মূল হত্যাকারী কাশেম এখনও ধরাছোঁয়ার বাইরে ॥ কুলাউড়ায় প্রবাসী হত্যা মামলায় এ পর্যন্ত ৫ আসামি গ্রেফতার

November 13, 2013, এই সংবাদটি ১৮৮ বার পঠিত

কুলাউড়া উপজেলার প্রবাসী আজিজ হত্যা মামলায় দুই পলাতক আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ১১ নভেম্বর সোমবার বিকেলে ও গতকাল মঙ্গলবার ভোরে ভাটেরা ইউনিয়ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা হলেন-কুলাউড়া উপজেলার ভাটেরা ইউনিয়নের নোয়াগাঁও গ্রামের পাখী মিয়ার ছেলে সামাদ মিয়া (২৫) ও একই ইউনিয়নের কলিমাবাদ গ্রামের ফাতির আলীর ছেলে সানা মিয়া (২৯)। ইতিমধ্যে প্রবাসী আজিজহ হত্যা কান্ডের ঘটনায় নিহতের আপন ভাবি জাহানারা বেগম শাহানা (২৮), ভাটেরা বেড়কুড়ি গ্রামের রহমত মিয়া (৩৬) ও কয়েছ (২৭) কে পুলিশ গ্রেফতার করে। এ নিয়ে আজিজ হত্যা কান্ডে এখন পর্যন্ত পুলিশ ৫ জনকে গ্রেফতার করা হয়। নিহতের ভাবি জাহানারা বেগম শাহানা আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিতে আজিজ হক্যাকান্ডে নিজে এবং তার স্বামী নিহতের বড়ভাই বাহরাইন প্রবাসী আব্দুল খালিকের পরিকল্পনার কথা স্বীকার করে বলেন, ভাটেরা এলাকায় মৃত আসিদ আলীর ছেলে মোঃ কাশেম মিয়ার মাধ্যমে অর্থের বিনিময়ে দেবর আজিজকে খুন করার কথা জবানবন্দি দেন। তবে মূল হত্যাকারী কাশেম এখনও ধরাছোঁয়ার বাহিরে রয়েছে কুলাউড়া থানার অফিসার ইনচার্জ হাসানুজ্জামান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। উল্লেখ্য, গত ২৭ সেপ্টেম্বর প্রবাসী আজিজ নিখোঁজ হন এবং ১০ অক্টোবর ১৪দিন পর হাকালুকি হাওরে তার লাশ পাওয়া যায়।
কুলাউড়া উপজেলার প্রবাসী আজিজ হত্যা মামলায় দুই পলাতক আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ১১ নভেম্বর সোমবার বিকেলে ও গতকাল মঙ্গলবার ভোরে ভাটেরা ইউনিয়ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা হলেন-কুলাউড়া উপজেলার ভাটেরা ইউনিয়নের নোয়াগাঁও গ্রামের পাখী মিয়ার ছেলে সামাদ মিয়া (২৫) ও একই ইউনিয়নের কলিমাবাদ গ্রামের ফাতির আলীর ছেলে সানা মিয়া (২৯)। ইতিমধ্যে প্রবাসী আজিজহ হত্যা কান্ডের ঘটনায় নিহতের আপন ভাবি জাহানারা বেগম শাহানা (২৮), ভাটেরা বেড়কুড়ি গ্রামের রহমত মিয়া (৩৬) ও কয়েছ (২৭) কে পুলিশ গ্রেফতার করে। এ নিয়ে আজিজ হত্যা কান্ডে এখন পর্যন্ত পুলিশ ৫ জনকে গ্রেফতার করা হয়। নিহতের ভাবি জাহানারা বেগম শাহানা আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিতে আজিজ হক্যাকান্ডে নিজে এবং তার স্বামী নিহতের বড়ভাই বাহরাইন প্রবাসী আব্দুল খালিকের পরিকল্পনার কথা স্বীকার করে বলেন, ভাটেরা এলাকায় মৃত আসিদ আলীর ছেলে মোঃ কাশেম মিয়ার মাধ্যমে অর্থের বিনিময়ে দেবর আজিজকে খুন করার কথা জবানবন্দি দেন। তবে মূল হত্যাকারী কাশেম এখনও ধরাছোঁয়ার বাহিরে রয়েছে কুলাউড়া থানার অফিসার ইনচার্জ হাসানুজ্জামান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। উল্লেখ্য, গত ২৭ সেপ্টেম্বর প্রবাসী আজিজ নিখোঁজ হন এবং ১০ অক্টোবর ১৪দিন পর হাকালুকি হাওরে তার লাশ পাওয়া যায়। এইচ ডি রুবেল :

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •