কমলগঞ্জের কালাছড়ায় সুইচ গেইট নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ

November 20, 2013, এই সংবাদটি ২২২ বার পঠিত

কমলগঞ্জ উপজেলার কালাছড়া উপ-প্রকল্পের অধীনে একটি রেগুলেটর ও দুটি সুইচ গেইট নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এব্যাপারে এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে এলজিইডি, মৌলভীবাজার এর নির্বাহী প্রকৌশলী বরাবরে অভিযোগ করা হয়েছে। জানা যায়, কমলগঞ্জ উপজেলার রহিমপুর ইউনিয়নের কালাছড়া উপ-প্রকল্পের অধীনে জাইকার অনুদানে ১ কোটি ৯৭ লাখ টাকা ব্যয়ে একটি রেগুলেটর ও দুটি সুইচ গেইট নির্মাণ হচ্ছে। উক্ত প্রকল্পের কাজে নি¤œমানের রড, পাথর ঢালাই মশলাতে সিমেন্টের পরিমাণ কম দেয়া হচ্ছে। এছড়া প্রকল্পের কাছে শীল বালু ব্যবহার করার কথা থাকলেও শীল বালু ব্যবহার করা হয়নি। নি¤œমানের কাজের ফলে ট্রাকচার গুলোর ভবিষ্যত নিয়ে সন্দিহান এলাকাবাসী। এ ব্যাপারে কালাছড়া পানি ব্যবস্থাপনা সমবায় সমিতি ও উপকারভোগী সদস্যদের পক্ষ থেকে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য এলজিইডি, মৌলভীবাজার এর নির্বাহী প্রকৌশলী বরাবরে লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। যার অনুলিপি বিভিন্ন উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে প্রদান করা হয়েছে। আলাপকালে কালাছড়া পানি ব্যবস্থাপনা সমবায় সমিতির সভাপতি জামাল চৌধুরী বলেন, নির্মাণ তদারকি কমিটি গঠন করা হলেও কমিটির সদস্যদেরকে না জানিয়ে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান জে এন্ড জেবি কনষ্ট্রাকশন নি¤œমানের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। এবিষয়ে সমিতির পক্ষ থেকে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে লিখিত ভাবে বিষয়টি অবহিত করেছি। নি¤œমানের কাজের অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান জে এন্ড জেবি কনষ্ট্রাকশন এর প্রোপাইটার বকশী জুবায়ের বলেন, ৩ টি সুইচ গেইটের মধ্যে ২ টি সম্পন্ন করেছেন। বৃষ্টির কারনে এ কাজে কিছুটা সময় লেগেছে তবে দ্রুত এ কাজ শেষ হবে। তিনি আরও বলেন, এলাকায় দুটি গ্রুপ থাকায় এ সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে। এলজিইডি, মৌলভীবাজার এর নির্বাহী প্রকৌশলী মো: নুর নবী বলেন, মাটি কাঠা নিয়ে লিখিত অভিযোগ পেয়ে সরজমিন গিয়ে দেখা যায় স্থানীয় দুটি গ্রুপের মধ্যে সমস্যার সৃষ্টি হওয়ায় অনিয়মের অভিযোগ হয়েছে। তিনি আরও বলেন, এ কাজে কোন ধরনের অনিয়ম করার সুযোগ নেই কারন এটা জাপানী সংস্থার কাজ।
কমলগঞ্জ উপজেলার কালাছড়া উপ-প্রকল্পের অধীনে একটি রেগুলেটর ও দুটি সুইচ গেইট নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এব্যাপারে এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে এলজিইডি, মৌলভীবাজার এর নির্বাহী প্রকৌশলী বরাবরে অভিযোগ করা হয়েছে। জানা যায়, কমলগঞ্জ উপজেলার রহিমপুর ইউনিয়নের কালাছড়া উপ-প্রকল্পের অধীনে জাইকার অনুদানে ১ কোটি ৯৭ লাখ টাকা ব্যয়ে একটি রেগুলেটর ও দুটি সুইচ গেইট নির্মাণ হচ্ছে। উক্ত প্রকল্পের কাজে নি¤œমানের রড, পাথর ঢালাই মশলাতে সিমেন্টের পরিমাণ কম দেয়া হচ্ছে। এছড়া প্রকল্পের কাছে শীল বালু ব্যবহার করার কথা থাকলেও শীল বালু ব্যবহার করা হয়নি। নি¤œমানের কাজের ফলে ট্রাকচার গুলোর ভবিষ্যত নিয়ে সন্দিহান এলাকাবাসী। এ ব্যাপারে কালাছড়া পানি ব্যবস্থাপনা সমবায় সমিতি ও উপকারভোগী সদস্যদের পক্ষ থেকে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য এলজিইডি, মৌলভীবাজার এর নির্বাহী প্রকৌশলী বরাবরে লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। যার অনুলিপি বিভিন্ন উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে প্রদান করা হয়েছে। আলাপকালে কালাছড়া পানি ব্যবস্থাপনা সমবায় সমিতির সভাপতি জামাল চৌধুরী বলেন, নির্মাণ তদারকি কমিটি গঠন করা হলেও কমিটির সদস্যদেরকে না জানিয়ে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান জে এন্ড জেবি কনষ্ট্রাকশন নি¤œমানের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। এবিষয়ে সমিতির পক্ষ থেকে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে লিখিত ভাবে বিষয়টি অবহিত করেছি। নি¤œমানের কাজের অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান জে এন্ড জেবি কনষ্ট্রাকশন এর প্রোপাইটার বকশী জুবায়ের বলেন, ৩ টি সুইচ গেইটের মধ্যে ২ টি সম্পন্ন করেছেন। বৃষ্টির কারনে এ কাজে কিছুটা সময় লেগেছে তবে দ্রুত এ কাজ শেষ হবে। তিনি আরও বলেন, এলাকায় দুটি গ্রুপ থাকায় এ সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে। এলজিইডি, মৌলভীবাজার এর নির্বাহী প্রকৌশলী মো: নুর নবী বলেন, মাটি কাঠা নিয়ে লিখিত অভিযোগ পেয়ে সরজমিন গিয়ে দেখা যায় স্থানীয় দুটি গ্রুপের মধ্যে সমস্যার সৃষ্টি হওয়ায় অনিয়মের অভিযোগ হয়েছে। তিনি আরও বলেন, এ কাজে কোন ধরনের অনিয়ম করার সুযোগ নেই কারন এটা জাপানী সংস্থার কাজ। কমলগঞ্জ প্রতিনিধি॥

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •