বড়লেখার দশ ইউপির নির্বাচন আজ, সকালে ব্যালট যাচ্ছে কেন্দ্রে অবাধ ও সুষ্ঠু ভোটগ্রহণের প্রস্তুতি সম্পন্ন

November 27, 2021, এই সংবাদটি ৭৯ বার পঠিত

আব্দুর রব॥ বড়লেখায় তৃতীয় ধাপে আজ রোববার উপজেলার ১০ ইউনিয়নের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এরমধ্যে শুধুমাত্র বড়লেখা সদর ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হচ্ছে ইভিএমে (ইলেক্ট্রনিক্স ভোটিং মেশিন)। অবাধ, সুষ্ঠু, শান্তিপূর্ণ ও নিরপেক্ষ ভোটগ্রহণের লক্ষে সবধরণের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে উপজেলা প্রশাসন ও নির্বাচন কমিশন। ব্যালট পেপারের নিরাপত্তা রক্ষায় ভোটের দিন সকালে একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে প্রতিটি কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসারের নিকট ব্যালট পেপার পৌঁছে দিবেন সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং অফিসার।
২৭ নভেম্বর শনিবার বিকেল পর্যন্ত ভোটগ্রহণের অন্যান্য সরঞ্জাম ৯২টি ভোট কেন্দ্রের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। ভোটকেন্দ্রের আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় নেওয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা। মোতায়েন করা হয়েছে পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবিসহ বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিনিধি। এছাড়াও ভোটকেন্দ্রের নিরাপত্তায় আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে সার্বক্ষণিক দিক নির্দেশনা প্রদানে মাঠে থাকছেন চারজন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ও পাঁচজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।
এদিকে ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে উপজেলা জুড়ে উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করলেও পাশাপাশি ভোট সুষ্ঠু হবে কিনা তা নিয়েও স্বতন্ত্র প্রার্থীদের ও সাধারণ ভোটারদের মাঝে সংশয় রয়েছে। কেন্দ্রে সুষ্টু ও নিরপেক্ষ ভোটগ্রহণের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে নির্বাচনের দায়িত্বপ্রাপ্ত সকল পুলিশ সদস্যদের বিশেষ বিফ্রিং দিয়েছেন জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জাকারিয়া। থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. জাহাঙ্গীর হোসেন সরদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত নির্বাচনী বিফ্রিংয়ে নির্দেশনামুলক বক্তব্য রাখেন উর্ধতন পুলিশ কর্মকর্তারা।
উপজেলা নির্বাচন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার ১০ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৪৪ জন ও সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে ৯০ জন ও সাধারণ সদস্য পদে ৩৬১ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। ১০ ইউনিয়নের মোট ভোটার সংখ্যা ১,৬৭,৭৮৬। এরমধ্যে পুরুষ ভোটার ৮৩,৯৮৭ ও নারী ভোটার ৮৩,৭৯৯ জন।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার খন্দকার মুদাচ্ছির বিন আলী জানান, ব্যালট পেপারের নিরাপত্তার জন্য নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনায় প্রত্যেক কেন্দ্রে রোববার সকালে ব্যালট পেপার পাঠানো হবে। ১০ ইউনিয়নের ৯২টি ভোটকেন্দ্রকে সাধারণ, ঝুঁকিপুর্ণ ও অতিঝুঁকিপূর্ণ এই তিন শ্রেণীতে ভাগ করে নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী স্টাইকিং ফোর্সের নেতৃত্বে চারজন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, পাঁচজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সার্বক্ষণিক মাঠে থাকবেন। এছাড়াও ইউএনও, দুইজন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ও জেলা প্রশাসকের নজরদারী ও ঝটিকা পরিদর্শণ অব্যাহত থাকবে।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •