয়োগ। এতে করে জেলায় পর্যটকদের আনাগুনা যেমন বৃদ্ধি পাবে তেমনি সরকারের বিপুল পরিমান রজস্ব আদায় হবে। স্টাফ রিপোর্টার॥

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •