কুলাউড়ায় প্রবাসী যুবক আজিজ হত্যার ঘটনায় ভাবী আটক

October 31, 2013, এই সংবাদটি ২৯৫ বার পঠিত

কুলাউড়ার ভাটেরা ইউনিয়নের মাইজগাও গ্রামের হাজী মোঃ আব্দুল হকের পুত্র সংযুক্ত আরব আমিরাত প্রবাসী আব্দুল আজিজ (২৪) হত্যাকান্ডের ঘটনায় জড়িত থাকার সম্পৃত্ততা থাকায় নিহতের আপন ভাবী শাহানা বেগমকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। ৩০ অক্টোবর বুধবার বিকেলে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (কুলাউড়া সার্কেল) আলমগীর হোসেন পিপিএম এর নেতৃত্বে কুলাউড়া থানা পুলিশ ভাটেরা গ্রামের মাইজগাও নিজ বাড়ি থেকে নিহতের ভাবী শাহান বেগম (৪৫) আটক করে থানায় নিয়ে আসেন। উল্লেখ্য, প্রবাসী আব্দুল আজিজকে ভাটেরা ইউনিয়নের বেড়কুড়ি গ্রামের মৃত আসিদ আলীর পুত্র মোঃ কাশেম মিয়া গত ২৭ সেপ্টেম্বর বিকেল সাড়ে ৪ টায় মোবাইল ফোনে ভাটেরা পুরান বাজারে ডেকে নেয় এবং এর পর থেকে আজিজ নিখোঁজ ছিলেন। নিখোঁজ হওয়ার ১৪ দিন পর গত ১০ অক্টোবর হাকালুকি হাওরে এক হাত বিহীন ও এসিড দিয়ে মূখ ঝলসানো এবং ইট ভর্তি বস্তা দিয়ে লাশ বাধা অবস্থায় পাওয়া যায়। ইতিপূর্বে এ ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে ভাটেরা ইউনিয়নের বেড়কুড়ি গ্রামের রহমত (২৮) ও পৌর শহরের সোনাপুর গ্রামের সিএনজি ড্রাইভার কয়েছ মিয়া (২৪) কে গত সপ্তাহে আটক করেছে পুলিশ।
কুলাউড়ার ভাটেরা ইউনিয়নের মাইজগাও গ্রামের হাজী মোঃ আব্দুল হকের পুত্র সংযুক্ত আরব আমিরাত প্রবাসী আব্দুল আজিজ (২৪) হত্যাকান্ডের ঘটনায় জড়িত থাকার সম্পৃত্ততা থাকায় নিহতের আপন ভাবী শাহানা বেগমকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। ৩০ অক্টোবর বুধবার বিকেলে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (কুলাউড়া সার্কেল) আলমগীর হোসেন পিপিএম এর নেতৃত্বে কুলাউড়া থানা পুলিশ ভাটেরা গ্রামের মাইজগাও নিজ বাড়ি থেকে নিহতের ভাবী শাহান বেগম (৪৫) আটক করে থানায় নিয়ে আসেন। উল্লেখ্য, প্রবাসী আব্দুল আজিজকে ভাটেরা ইউনিয়নের বেড়কুড়ি গ্রামের মৃত আসিদ আলীর পুত্র মোঃ কাশেম মিয়া গত ২৭ সেপ্টেম্বর বিকেল সাড়ে ৪ টায় মোবাইল ফোনে ভাটেরা পুরান বাজারে ডেকে নেয় এবং এর পর থেকে আজিজ নিখোঁজ ছিলেন। নিখোঁজ হওয়ার ১৪ দিন পর গত ১০ অক্টোবর হাকালুকি হাওরে এক হাত বিহীন ও এসিড দিয়ে মূখ ঝলসানো এবং ইট ভর্তি বস্তা দিয়ে লাশ বাধা অবস্থায় পাওয়া যায়। ইতিপূর্বে এ ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে ভাটেরা ইউনিয়নের বেড়কুড়ি গ্রামের রহমত (২৮) ও পৌর শহরের সোনাপুর গ্রামের সিএনজি ড্রাইভার কয়েছ মিয়া (২৪) কে গত সপ্তাহে আটক করেছে পুলিশ। এইচ ডি রুবেল॥

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •