কমলগঞ্জে একই রাতে ৩টি টান্সফরমার চুরি ৪০ একর জমি বোরো আবাদ চাষ থেকে কৃষকরা বঞ্চিত

January 4, 2014, এই সংবাদটি ১,২৫০ বার পঠিত

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে বোরো ক্ষেতের উপর বিদ্যুতিক খুঁটি থেকে ১০ কেভি ৩টি টান্সফরমার চুরি হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে ৩ জানুয়ারী শুক্রবার ভোরে উপজেলার আদমপুর ইউনিয়নের হোমেরজান-পূর্ব তিলকপুর গ্রামে। জানা যায়, হোমেরজান-পূর্বতিলকপুর গ্রামসহ আদমপুর ইউনিয়নের অনেক গ্রামের এলাকাবাসীরা বোরো চাষের জন্য বহু আবেদন নিবেদন করে বিদ্যুৎ পান। বোরো চাষের জন্য সেচ ব্যবহার করে কৃষকরা হালচাষ করে বীজ তলা রোপণের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেলেন। শুক্রবার ভোরে সিন্ডেকেট চোরেরা জমিনে বিদ্যুতিক খুঁটি থেকে ১০ কেভি ৩টি টান্সফরমার চুরি করে নিয়ে যায়। টান্সফরাম চুরির ফলে এলাকাবাসীরা অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। আসিদ আলী, রসিদ মিয়া, মকবুল আলী, জহির মিয়াসহ একাধিক কৃষক জানান, বিদ্যুতিক টান্সফরমার এর মাধ্যমে পাম্প দিয়ে জমিতে সেচ ব্যবহার করা হয়েছে। শুক্রবার ভোরে টান্সফরাম চুরি হওয়ার ফলে এই এলাকায়র প্রায় ৪০ একর জায়গা বোরো চাষ থেকে বঞ্চিত হবে। কৃষকের অনেক টাকা গচ্ছা গেছে। এমনিতে বহু আবেদন নিবেদন করে টান্সফরাম পাওয়া গেছে। এখন চুরি হওয়াতে শত শত কৃষক দুঃশ্চিন্তায় মধ্যে রয়েছেন। এ ব্যাপারে মৌলভীবাজার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কমলগঞ্জ জোনাল অফিসের ডিজিএম প্রকৌশলী এস, এম হাসনাত হাসান জানান, বিষয়টি তিনি শুনেনি। খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে বোরো ক্ষেতের উপর বিদ্যুতিক খুঁটি থেকে ১০ কেভি ৩টি টান্সফরমার চুরি হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে ৩ জানুয়ারী শুক্রবার ভোরে উপজেলার আদমপুর ইউনিয়নের হোমেরজান-পূর্ব তিলকপুর গ্রামে। জানা যায়, হোমেরজান-পূর্বতিলকপুর গ্রামসহ আদমপুর ইউনিয়নের অনেক গ্রামের এলাকাবাসীরা বোরো চাষের জন্য বহু আবেদন নিবেদন করে বিদ্যুৎ পান। বোরো চাষের জন্য সেচ ব্যবহার করে কৃষকরা হালচাষ করে বীজ তলা রোপণের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেলেন। শুক্রবার ভোরে সিন্ডেকেট চোরেরা জমিনে বিদ্যুতিক খুঁটি থেকে ১০ কেভি ৩টি টান্সফরমার চুরি করে নিয়ে যায়। টান্সফরাম চুরির ফলে এলাকাবাসীরা অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। আসিদ আলী, রসিদ মিয়া, মকবুল আলী, জহির মিয়াসহ একাধিক কৃষক জানান, বিদ্যুতিক টান্সফরমার এর মাধ্যমে পাম্প দিয়ে জমিতে সেচ ব্যবহার করা হয়েছে। শুক্রবার ভোরে টান্সফরাম চুরি হওয়ার ফলে এই এলাকায়র প্রায় ৪০ একর জায়গা বোরো চাষ থেকে বঞ্চিত হবে। কৃষকের অনেক টাকা গচ্ছা গেছে। এমনিতে বহু আবেদন নিবেদন করে টান্সফরাম পাওয়া গেছে। এখন চুরি হওয়াতে শত শত কৃষক দুঃশ্চিন্তায় মধ্যে রয়েছেন। এ ব্যাপারে মৌলভীবাজার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কমলগঞ্জ জোনাল অফিসের ডিজিএম প্রকৌশলী এস, এম হাসনাত হাসান জানান, বিষয়টি তিনি শুনেনি। খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। à¦•à¦®à¦²à¦—ঞ্জ প্রতিনিধি॥

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •