কুলাউড়ার শরীফপুর সীমান্তে বিজিবি-বিএসএফ বৈঠক

December 17, 2013, এই সংবাদটি ৩৯৭ বার পঠিত

মৌলভীবাজার জেলার কুলাউড়া উপজেলার শরীফপুর সীমান্তে বিজিবি-বিএসএফ পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১৪ ডিসেম্বর শনিবার সকাল ১১টায় শরীফপুর সীমান্তের চাতলাপুর কাস্টম পয়েন্টে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশের পক্ষে বৈঠকে নেতৃত্ব দেন ৪১ বিজিবি’র চাতলাপুর কমান্ডিং অফিসার সুবেদার মোহাম্মদ আলী, সহকারী কমান্ডিং অফিসার নায়েব সুবেদার আব্দুল মালেক এবং ভারতের পক্ষে বিএসএফ এর কমান্ডিং অফিসার দিনেশ কুমার। বিজিবি কর্তৃপক্ষ জানায়, উভয় দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর মধ্যে সম্পর্কের দৃঢ় বন্ধন তৈরী ও পারস্পরিক সৌহার্দ্য বৃদ্ধির লক্ষ্যেই বৈঠক করা হয়েছে। এ ছাড়া সীমান্তবর্তী শরিফপুর ইউনিয়নের সঞ্জবপুরের বেরীরপার গ্রামের ইয়াকুব আলীর ছেলে মাজিদ আলী (৪৫) ও আব্দুর রহিমের ছেলে নজর আলী (৩৫) গত ১৩ ডিসেম্বর শুক্রবার থেকে নিখোঁজ থাকায় তাদের পরিবারের সদস্যদের আবেদনের প্রেক্ষিতে বিজিবি-বিএসএফকে চিঠি দিয়েছে। বিএসএফ এর পক্ষ থেকে বলা হয়েছে দুই বাংলাদেশী নিহতের বিষয় তারা কিছুই জানেন না। দুই বাংলাদেশী নাগরিক ভারতীয় গ্রামবাসীর গনপিটুনিতে নিহত হয়েছে বলে কিছু ইলেকট্রনিক্স ও প্রিন্ট মিডিয়ায় যে খবর প্রকাশিত হয়েছে তা উভয় দেশের বিজিবি ও বিএসএফ এর সত্যতা জানেন না। বিএসএফ সভায় বলেছে তাদের নাম ঠিকানা পেয়েছি খোঁজ খবর নিয়ে তথ্য পেলে জানাবো। অপর দিকে শরীফপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তোফাজ্জুল হোসেন চিনু মিয়া জানান. শরিফপুরের দুই বাংলাদেশী মাজিদ আলী ও আব্দুর রহিম নিখোঁজের কথা তার পরিবারের সদস্যরা তাকে জানান তবে তিনি তাদের নিহতের ঘটনা কিছুই জানেন না। ঘন্টাব্যাপী বৈঠকে বিজিবি এবং বিএসএফ এর পারস্পরিক সম্পর্ক উন্নয়ন বিষয়ে মতবিনিময় করা হয়।
মৌলভীবাজার জেলার কুলাউড়া উপজেলার শরীফপুর সীমান্তে বিজিবি-বিএসএফ পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১৪ ডিসেম্বর শনিবার সকাল ১১টায় শরীফপুর সীমান্তের চাতলাপুর কাস্টম পয়েন্টে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশের পক্ষে বৈঠকে নেতৃত্ব দেন ৪১ বিজিবি’র চাতলাপুর কমান্ডিং অফিসার সুবেদার মোহাম্মদ আলী, সহকারী কমান্ডিং অফিসার নায়েব সুবেদার আব্দুল মালেক এবং ভারতের পক্ষে বিএসএফ এর কমান্ডিং অফিসার দিনেশ কুমার। বিজিবি কর্তৃপক্ষ জানায়, উভয় দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর মধ্যে সম্পর্কের দৃঢ় বন্ধন তৈরী ও পারস্পরিক সৌহার্দ্য বৃদ্ধির লক্ষ্যেই বৈঠক করা হয়েছে। এ ছাড়া সীমান্তবর্তী শরিফপুর ইউনিয়নের সঞ্জবপুরের বেরীরপার গ্রামের ইয়াকুব আলীর ছেলে মাজিদ আলী (৪৫) ও আব্দুর রহিমের ছেলে নজর আলী (৩৫) গত ১৩ ডিসেম্বর শুক্রবার থেকে নিখোঁজ থাকায় তাদের পরিবারের সদস্যদের আবেদনের প্রেক্ষিতে বিজিবি-বিএসএফকে চিঠি দিয়েছে। বিএসএফ এর পক্ষ থেকে বলা হয়েছে দুই বাংলাদেশী নিহতের বিষয় তারা কিছুই জানেন না। দুই বাংলাদেশী নাগরিক ভারতীয় গ্রামবাসীর গনপিটুনিতে নিহত হয়েছে বলে কিছু ইলেকট্রনিক্স ও প্রিন্ট মিডিয়ায় যে খবর প্রকাশিত হয়েছে তা উভয় দেশের বিজিবি ও বিএসএফ এর সত্যতা জানেন না। বিএসএফ সভায় বলেছে তাদের নাম ঠিকানা পেয়েছি খোঁজ খবর নিয়ে তথ্য পেলে জানাবো। অপর দিকে শরীফপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তোফাজ্জুল হোসেন চিনু মিয়া জানান. শরিফপুরের দুই বাংলাদেশী মাজিদ আলী ও আব্দুর রহিম নিখোঁজের কথা তার পরিবারের সদস্যরা তাকে জানান তবে তিনি তাদের নিহতের ঘটনা কিছুই জানেন না। ঘন্টাব্যাপী বৈঠকে বিজিবি এবং বিএসএফ এর পারস্পরিক সম্পর্ক উন্নয়ন বিষয়ে মতবিনিময় করা হয়। কুলাউড়া অফিস॥

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •