বিচারপতি এসকে সিনহার বাড়ীতে দুবৃত্তের আগুন ॥ জামায়াত নেতা সহ ৪ জন গ্রেফতার

December 17, 2013, এই সংবাদটি ১৮৭ বার পঠিত

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের আপিল বিভাগের জেষ্ঠ্যতম বিচারপতি এসকে সিন্হার গ্রামের বাড়ীতে আগুন দিয়েছে দুবৃত্তরা। গতকাল ১১ ডিসেম্বর বুধবার ভোর সাড়ে ৫টায় একদল দুবৃত্ত বিচারপতি এসকে সিন্হার গ্রামের বাড়ি কমলগঞ্জ উপজেলার আলীনগর ইউনিয়নের তিলকপুর গ্রামে। সংখ্যালঘু মণিপুরী অধ্যুষিত এলাকায় আতংক বিরাজ করছে। এ ঘটনার পর থেকে বিচারপতির বাড়িতে পুলিশী নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। জড়িত সন্দেহে পুলিশ এক জামায়াত নেতাকে গ্রেফতার করেছে। সহিংসতার আশঙ্কায় সারা দেশে গুরুত্বপূর্ণ স্থানে নিরাপত্তা জোরদার করলেও বিচারপতি সিনহার বাড়িতে আগাম পুলিশি নিরাপত্তা না থাকায় মণিপুরী সম্প্রদায় ও স্থানীয়দের মাঝে মিশ্রপ্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, দুর্বৃত্তরা ভোর সাড়ে ৫টায় তিনটি মোটর সাইকেল ও ১টি সিএনজি অটোরিক্সা যোগে এসে কেরোসিন ছিটিয়ে তার ঘরের বারান্দায় আগুন দেয়। এই সময় পথচারীরা চিৎকার দিলে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়। রাতে বসতঘরে একমাত্র অবস্থানরত বিচারপতির চাচী জানান, চিৎকার শুনে তিনি দ্রুত ঘুম থেকে উঠে এ অবস্থা দেখতে পান।
পাশের ঘরে বিচারপতি এসকে সিনহার ছোট ভাই নীলমনি সিংহ সহ অন্যান্য লোকজন সহকারে বালি, পানি দিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা হয়। এরই মধ্যে ফায়ার সার্ভিসের লোকজন ঘটনা স্থলে পৌছে। আগুনে বারান্দার দু’টি প্লাস্টিক চেয়ার পুড়ে গেছে। ৪টি কাঠের দরজা-জানালার অংশিক আগুনে পূড়ে যায়। মৌলভীবাজার পুলিশ সুপার তোফায়েল আহম্মদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। সকাল থেকে এলাকায় র্যাব ও পুলিশের টহল জোরদার করা হয়েছে। কমলগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ নীহার রঞ্জন নাথ বলেন, তিনি সংবাদ পেয়ে ভোরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। পুড়ে যাওয়া দু’টি প্লাস্টিক চেয়ার উদ্ধার করা হয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শী বিচারপতি এসকে সিনহার ছোট ভাই নীলমনি সিনহা জানান, ভোর ৫টা ৩০ মিনিটে তার স্ত্রী লক্ষী সিনহা প্রাত ভ্রমনের জন্য উঠে দেখতে পারেন অন্ধকারের মাঝে একদল লোক কেরোসিন ঢেলে আগুন লাগাচ্ছে। লক্ষী রানী চিৎকার দিলে বাড়ির ও আশপাশের বাড়ির লোকজন এগিয়ে আসার পূর্বেই দুর্বৃত্তরা তিনটি মোটার সাইকেল ও একটি সিএনজি অটোরিক্সায় দ্রুত কমলগঞ্জের দিকে পালিয়ে যায়। প্রত্যক্ষদর্শীরা দুর্বৃত্তদের কাউকে চিনতে পারেননি বলে জানান।
স্থানীয় লোকজন জানান, তবে কে বা কারা আগুন দিয়েছে তা কেউ বলতে না পারলেও জামায়াত-শিবির কর্মীরা নাশকতা সৃষ্টির জন্য এ ঘটনা ঘটাতে পারে বলে মনে করছেন স্থানীয় সচেতন মহল। ঘটনার সংবাদ পেয়ে মৌলভীবাজারের জেলা প্রশাসক মো: কামরুল হাসান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) প্রকাশ কান্তি চৌধুরী, কমলগঞ্জ ইউএনও মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম মিঞা, সহকারী পুলিশ সুপার মো: আশরাফুল ইসলাম, র্যাবের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা, উপজেলা আওয়ামীলীগ সম্পাদক অধ্যাপক রফিকুর রহমান প্রমুখ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।
এ ঘটনায় কমলগঞ্জ থানার এসআই জিয়াউর রহমান বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা কয়েকজনকে আসামী করে কমলগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন (মামলা নং ০৯, তাং ১১.১২.২০১৩)। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কমলগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) মো: বদরুল হাসান বুধবার দুপুরে কমলগঞ্জ পৌর এলাকার ভানুগাছ বাজার থেকে জামায়াত নেতা আবু তালেব (৪২) কে সন্দেজনকভাবে গ্রেফতার করা হয়েছে। আটক আবু তালেব জামায়াতের সহযোগি সংগঠন শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশনের কমলগঞ্জ উপজেলা শাখার সেক্রেটারী।
আলাপকালে কমলগঞ্জ থানার ওসি নীহার রঞ্জন নাথ জানান, বিচারপতি এসকে সিনহার বাড়িতে পুলিশী নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। আলামত হিসাবে জলন্ত প্লাস্টিকের চেয়ারের অংশ বিশেষ, দুর্বৃত্তদের ফেলে যাওয়া একটি কিরিজ ও কেরোসিনবহনকারী প্লাষ্টিকের পাত্রের ঢাকানা জব্দ করা হয়েছে। তবে জোর তদন্ত চলছে।
মৌলভীবাজারের পুলিশ সুপার তোফায়েল আহমদ জানান, রাতে এ এলাকায় টহল পুলিশ পাহারা ছিল। ভোরে টহল পুলিশ চলে যাওয়ার পর দুবৃত্তরা এই ঘটনা ঘটিয়েছে। পুলিশ এ ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। বিচারপতির বাড়িতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছেও বলে জানান তিনি। এ ব্যাপারে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় কয়েকজন সাংবাদিকদের জানান, আপিল বিভাগের একজন বিচারকের বাড়িতে পুলিশি পাহারা নেই এই বিষয়টি রহস্যজনক।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কমলগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) মো: বদরুল হাসান ১১ ডিসেম্বর বুধবার দুপুরে কমলগঞ্জ পৌর এলাকার ভানুগাছ বাজার থেকে জামায়াতের সহযোগি সংগঠন শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশন কমলগঞ্জ উপজেলা শাখার সভাপতি আবু তালেব (৪২) কে সন্দেজনকভাবে গ্রেফতার করা হয়েছে। সন্ধ্যা ৭টায় কমলগঞ্জ উপজেলার আদমপুর ইউনিয়নের কান্দিগাঁও গ্রামের জামায়াত শিবির কর্মী কামরুজ্জামান (৩৫) ও উত্তর তিলকপুর গ্রামের মো: ফখরুল ইসলাম (৪১) নামে দুই ব্যক্তিকে ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে গ্রেফতার করা হয়েছে।
সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় আলাপকালে কমলগঞ্জ থানার ওসি নীহার রঞ্জন নাথ জানান, বিচারপতি এস, কে, সিনহার বাড়িতে দুবৃত্তদের আগুন দেওয়ার ঘটনায় থানায় দায়েরকৃত মামলায় মোট ৩ ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। ঘটনার সাথে জড়িতদের খুঁজে বের করতে পুলিশী জোর অভিযান চলছে।

বিচারপতির বাড়িতে অগ্নি সংযোগের ঘটনায় ৪ আসামীর ৩ দিনের রিমান্ড বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার (এসকে সিনহা) গ্রামের বাড়িতে অগ্নি সংযোগ ঘটনায় গ্রেফতার হওয়া চার আসামীর ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত। ১২ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার বিকালে অগ্নি সংযোগ ঘটনায় গ্রেফতার হওয়া চার আসামী সাইফুর রহমান, আবু তালেব,কামরুজ্জামান ও ফখরুল ইসলামকে মৌলভীবাজারে হাকিম ঝলক রায়ের আদালতে তুলে মামলার বাদী এসআই জিয়াউর রহমান অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০ দিনের রিমান্ড প্রার্থনা করলে আদালত ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে। কমলগঞ্জ থানার এসআই চম্পক ধাম রিমান্ড মঞ্জুরের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন বিচারপতির বাড়িতে অগ্নি সংযোগের ঘটনায় অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য বের হয়েছে। অধিকতর তদন্তের স্বার্থে রিমান্ডে ধৃত আসামীদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের আপিল বিভাগের জেষ্ঠ্যতম বিচারপতি এসকে সিন্হার গ্রামের বাড়ীতে আগুন দিয়েছে দুবৃত্তরা। গতকাল ১১ ডিসেম্বর বুধবার ভোর সাড়ে ৫টায় একদল দুবৃত্ত বিচারপতি এসকে সিন্হার গ্রামের বাড়ি কমলগঞ্জ উপজেলার আলীনগর ইউনিয়নের তিলকপুর গ্রামে। সংখ্যালঘু মণিপুরী অধ্যুষিত এলাকায় আতংক বিরাজ করছে। এ ঘটনার পর থেকে বিচারপতির বাড়িতে পুলিশী নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। জড়িত সন্দেহে পুলিশ এক জামায়াত নেতাকে গ্রেফতার করেছে। সহিংসতার আশঙ্কায় সারা দেশে গুরুত্বপূর্ণ স্থানে নিরাপত্তা জোরদার করলেও বিচারপতি সিনহার বাড়িতে আগাম পুলিশি নিরাপত্তা না থাকায় মণিপুরী সম্প্রদায় ও স্থানীয়দের মাঝে মিশ্রপ্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, দুর্বৃত্তরা ভোর সাড়ে ৫টায় তিনটি মোটর সাইকেল ও ১টি সিএনজি অটোরিক্সা যোগে এসে কেরোসিন ছিটিয়ে তার ঘরের বারান্দায় আগুন দেয়। এই সময় পথচারীরা চিৎকার দিলে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়। রাতে বসতঘরে একমাত্র অবস্থানরত বিচারপতির চাচী জানান, চিৎকার শুনে তিনি দ্রুত ঘুম থেকে উঠে এ অবস্থা দেখতে পান।
পাশের ঘরে বিচারপতি এসকে সিনহার ছোট ভাই নীলমনি সিংহ সহ অন্যান্য লোকজন সহকারে বালি, পানি দিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা হয়। এরই মধ্যে ফায়ার সার্ভিসের লোকজন ঘটনা স্থলে পৌছে। আগুনে বারান্দার দু’টি প্লাস্টিক চেয়ার পুড়ে গেছে। ৪টি কাঠের দরজা-জানালার অংশিক আগুনে পূড়ে যায়। মৌলভীবাজার পুলিশ সুপার তোফায়েল আহম্মদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। সকাল থেকে এলাকায় র্যাব ও পুলিশের টহল জোরদার করা হয়েছে। কমলগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ নীহার রঞ্জন নাথ বলেন, তিনি সংবাদ পেয়ে ভোরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। পুড়ে যাওয়া দু’টি প্লাস্টিক চেয়ার উদ্ধার করা হয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শী বিচারপতি এসকে সিনহার ছোট ভাই নীলমনি সিনহা জানান, ভোর ৫টা ৩০ মিনিটে তার স্ত্রী লক্ষী সিনহা প্রাত ভ্রমনের জন্য উঠে দেখতে পারেন অন্ধকারের মাঝে একদল লোক কেরোসিন ঢেলে আগুন লাগাচ্ছে। লক্ষী রানী চিৎকার দিলে বাড়ির ও আশপাশের বাড়ির লোকজন এগিয়ে আসার পূর্বেই দুর্বৃত্তরা তিনটি মোটার সাইকেল ও একটি সিএনজি অটোরিক্সায় দ্রুত কমলগঞ্জের দিকে পালিয়ে যায়। প্রত্যক্ষদর্শীরা দুর্বৃত্তদের কাউকে চিনতে পারেননি বলে জানান।
স্থানীয় লোকজন জানান, তবে কে বা কারা আগুন দিয়েছে তা কেউ বলতে না পারলেও জামায়াত-শিবির কর্মীরা নাশকতা সৃষ্টির জন্য এ ঘটনা ঘটাতে পারে বলে মনে করছেন স্থানীয় সচেতন মহল। ঘটনার সংবাদ পেয়ে মৌলভীবাজারের জেলা প্রশাসক মো: কামরুল হাসান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) প্রকাশ কান্তি চৌধুরী, কমলগঞ্জ ইউএনও মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম মিঞা, সহকারী পুলিশ সুপার মো: আশরাফুল ইসলাম, র্যাবের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা, উপজেলা আওয়ামীলীগ সম্পাদক অধ্যাপক রফিকুর রহমান প্রমুখ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।
এ ঘটনায় কমলগঞ্জ থানার এসআই জিয়াউর রহমান বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা কয়েকজনকে আসামী করে কমলগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন (মামলা নং ০৯, তাং ১১.১২.২০১৩)। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কমলগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) মো: বদরুল হাসান বুধবার দুপুরে কমলগঞ্জ পৌর এলাকার ভানুগাছ বাজার থেকে জামায়াত নেতা আবু তালেব (৪২) কে সন্দেজনকভাবে গ্রেফতার করা হয়েছে। আটক আবু তালেব জামায়াতের সহযোগি সংগঠন শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশনের কমলগঞ্জ উপজেলা শাখার সেক্রেটারী।
আলাপকালে কমলগঞ্জ থানার ওসি নীহার রঞ্জন নাথ জানান, বিচারপতি এসকে সিনহার বাড়িতে পুলিশী নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। আলামত হিসাবে জলন্ত প্লাস্টিকের চেয়ারের অংশ বিশেষ, দুর্বৃত্তদের ফেলে যাওয়া একটি কিরিজ ও কেরোসিনবহনকারী প্লাষ্টিকের পাত্রের ঢাকানা জব্দ করা হয়েছে। তবে জোর তদন্ত চলছে।
মৌলভীবাজারের পুলিশ সুপার তোফায়েল আহমদ জানান, রাতে এ এলাকায় টহল পুলিশ পাহারা ছিল। ভোরে টহল পুলিশ চলে যাওয়ার পর দুবৃত্তরা এই ঘটনা ঘটিয়েছে। পুলিশ এ ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। বিচারপতির বাড়িতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছেও বলে জানান তিনি। এ ব্যাপারে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় কয়েকজন সাংবাদিকদের জানান, আপিল বিভাগের একজন বিচারকের বাড়িতে পুলিশি পাহারা নেই এই বিষয়টি রহস্যজনক।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কমলগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) মো: বদরুল হাসান ১১ ডিসেম্বর বুধবার দুপুরে কমলগঞ্জ পৌর এলাকার ভানুগাছ বাজার থেকে জামায়াতের সহযোগি সংগঠন শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশন কমলগঞ্জ উপজেলা শাখার সভাপতি আবু তালেব (৪২) কে সন্দেজনকভাবে গ্রেফতার করা হয়েছে। সন্ধ্যা ৭টায় কমলগঞ্জ উপজেলার আদমপুর ইউনিয়নের কান্দিগাঁও গ্রামের জামায়াত শিবির কর্মী কামরুজ্জামান (৩৫) ও উত্তর তিলকপুর গ্রামের মো: ফখরুল ইসলাম (৪১) নামে দুই ব্যক্তিকে ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে গ্রেফতার করা হয়েছে।
সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় আলাপকালে কমলগঞ্জ থানার ওসি নীহার রঞ্জন নাথ জানান, বিচারপতি এস, কে, সিনহার বাড়িতে দুবৃত্তদের আগুন দেওয়ার ঘটনায় থানায় দায়েরকৃত মামলায় মোট ৩ ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। ঘটনার সাথে জড়িতদের খুঁজে বের করতে পুলিশী জোর অভিযান চলছে।

বিচারপতির বাড়িতে অগ্নি সংযোগের ঘটনায় ৪ আসামীর ৩ দিনের রিমান্ড বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার (এসকে সিনহা) গ্রামের বাড়িতে অগ্নি সংযোগ ঘটনায় গ্রেফতার হওয়া চার আসামীর ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত। ১২ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার বিকালে অগ্নি সংযোগ ঘটনায় গ্রেফতার হওয়া চার আসামী সাইফুর রহমান, আবু তালেব,কামরুজ্জামান ও ফখরুল ইসলামকে মৌলভীবাজারে হাকিম ঝলক রায়ের আদালতে তুলে মামলার বাদী এসআই জিয়াউর রহমান অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০ দিনের রিমান্ড প্রার্থনা করলে আদালত ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে। কমলগঞ্জ থানার এসআই চম্পক ধাম রিমান্ড মঞ্জুরের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন বিচারপতির বাড়িতে অগ্নি সংযোগের ঘটনায় অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য বের হয়েছে। অধিকতর তদন্তের স্বার্থে রিমান্ডে ধৃত আসামীদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। স্টাফ রিপোর্টার॥

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •