শ্রীমঙ্গলের ঈদ বাজার শেষ মুহুর্থে জমে উঠেছে

August 6, 2013, এই সংবাদটি ২২৪ বার পঠিত

শ্রীমঙ্গলে জমে উঠেছে ঈদবাজার। শহরের বিপণিবিতানগুলোতে দিন-রাতে এখন লাখো ক্রেতার ভিড়। শাপলা মার্কেট- বিলাস-এম বি, নিউমার্কেট, সাইফুর রহমান মার্কেট, মিদাদ শপিং সিটিতে সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলছে কেনাবেচা। অভিজাত শপিং মল ও বুটিক হাউসগুলোতে সন্ধ্যার পর ঢল নামছে ক্রেতাদের। গত বছরের মতো এবারও তরুণীদের পছন্দ ভারতীয় ফ্যাশনের থ্রিপিস। গত বছরের ‘ঝিলিক-খুশি’কে পেছনে ফেলে এবার মেয়েরা ঝুঁকেছেন ‘হাঙ্গামা-হাউসফুল-লাভেরিয়া’র দিকে। শাপলামার্কেটের দরজিঘর ঘুরে জানা গেছে, এক সপ্তাহ আগে থেকেই সেখানে ফরমাশ নেওয়া বন্ধ। এখন এসব দরজি দোকানে ফরমাশ দেওয়া পোশাক সরবরাহ নিতে ভিড় করছেন ক্রেতারা। এম-বি লেডিস টেইলাসের মো. করিম জানান, ফরমাশ নেওয়া বন্ধ করে শেষ মুহূর্তে পোশাক সরবরাহ দিতেই এখন হিমশিম খেতে হচ্ছে। শাপলা সুপার মার্কেটের বসুন্ধরা শপিং সেন্টারের মো.শাহাজান আহমেদ জানান, এবার তরুণীরা ভারতীয় ও পাকিস্তাানি পোশাকে বেশি ঝুঁকছেন। আলহামরা শপিং সেন্টারের বিক্রেতারা বলেন, মেয়েদের পোশাকের পাশাপাশি এবার শিশু ও তরুণদের পোশাকও বেশি বিক্রি হচ্ছে। মৌলভীবাজাররের সহকারী পুলিশ সুপার মো. মোল্লা শাহীন বলেন, নির্বিঘেœ কেনাকাটা নিশ্চিত করতে সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত বিপণিবিতানগুলোতে পর্যাপ্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। চাঁদরাত পর্যন্ত কেনাকাটায় সব ধরনের নিরাপত্তা দেওয়া হবে।
শ্রীমঙ্গলে জমে উঠেছে ঈদবাজার। শহরের বিপণিবিতানগুলোতে দিন-রাতে এখন লাখো ক্রেতার ভিড়। শাপলা মার্কেট- বিলাস-এম বি, নিউমার্কেট, সাইফুর রহমান মার্কেট, মিদাদ শপিং সিটিতে সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলছে কেনাবেচা। অভিজাত শপিং মল ও বুটিক হাউসগুলোতে সন্ধ্যার পর ঢল নামছে ক্রেতাদের। গত বছরের মতো এবারও তরুণীদের পছন্দ ভারতীয় ফ্যাশনের থ্রিপিস। গত বছরের ‘ঝিলিক-খুশি’কে পেছনে ফেলে এবার মেয়েরা ঝুঁকেছেন ‘হাঙ্গামা-হাউসফুল-লাভেরিয়া’র দিকে। শাপলামার্কেটের দরজিঘর ঘুরে জানা গেছে, এক সপ্তাহ আগে থেকেই সেখানে ফরমাশ নেওয়া বন্ধ। এখন এসব দরজি দোকানে ফরমাশ দেওয়া পোশাক সরবরাহ নিতে ভিড় করছেন ক্রেতারা। এম-বি লেডিস টেইলাসের মো. করিম জানান, ফরমাশ নেওয়া বন্ধ করে শেষ মুহূর্তে পোশাক সরবরাহ দিতেই এখন হিমশিম খেতে হচ্ছে। শাপলা সুপার মার্কেটের বসুন্ধরা শপিং সেন্টারের মো.শাহাজান আহমেদ জানান, এবার তরুণীরা ভারতীয় ও পাকিস্তাানি পোশাকে বেশি ঝুঁকছেন। আলহামরা শপিং সেন্টারের বিক্রেতারা বলেন, মেয়েদের পোশাকের পাশাপাশি এবার শিশু ও তরুণদের পোশাকও বেশি বিক্রি হচ্ছে। মৌলভীবাজাররের সহকারী পুলিশ সুপার মো. মোল্লা শাহীন বলেন, নির্বিঘেœ কেনাকাটা নিশ্চিত করতে সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত বিপণিবিতানগুলোতে পর্যাপ্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। চাঁদরাত পর্যন্ত কেনাকাটায় সব ধরনের নিরাপত্তা দেওয়া হবে। শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি॥

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •