শ্রীমঙ্গলে তিন বাসায় চেতনানাশক প্রয়োগে চুরির ঘটনায় দুই আসামি রিমান্ডে

May 18, 2021, এই সংবাদটি ১৩৫ বার পঠিত

শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি॥ শ্রীমঙ্গল উপজেলা শহরের শ্যামলী আবাসিক এলাকায় মোবাইল ব্যবসায়ী খালেদ হোসেন এর বাসাসহ আরো দু’তিনটি বাসায় চেতনানাশক ওষুধ খাইয়ে ১৬ জনকে অজ্ঞান করে চুরির ঘটনায় গ্রেফতারকৃত ৭ আসামীর মধ্যে দুই আসামিকে রিমান্ডে আনা হয়েছে।
পুলিশের এসআই মুখলেছুর রহমান লস্কর বলেন,গত ৩ ফেব্রুয়ারি দিবাগত রাতে চেতনানাশক ঔষধ ব্যবহারকরে চোর চক্রের সদস্যরা মামলার বাদী খালেদ আহমদসহ আরও কয়েকটি পরিবারে খাবারের সাথে কৌশলে চেতনানাশক ওষুধ মিশিয়ে নগদ অর্থ ও স্বর্ণালংকার নিয়ে যায়। এতে ১৬ জন অচেতন হয়ে আহত হয়। পরে আহতদের স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসা করে সুস্থ করা হয়। পর দিন ৫ জানুয়ারি তারিখে খালেদা আহমদ বাদী হয়ে শ্রীমঙ্গল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।
উক্ত মামলার প্রেক্ষিতে এ পর্যন্ত ৭ আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে,এর মধ্যে এক আসামী ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিতে ঘটনার সাথে অপর দুই আসামির নাম স্বীকার করেন, পরে তাদের রিমান্ডের জন্য আদালতে আবেদন করলে আদালত তাদের এক দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। আসামিরা হলেন ইফতেখার আহমদ ফরহাদ (২৪) পিতা আব্দুস সালাম রাজা মিয়া,পূর্ব শ্রীমঙ্গল, অপর আসামী সাইফুর রহমান মান্না (২৩) পিতা আব্দুর রহমান সাং কালাছরা, থানা বিজয় নগর, জেলা বি-বাড়ীয়া।
মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই মুখলেছুর রহমান লস্কর বলেন, বিজ্ঞ আদালতের কাছে রিমান্ডের আবেদন করলে আদালত এক দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। তাদের স্বীকারোক্তিতে রোববার ৬ মে বিকালে ঘটনাস্থলে তাদেরকে নিয়ে ঘটনা কিভাবে সংঘটিত করেছে তা জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় এবং চেতনানাশক ঔষধ ব্যবহার কিভাবে করা হয় তাও জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। তারা ঘটনার বর্ণনা দেন।
এ সময় বাসার বিভিন্ন দিক ঘুরিয়ে আটককৃতরা কিভাবে চুরির ঘটনা সংঘটিত করেছে বিস্তারিত বর্ণনা দেন বলে পুলিশ সূত্রে জানা যায়।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আশরাফুজ্জামান। এ ছাড়াও শ্রীমঙ্গল থানার পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশন) নয়ন কারকুন, এসআই আলামিন, এসআই আলমগীর, এস আই প্রদীপ, এসআই জাকারিয়া, এস আই দুর্জয় সরকার, এএসআই নজরুল, এসআই জাকির,এসআই তিথঙ্কর, সহ পুলিশের একটি টিম।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •