জেলার মধ্যে মনোনয়ন সংগ্রহে সর্বোচ্চ সংখ্যা কুলাউড়ায়

November 19, 2013, এই সংবাদটি ১৭৪ বার পঠিত

আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জেলার মধ্যে সবচেয়ে বেশী মনোনয়নপত্র ক্রয় করেছেন মৌলভীবাজার-২(কুলাউড়া-কমলগঞ্জআংশিক) আসনের আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়নপ্রার্থীরা। এ আসনের দলীয় মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করে জমা দিয়েছেন ১৪ জন প্রার্থী। চা ও রাবার বাগান অধ্যূষিত এ আসনটির মোট ভোটারের সংখ্যা দুই লক্ষ একাশি হাজার ছিয়ানব্বই (২, ৮১, ০৯৬) জন। তন্মধ্যে পুরুষ ভোটারের সংখ্যা এক লক্ষ চল্লিশ হাজার আটাত্তর (১, ৪০, ০৭৮) জন ও মহিলা ভোটার ১ লক্ষ চল্লিশ তিনশত অষ্টাশি (১, ৪০, ৩৮৮) জন)। এর মধ্যে শুধু কুলাউড়া উপজেলায় ভোটারের সংখ্যা দুই লক্ষ একুশ হাজার একশত তিরাশি (২, ২১, ১৮৩) জন।নির্বাচনের দিনক্ষণ টিক না হল্ওে এ আসনের দলীয় মনোনয়নপত্র সংগ্রহের এমন প্রতিযোগিতায় কৌতুহলী করে তুলেছে দলীয় নেতা কর্মী ্ও ভোটারদের। এ আসনের জন্য দলীয় মনোনয়নপত্র কিনেছেন এমন অনেক অপরিচিত নেতার পরিচয় জানতে নিজ দলের নেতা র্কমীর্ওা খোজ খবর করে জানার চেষ্টা করছেন। তৃণমূলের নেতাকর্মীদের সাথে আলাপে জানা গেছে দলীয় মনোনয়নপত্র কিনে জমা দিয়েছেন এমন বেশ কয়েকজনপ্রার্থী সাধারণ ভোটারের কাছে তো বটেই এমনকি দলীয় নেতাকর্মীদের কাছে অচেনা। এসকল প্রার্থী কে কবে বা কোথায় দলের জন্য কি করেছেন সেটা কেউ বলতে পারেন না বলেও বিষ্ময় প্রকাশ করেছেন তৃণমূলের অনেক নেতা কর্মী। তাদের আশঙ্কা মনোনয়নপত্র কেনার যে হিড়িক পড়েছে কেন্দ্র থেকে চুড়ান্ত মনোনয়ন দেওয়ার সময় যদি তৃণমূলের মতামত উপেক্ষা করা হয় তা হলে নির্বাচনের ফলাফলে যে তুমুল ধ্বস নামবে এটা নিশ্চিত। একাধিক নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত মৌলভীবাজার-২ আসনের দলীয় মনোনয়নপত্র কেনার তালিকায় রয়েছেন সৈয়দা জেবুন্নেছা হক এমপি, পুলিশের সাবেক এআইজি সৈয়দ বজলুল করিম বিপিএম, এডভোকেট আতাউর রহমান শামীম, কুলাউড়া উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আসম কামরুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রেনু, অধ্যক্ষ আব্দুর রউফ, মৌলভীবাজারের পিপি আজাদুর রহমান, উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক, এ,কে,এম শফি আহমদ সলমান ,চিফ হুইপের ভাই মোসাদ্দেক হোসেন মানিক , যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী সাইফুল ইসলাম রহিম,কেন্দ্রীয় কৃষকলীগের সদস্য শফি আহমদ শফি,সাংবাদিক কামাল হাসান, উপজেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি আতাউর রহমান চৌধুরী ছুহেল । সবাই মনোনয়নপত্র পূরণ করে জমাও দিয়েছেন। আসন্ন নির্বাচনে মনোনয়ন পাওয়ার ক্ষেত্রে নিজ নিজ অবস্থানে তাঁরা আশাবাদী। তবে এ আসনে মনোনয়নপত্র কিনেন নি এ অঞ্চলে আওয়ামীলীগের তৃণমূলের নেতাকর্মীদের কাছে গ্রহনযোগ্য ও জনপ্রিয় বর্ষিয়ান রাজনীতিবীদ সাবেক এমপি, ডাকসুর সাবেক ভিপি ও আওয়ামীলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক, জাতীয় নেতা সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমদ। তাঁর ঘনিষ্টজনরা জানিয়েছেন আসন্ন জাতিয় র্নিবাচনে সব দলের অংশ গ্রহণ নিশ্চিত না হলে তিনি কোন বিতর্কিত নির্বাচনে অংশ নেবেন না।
আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জেলার মধ্যে সবচেয়ে বেশী মনোনয়নপত্র ক্রয় করেছেন মৌলভীবাজার-২(কুলাউড়া-কমলগঞ্জআংশিক) আসনের আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়নপ্রার্থীরা। এ আসনের দলীয় মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করে জমা দিয়েছেন ১৪ জন প্রার্থী। চা ও রাবার বাগান অধ্যূষিত এ আসনটির মোট ভোটারের সংখ্যা দুই লক্ষ একাশি হাজার ছিয়ানব্বই (২, ৮১, ০৯৬) জন। তন্মধ্যে পুরুষ ভোটারের সংখ্যা এক লক্ষ চল্লিশ হাজার আটাত্তর (১, ৪০, ০৭৮) জন ও মহিলা ভোটার ১ লক্ষ চল্লিশ তিনশত অষ্টাশি (১, ৪০, ৩৮৮) জন)। এর মধ্যে শুধু কুলাউড়া উপজেলায় ভোটারের সংখ্যা দুই লক্ষ একুশ হাজার একশত তিরাশি (২, ২১, ১৮৩) জন।নির্বাচনের দিনক্ষণ টিক না হল্ওে এ আসনের দলীয় মনোনয়নপত্র সংগ্রহের এমন প্রতিযোগিতায় কৌতুহলী করে তুলেছে দলীয় নেতা কর্মী ্ও ভোটারদের। এ আসনের জন্য দলীয় মনোনয়নপত্র কিনেছেন এমন অনেক অপরিচিত নেতার পরিচয় জানতে নিজ দলের নেতা র্কমীর্ওা খোজ খবর করে জানার চেষ্টা করছেন। তৃণমূলের নেতাকর্মীদের সাথে আলাপে জানা গেছে দলীয় মনোনয়নপত্র কিনে জমা দিয়েছেন এমন বেশ কয়েকজনপ্রার্থী সাধারণ ভোটারের কাছে তো বটেই এমনকি দলীয় নেতাকর্মীদের কাছে অচেনা। এসকল প্রার্থী কে কবে বা কোথায় দলের জন্য কি করেছেন সেটা কেউ বলতে পারেন না বলেও বিষ্ময় প্রকাশ করেছেন তৃণমূলের অনেক নেতা কর্মী। তাদের আশঙ্কা মনোনয়নপত্র কেনার যে হিড়িক পড়েছে কেন্দ্র থেকে চুড়ান্ত মনোনয়ন দেওয়ার সময় যদি তৃণমূলের মতামত উপেক্ষা করা হয় তা হলে নির্বাচনের ফলাফলে যে তুমুল ধ্বস নামবে এটা নিশ্চিত। একাধিক নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত মৌলভীবাজার-২ আসনের দলীয় মনোনয়নপত্র কেনার তালিকায় রয়েছেন সৈয়দা জেবুন্নেছা হক এমপি, পুলিশের সাবেক এআইজি সৈয়দ বজলুল করিম বিপিএম, এডভোকেট আতাউর রহমান শামীম, কুলাউড়া উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আসম কামরুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রেনু, অধ্যক্ষ আব্দুর রউফ, মৌলভীবাজারের পিপি আজাদুর রহমান, উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক, এ,কে,এম শফি আহমদ সলমান ,চিফ হুইপের ভাই মোসাদ্দেক হোসেন মানিক , যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী সাইফুল ইসলাম রহিম,কেন্দ্রীয় কৃষকলীগের সদস্য শফি আহমদ শফি,সাংবাদিক কামাল হাসান, উপজেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি আতাউর রহমান চৌধুরী ছুহেল । সবাই মনোনয়নপত্র পূরণ করে জমাও দিয়েছেন। আসন্ন নির্বাচনে মনোনয়ন পাওয়ার ক্ষেত্রে নিজ নিজ অবস্থানে তাঁরা আশাবাদী। তবে এ আসনে মনোনয়নপত্র কিনেন নি এ অঞ্চলে আওয়ামীলীগের তৃণমূলের নেতাকর্মীদের কাছে গ্রহনযোগ্য ও জনপ্রিয় বর্ষিয়ান রাজনীতিবীদ সাবেক এমপি, ডাকসুর সাবেক ভিপি ও আওয়ামীলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক, জাতীয় নেতা সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমদ। তাঁর ঘনিষ্টজনরা জানিয়েছেন আসন্ন জাতিয় র্নিবাচনে সব দলের অংশ গ্রহণ নিশ্চিত না হলে তিনি কোন বিতর্কিত নির্বাচনে অংশ নেবেন না। এম শাহজাহান আহমদ॥

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •